রবিবার, ২৪ জানুয়ারী ২০২১, ০২:৪১ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
কিশোরগঞ্জ জেলা ক্রীড়া সংস্থাকে ক্রিকেট সামগ্রী উপহার দিয়েছে বিসিবি ২০০১-২০০৮ ছিল বাংলাদেশের জন্য একটি অন্ধকার যুগ: প্রধানমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রীর উপহারের পাকা বাড়ি পেল ৭০ হাজার গৃহহীন পরিবার পাগলা মসজিদের দানবাক্সে এবার ৫ মাসে সোয়া দুই কোটি টাকা চিনি শিল্পকে বাঁচাতে ১৫ চিনি কলের আখচাষী শ্রমিকদের সভা নাটোরের লালপুরে প্রধানমন্ত্রীর উপহারকৃত ঘর পেল ৩৫ গৃহহীন পরিবার কিশোরগঞ্জে জোরপূর্বক জমি দখল করে ফসল চাষ কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়ায় ৪১ গৃহহীন পরিবারকে জমির দলিল হস্তান্তর পাগলা মসজিদে স্বর্ণালঙ্কারসহ এবার মিলল ২ কোটি ৩৮ লাখ ৫৫ হাজার ৫৪৫ টাকা কুলিয়ারচরে কৃষকের বহুমুখী উদ্যোগ, সবজি দিয়ে তৈরি করলেন মানচিত্র, পতাকা ও নৌকা

আইন না মেনে পাকুন্দিয়ায় সরকারি জমিতে স্থাপনা নির্মাণ

মোঃ মুঞ্জুরুল হক মুঞ্জু, পাকুন্দিয়া, কিশোরগঞ্জ
  • আপডেট সময় শনিবার, ৯ জানুয়ারী, ২০২১
  • ২৬৬ বার পড়া হয়েছে

কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়া উপজেলার মঠখোলা বাজারের উত্তর পাশে সরকারের ১/১ নম্বর খতিয়ান ভুক্ত অর্পিত জমি দখল করে নিয়েছে স্থানীয় একটি প্রভাবশালী চক্র। সেখানে মাটি ভরাট করে পাকা স্থাপনা নির্মাণ করছে তারা। চক্রের মূল হোতা স্থানীয় তালদশী গ্রামের রুছমত আলীর ছেলে বুলবুল ও চাঁন মিয়ার ছেলে কাঞ্চন মিয়া। এরই মধ্যে নির্মাণ কাজ অর্ধেকের বেশী শেষ হয়ে গেছে। এ ব্যাপারে সম্প্রতি মঠখোলা বাজার বণিক সমিতির সভাপতি রিপন মেম্বার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) সহ সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত অভিযোগ করার পরও বুলবুল ও কাঞ্চন তাদের নির্মাণ কার্যক্রম বন্ধ করছে না।

 

স্থানীয় সূত্রে জানাযায়, দখলকৃত জমির প্রকৃত মালিক মঠখোলা গ্রামের কালী কিশোর সাহার চার ছেলে যথাক্রমে অতুল চন্দ্র সাহা, কৈলাশ চন্দ্র সাহা, গোপাল চন্দ্র সাহা ও নেপাল চন্দ্র সাহা। তাদের মালিকানাধীন তালদশী মৌজার সাবেক ১৪১ ও ৩০৫ নম্বর খতিয়ানভুক্ত ৮৭৩, ৮৭৪ ও ৮৭৫ দাগে একটি পুকুরসহ মোট ১২৮ শতাংশ জমি রয়েছে। ১৯৬৯ সালের দিকে ওই চার ভাই তাদের পরিবার-পরিজনসহ এসব জমি এলাকায় রেখেই ভারত চলে যান। তারপর আর ফিরে আসেননি। পরবর্তীতে তাদেরই স্বজন দিপু সাহা ও বনিতা রানী সাহা যৌথভাবে এই জমি ভোগ দখল করে আসছেন। সম্প্রতি এলাকার প্রভাবশালী বুলবুল ও কাঞ্চন দলবল নিয়ে পুকুরটিসহ ৭৬ শতাংশ জমি অবৈধভাবে দখল করে নেয়। পরে তারা দখল করা জমিতে টিন ও ইট দিয়ে আধাপাকা স্থাপনা নির্মাণ শুরু করে। মঠখোলা বাজার বণিক সমিতির সদস্যরা এ কাজে বাধা দিলেও দখলকারীরা এলাকার প্রভাবশালী হওয়ায় কারও বাধা মানে নি।

 

সম্প্রতি সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ১০-১২ জন শ্রমিক দিয়ে নির্মানাধীন স্থাপনার কাজ চলছে বেশ দ্রুত গতিতে। এরই মধ্যে অর্ধেকের বেশী কাজ শেষ হয়ে গেছে। সে সময় এলাকাবাসী জানায়, প্রথমে তারা মৌখিকভাবে বাধা দিয়েছে। কিন্তু কোনও কথা শোনেনি তারা। পুরোদমে কাজ চালিয়ে যাচ্ছে বুলবুল ও কাঞ্চনের দল। পরে স্থানীয় প্রশাসনকে বিষয়টি বেশ কয়েকবার জানানো হলেও প্রশাসন বিষয়টি নিয়ে গুরুত্ব দিচ্ছে না। যার ফলে নির্মাণ কাজ অনেকদূর এগিয়ে নিতে পেরেছে দখলকারীরা।

 

উপজেলার মঠখোলা বাজার বণিক সমিতির সভাপতি ও এগারসিন্দুর ইউপির ৬নং ওয়ার্ডের সদস্য মো. রিপন মিয়া বলেন, ৫০-৫৫ বছর আগে তালদশী মৌজায় ১২৮ শতাংশ জমি রেখে ইন্ডিয়া চলে গেছে জমির মালিকরা। আর ফিরে আসেনি। এই অর্পিত জমির মালিক বর্তমানে সরকার। এক বছরের বেশি সময়ের জন্য অর্পিত সম্পত্তি লিজ দেওয়ার নিয়ম নেই। এছাড়া লিজ নেওয়া সম্পত্তিতে কোন প্রকার স্থাপনা নির্মাণ করারও নিয়ম নেই। অথচ উপজেলা প্রশাসনকে ম্যানেজ করে সেখানে অবৈধভাবে স্থাপনা নির্মাণ করা হচ্ছে।

 

এ বিষয়ে অভিযুক্ত বুলবুল মিয়া বলেন, আমরা ১৩ জন মিলে উপজেলা ভূমি অফিস থেকে দুই বছরের জন্য এই জমি লিজ নিয়েছি। তবে ঘর নির্মাণ করছি আমার কেনা জায়গায়। আমি দিপু সাহা ও বনিতা রানী সাহার কাছ থেকে ২২ শতাংশ জমি সাফ কাওলা মূলে কিনেছি।

 

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. নাহিদ হাসান বলেন, একটি পুকুরসহ ৭৬ শতাংশ জমি ১ বছরের জন্য লিজ দেওয়া হয়েছে। সেখানে কোনও স্থাপনা নির্মাণ করা হচ্ছে কিনা জানা নেই। এ বিষয়ে খোঁজ নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2020 Onenews24bd.Com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com