বুধবার, ১০ অগাস্ট ২০২২, ০৮:০৫ পূর্বাহ্ন

উপমহাদেশের চলচ্চিত্রের প্রথম পুরোহিত : হীরালাল সেন

ওয়ান নিউজ 24 বিডি ডেস্ক
  • আপডেট সময় বৃহস্পতিবার, ১৫ নভেম্বর, ২০১৮

আওলাদ রিন্টো
ফরাসি দেশের দুই সহোদর অগাস্ট ও লুইস লুমিয়ের (ব্রাদার্স নামে সর্বাধিক পরিচিত) ১৮৯৫ এর ডিসেম্বরে পৃথিবীটাকে সন্ধান দিলেন এক অন্যরকম আলোর অর্থাৎ পৃথিবীর সর্বশেষ শিল্প মাধ্যমটির যার নাম চলচ্চিত্র। আজও সেই চলচ্চিত্রের রুপালি মায়াজালে আটকা পড়ে আছে সবচেয়ে বেশি মানুষ-শিক্ষা লাভের প্রয়োজনে, নিছক বা নান্দনিক আনন্দ পাওয়ার জন্য কিংবা কোনো বৈপ্লবিক মন্ত্রে আলোড়িত হওয়ার উদ্দেশে।
লুমিয়ের ভ্রাতৃদ্বয়ের চলচ্চিত্র আবিষ্কারের মাধ্যমে পৃথিবীর মানুষকে চমকে (নতুন রঙ্গে রাঙ্গিয়ে) দেয়ার মাত্র কয়েক বৎসরের মধ্যেই এই উপমহাদেশে হীরকের দীপ্তি দিয়ে সর্ব বলিষ্ঠ মাধ্যমটির প্রথম সূর্যোদয় ঘটান এক বাঙ্গালি তরুণ; তার নাম হীরালাল সেন। এই বাংলাদেশেই তার জন্ম।
অখন্ড ভারতের চলচ্চিত্র ইতিহাসের পথিকৃৎ হীরালাল সেন জন্মগ্রহণ করেন মানিকগঞ্জ জেলার বগজুড়ি গ্রামে ১৮৬৬ সালে। শৈশবে হীরালাল খুবই চঞ্চল প্রকৃতির ছিলেন। তার শৈশবের দুরন্তপনাকে তুলনা করা যেতে পারে কেবল কবি কাজী নজরুলের শৈশবের দস্যিপনার সঙ্গে। হরিতালের হলুদে সিন্দুরের লালে ছবি আঁকা, প্রতিমা গড়া এ সবই ছিল হীরালালের শৈমবের নিত্য ঘটনা। একটি আলোকিত অভিজাত বংশে সাহিত্য-শিল্পকলা-সঙ্গীতের যে বৈচিত্রপূর্ণ সংমিশ্রণ ঘটে থাকে ঠিক সে ধরনের পারিবারিক পরিবেশেই বড় হয়েছেন হীরালাল সেন। আইনজীবী পিতা চন্দ্রমোহন সেন ছিলেন প্রতিভা বিকাশের পথে প্রধান পৃৃৃৃষ্ঠপোষক।
হীরালাল মাত্র ২৪ বছর বয়সে H.L. Sen & Bros (এইচ. এল. সেন এন্ড ব্রস) নামে কলকাতায় একটি ফটোগ্রাফি স্টুডিও গড়ে তোলেন। তার গড়া ফটোগ্রাফি স্টুডিওটি সে সময় বেশ সুখ্যাতিও অর্জন করেছিল।
ফটোগ্রাফ তোলার ব্যাপারে খুবই পারদর্শী ছিলেন হীরালাল। সে সময়ে তার মতো ফটো তুলতে খুব কম লোকই পারতেন। হীরালালই সর্বপ্রথম কলকাতায় বায়োস্কোপ প্রদর্শনীর ব্যবস্থা করেন। ১৮৯৮ সালে হীরালাল সেন তার ভাই মতিলাল সেনের সাহায্যে কলকাতায় প্রথম বায়োস্কোপ কোম্পানি খোলেন।
