বৃহস্পতিবার, ৩০ জানুয়ারী ২০২০, ০৩:৫২ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
ঐতিহাসিক শোলাকিয়া ঈদগাহে হবে আল্লামা আযহার আলী আনোয়ার শাহ হুজুরের জানাযা জেলা পর্যায়ে বিজ্ঞান বিষয়ক সেমিনার ও কুইজ প্রতিযোগিতায় কিশোরগঞ্জ টেক্সটাইল মিলস্ আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় চ্যাম্পিয়ন দুই কোটি টাকা অর্থ আত্মসাৎ মামলায় কমলগঞ্জের দলই চা বাগানে প্রাক্তন ব্যবস্থাপকসহ ৩ জন জেলহাজতে সাকিবের শাস্তি কমাতে সংসদে প্রস্তাব, যা বললেন সাংসদ ক্রিকেটে বাজি ধরতে ব্যাংকের ৩ কোটি টাকা হাতিয়েছেন ইনচার্জ শামসুল! ৪ বলে ২ রান করতে পারলো না নিউজিল্যান্ড দুই দিনে হাসপাতাল বানিয়ে ফেললো চীন ! চলে গেলেন আল্লামা আযহার আলী আনোয়ার শাহ আজহারী জামায়াতের প্রোডাক্ট: ধর্ম প্রতিমন্ত্রী মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে ঘোড়দৌড় প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত

সারাক্ষণ কম্পিউটার বা মোবাইলের স্ক্রিনেই কাজ? ৫টি ভয়ঙ্কর রোগের আশঙ্কা

ডেস্ক রিপোর্ট
  • আপডেট সময় রবিবার, ৫ জানুয়ারী, ২০২০
  • ১০২ বার পড়া হয়েছে

প্রযুক্তি আমাদের প্রতিদিনের জীবনকে সহজ করে দিয়েছে। তবে সেই সাথে ডেকে এনেছে অসুস্থতাও। আমাদের দিনের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত সময় কাটে বিভিন্ন ইলেকট্রনিক ডিভাইস ব্যবহার করে। অফিসে থাকলে কম্পিউটার স্ক্রিনের মাঝে কাটাতে হয় লম্বা একটা সময়। এরপরে মোবাইলের ব্যবহার তো আছেই। এই সকল ইলেকট্রনিক পণ্যের ব্যবহারকেই বলা হচ্ছে স্ক্রিন টাইম।

প্রযুক্তির সহজলভ্যতা ও বহুল ব্যবহার হাতের মুঠোয় পুরো বিশ্বকে এনে দেওয়ার সাথে নানাবিধ শারীরিক সমস্যাকেও এনে দিচ্ছে। জেনে রাখুন স্ক্রিন টাইমের ফলে যে ক্ষতিগুলো হচ্ছে আপনার অজান্তে।

বাড়াচ্ছে হৃদরোগের ঝুঁকি

দিনের সিংহভাগ সময় কম্পিউটার স্ক্রিনের সামনে কিংবা মোবাইল হাতে সময় কাটানো স্বাস্থ্যকর জীবন ব্যবস্থার মাঝে পরে না। প্রয়োজনের অতিরিক্ত সময় একই স্থানে শুয়ে-বসে কাটানোর ফলে হৃদরোগের সম্ভাবনা বেড়ে যায় অন্তত ২৭ শতাংশ পর্যন্ত।। ২০১১ সালের আমেরিকান একটি গবেষণার ফল প্রকাশিত হয় ‘জার্নাল অব দ্য আমেরিকান কলেজ অব কার্ডিওলজি’ শীর্ষক জার্নালে। যেখানে বলা হয়- বিনোদনের জন্য যারা দৈনিক চার ঘণ্টা কিংবা তার চেয়ে বেশি সময় কাটান স্ক্রিনের সামনে, তাদের বড় ধরনের হৃদরোগের প্রভাব দেখা দেয়।

দেখা দেয় ‘টেক-নেক’

টেক-নেক বলতে বোঝানো হচ্ছে- মোবাইল ফোন বা কম্পিউটার স্ক্রিনের দিকে অস্বস্তিকর ভঙ্গিতে ৪৫ ডিগ্রী অ্যাঙ্গেলে তাকিয়ে থাকার ভঙ্গী। ঘণ্টার পর ঘণ্টা এমন ভঙ্গীতে মোবাইল বা কম্পিউটার ব্যবহারের ফলে ঘাড়ের উপর চাপ পরে। এতে করে ঘাড়, কাঁধ ও পিঠ পর্যন্ত ব্যথাভাব দেখা দেয়।

শুধু এটাই নয়। হাতে থাকা মোবাইলের দিকে এভাবে নিচু হয়ে তাকিয়ে থাকার ফলে পুরো মেরুদণ্ডের উপরেই চাপ পরে। ফলে মেরুদণ্ডজনিত সমস্যাও দেখা দেয়।

‘টেক্সট থাম্ব’ সমস্যার উৎপত্তি

সময়ের সাথে সাথে মোবাইল ফোনের আকৃতি বড় হচ্ছে। হাতের মুঠোয় মোবাইল দীর্ঘসময় ধরে রাখার ফলে হাতের তালুয় ও আঙুলে ব্যথাভাব তৈরি হয়। এছাড়া মোবাইলে অনবরত টাইপিং করার ফলে হাতের বৃদ্ধাঙ্গুলির পেশী ক্লান্ত হয়ে পরে। এই সমস্যাকে বলা হচ্ছে টেক্সট থাম্ব। আমাদের হাতের গঠন হাতের চাইতে বড় কোন কিছু দীর্ঘসময় ধরে থাকার মতো করে তৈরি নয়। ফলে মোবাইল ধরে থাকা ও টাইপিং করায় হাতে ব্যথা ও অবশভাব দেখা দেয়।

দেখা দেয় ‘আই স্ট্রেইন’

ক্রিন টাইমের সবচেয়ে বড় ও প্রধান সমস্যাটি হলো আই স্ট্রেইন দেখা দেওয়া। দিনের সিংহভাগ সময় স্ক্রিনের দিকে তাকিয়ে থাকার ফলে চোখ ক্লান্ত হয়ে পড়ে। সেই সাথে অক্ষিগোলকের ভেতরের অংশ শুষ্ক হয়ে চোখে জ্বালাপোড়া শুরু করে। এই সমস্যাটিকে বলা হচ্ছে ড্রাই আই সিনড্রম। যা আই স্ট্রেইন থেকেও দেখা দেয়। মোবাইল স্ক্রিন, কম্পিউটার স্ক্রিনের ঘণ্টার পর ঘণ্টা তাকিয়ে থাকার ফলে চোখের উপর বাড়তি চাপ পড়ে। যা চোখে নিতে পারে না।

বদলে যায় ঘুমের সময়

ইলেকট্রনিক ডিভাইস থেকে নিঃসৃত ব্লু লাইট খুব ধীরে ঘুমের সময়কে বদলে দেয়। আকেরিকার ন্যাশনাল স্লিপ ফাউন্দেশন জানাচ্ছে, বিকাল ও সন্ধ্যার দিকে যতবেশি ইলেকট্রনিক ডিভাইস ব্যবহার করা হয়, রাতে ঘুমাতে তত বেশি কষ্ট হয় এবং সময় পিছিয়ে যায়। ঘুমের এই সমস্যার ফলে পুরো দিনের কর্মক্ষমতা ও মুডের উপর নেতিবাচক প্রভাব পড়ে।

নিউজটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2019 Onenews24bd.Com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com