সোমবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৭:১৬ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ খবর :

অজানাই রয়ে গেছে সমুদ্রে নিজ সম্পদের পরিমান

ওয়ান নিউজ 24 বিডি ডেস্ক
  • আপডেট সময় শুক্রবার, ২৬ এপ্রিল, ২০১৯
  • ২১৮ বার পড়া হয়েছে

নিউজ ডেস্ক:

ব্লু ইকোনমিতে বাংলাদেশের অপার সম্ভাবনা থাকলেও সমুদ্র বিজয়ের সাত বছর পরও ততটা এগোয়নি বাংলাদেশ। একটি অস্থায়ী সেল থাকলেও আজও হয়নি তা স্থায়ী। এখন পর্যন্ত অজানাই রয়ে গেছে সমুদ্রে নিজ সম্পদ বা অবৈধভাবে মাছ ধরার পরিমান। এমন যখন চিত্র তখন এ বিষয়ে অভিজ্ঞ ফ্রান্সের এক কোম্পানী সিএলএস বাংলাদেশকে সহায়তার আগ্রহ প্রকাশ করেছে। বাংলাদেশের ব্লু ইকোনমি সেলের প্রধান, সিএলএসের এই আগ্রহকে ইতিবাচক মনে করছেন।

ব্লু ইকোনমি: সমুদ্র সম্পদ নির্ভর অর্থনীতি। সমুদ্রের নীল পানি আর তলদেশে থাকা বিশাল সম্পদকে কাজে লাগিয়ে উন্নয়নের স্বপ্ন পূরনে এক অর্থনৈতিক বিপ্লব। বিভিন্ন রিপোর্টে দেখা গেছে, বঙ্গোপসাগরে রয়েছে সোনার চেয়ে দামী বালি, ইউরেনিয়াম, থোরিয়াম। অগভীরে জমে আছে কাদা, যা দিয়ে তৈরী হয় সিমেন্ট। আন্তর্জাতিক গবেষনা রিপোর্ট গুলোতে বলা হচ্ছে সমুদ্রের তলদেশে রয়েছে তেল-গ্যাস- খনিজ সম্পদও।

এছাড়া বঙ্গোপসাগরের মাছেও রয়েছে বিপুল সম্ভাবনা। এ অঞ্চলের টুনা মাছ, সারা বিশ্বেই অত্যন্ত জনপ্রিয়। এছাড়া অন্যান্য সামুদ্রিক মাছ, উদ্ভিদ ও জীবজন্তু ভবিষ্যত প্রজন্মের প্রোটিনের অন্যতম যোগান দেবে। এমনকি সমুদ্র নির্ভর ঔষধশিল্পও গড়ে তোলা সম্ভব বলে মনে করছেন গবেষকরা।

আর এসবই বেশী করে আলোচনায় এসেছে ২০১২ সালে মিয়ানমার এবং ২০১৪ সালে ভারতের সাথে সমুদ্র বিজয়ের পর। আগ্রহী হয়ে উঠেছে উন্নত বিশ্বের বিশেষজ্ঞরা। তেমনভাবে আগ্রহ প্রকাশ করেছে একটি প্রতিষ্ঠান, সিএলএস। ফ্রান্সের মহাকাশ গবেষনা প্রতিষ্ঠান সিএনইএসের তত্বাবধানে চলে এই সিএলএস। যারা গত ত্রিশ বছর ধরে মূলত সমুদ্র গবেষনা ও সামুদ্রিক মাছ ও মৎসজীবিদের নিয়ে কাজ করছে।

সিএলএসের চীফ ডিজিটাল এন্ড অপারেশনস অফিসার ফিলিপ রকস, বলেন, “আমরা দেখেছি, বাংলাদেশের কাছে সমুদ্রে তাদের অংশে কতটুকু মজুদ আছে তার কোন সঠিক তথ্য নেই। বাংলাদেশের জন্য বরাদ্দ সমুদ্র অর্থনৈতিক অঞ্চলে মাছ ধরার অবৈধ নৌযানের অনুপ্রবেশ বা চোরাশিকার হচ্ছে কতটুকু, তাও জানেনা দেশটি। এসব বিষয়ে সিএলএস বাংলাদেশকে সহযোগিতা করতে পারে। এছাড়া সিএলএসের রয়েছে নৌযান নজরদারী ডিভাইস, যা দিয়ে জেলেরা আবহাওয়ার পূর্বাভাস ও নিরাপদ স্থানে ফিরে আসার সতর্কতা পাবে”।

বাংলাদেশ ২০১৭ সালে ব্লু ইকোনমি নিয়ে এক অস্থায়ী সেল গঠন করে। যারা ১৭টি মন্ত্রনালয় ও ১০টি অধিদপ্তরের মধ্যে সমন্বয়ের কাজ করছে। তারা সিএলএসের আগ্রহকে স্বাগত জানিয়েছে।

অতিরিক্ত সচিব ও ব্লু-ইকোনমি সেলের সমন্বয়ক ড. গোলাম শফিউদ্দিন, এনডিসি, বলেন, “ব্লু ইকোনমি খাতে বাংলাদেশের রয়েছে অভূতপূর্ব সম্ভাবনা। আর তাই সরকার এই সেলটা গঠন করেছে। আমাদের সেলটা অস্থায়ী, অচিরেই তা স্থায়ী হওয়ার কথা রয়েছে। আর তাহলে কার্যক্রম ও সিদ্ধান্ত নেয়া সহজ হবে। তখন আমাদের আলাদা বাজেট হবে। তারপরও আমরা এখন ব্লু ইকোনমি এর সাথে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রনালয় ও অধিদপ্তরের মধ্যে সমন্বয়ের কাজ করছি। মিটিং করছি। নিয়েছি, স্বল্প, মধ্য ও দীর্ঘ মেয়াদী পরিকল্পনা। তবে এটি জটীল কাজ, খুব তাড়াতাড়ি করা সম্ভব না। কাজ চলছে”। তিনি আরো বলেন, “ সিএলএসের দুই কর্মকর্তা এরই মধ্যে বাংলাদেশে এসেছিলো। মৎস সম্পদ মন্ত্রনালয়ের সাথে তারা বৈঠক করেছে। আমি বিশ্বাস করি সিএলএস আর মৎস ও প্রানী সম্পদ মন্ত্রনালয় এক সাথে কাজ করলে আমরা লাভবান হবো”।

বলা হচ্ছে ২০৫০ সালে পৃথিবীর জনসংখ্যা হবে প্রায় ৯০০ কোটি। বিপুল এই জনগোষ্ঠির খাবারের যোগান দেবে সমুদ্র। আর ২০৩০ সালের মধ্যে বাংলাদেশের জিডিপির প্রায় ৫ ভাগ আসবে সমুদ্র অর্থনীতি থেকে।

নিউজটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2019 Onenews24bd.Com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com