“রয়াল বায়োস্কোপ কোম্পানি” নাম দিয়ে তিনি গ্রামে-গঞ্জে ঘুরে এবং বিখ্যাত ব্যক্তিদের আমন্ত্রণে তাদের বাড়িতে গিয়ে ছবি প্রদর্শন শুরু করেন। সে যুগে আমেরিকার ফিল্মের চাইতে ফরাসি ‘পাথে ফ্লেরেস’ কোম্পানি তখন ক্যামেরাম্যান, কলাকুশলীদের পাঠাতেন। তখন ইউরোপীয় কোনো কোম্পানির ক্যামেরাম্যানদের সঙ্গে কাজ শেখার উদ্দেশে ভাব জমানো বেশ কঠিনসাধ্য ছিল। হীরালাল ছিলেন উদ্যমী পুরুষ। তিনি (হীরালাল) অনেক চেষ্টা করে ‘পাথে’ কোম্পানির এক ক্যামেরাম্যানের সাথে ভিড়ে গেলেন এবং তার সাথে ভাব জমিয়ে ক্যামেরা চালানোর টেকনিকগুলো আয়ত্ব করে নিলেন। তার সাহায্য নিয়ে হীরালাল ‘পারস্যের ফুল’ নাটকের একটি নাচের দৃশ্য তোলেন। এ ছবি তোলার পর তিনি আরও বেশ কিছু স্বল্পদৈর্ঘ্যের ছবি তোলেন, যার অনেকগুলোই অমরেন্দ্র দত্তের ক্লাসিক থিয়েটারে যে সমস্ত নাটক অভিনীত হতো তার দৃশ্য।
১৯০৩ সালে হীরালাল ‘আলীবাবা ও চল্লিশ চোর’ নাটকের কয়েকটি দৃশ্যের ছবি তুলেছিলেন। এই ছবিগুলো মাঝে মাঝে থিয়েটারে দেখানো হতো। বলাবাহুল্য, এই ছবি দেখার জন্য তখস থিয়েটার হলে লোক ভেঙ্গে পড়ত। শুধুমাত্র নাটকের দৃশ্য নয় তিনি অনেক ধরনের ছবিই তুলেছিলেন। কলকাতার টাউন হলে দেশনেতা সুরেন্দ্র ব্যানর্জীর নেতৃত্বে ১৯০৫ সালে বঙ্গভঙ্গ আন্দোলনের দৃশ্য তোলেন হীরালাল সেন। সম্ভবত সেটিই ছিলো রাজনৈতিক কোনো ঘটনা চলচ্চিত্রে ধরে রাখার প্রথম ভারতীয় প্রয়াস। আরেকটি ব্যাপারেও হীরালাল ভারতে প্রথম ছিলেন সেটি হলো বিজ্ঞাপন চিত্র নির্মাণ। তিনি জবা কুসুম তেল ও এডওয়ার্ডস টনিকের বিজ্ঞাপন চিত্র তৈরি করেছিলেন।
জীবনের শেষ কয়েকটা বছ হীরালালের পক্ষে সুখকর ছিলো না। ক্যান্সার, অর্থকষ্ট ও হতাশা তাকে আচ্ছন্ন করে রেখেছিলো। বাংলা সিনেমা জগতের জন্য চরম দুর্ভাগ্য যে হীরালালের তোলা সমস্ত ছবিই ১৯১৭ সালে তার মৃত্যুর কয়েকদিন আগে আগুন লেগে ধ্বংস হয়ে যায়। যদিও তার প্রতিভায় ছিলো অমিত সম্ভাবনা। কিন্তু অগ্নিকান্ডে ছাই হয়ে গেলো বাঙালির চলচ্চিত্র সৃষ্টির আদিপর্ব।
বিনা বিতর্কে অবশ্য একথা মেনে নেয়া যায় না। কেননা গত শতাব্দীর শেষ থেকে এই শতাব্দীর মাঝামাঝি পর্যন্ত কত দেশের কত ছবি বাণিজ্যিক কারণে পরস্পরের হাত বদল করেছে। হয়তো ফ্রান্স, আমেরিকা, ইতালি, ইংল্যান্ডের ফিল্ম আর্কাইভগুলোর সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে হীরালাল চিত্রিত কোনো ফিল্ম বা অন্য কোনো সূত্র থেকে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য বেরিয়ে আসতে পারে। হীরালাল সেন নির্মিত কোনো ছবি না থাকায় যেমন তিনি বঞ্চিত হয়েছেন এই উপমহাদেশের চলচ্চিত্রের জনকের স্বীকৃতি থেকে ঠিক তেমনি বাঙালি জাতিও বঞ্চিত হয়েছে তার গর্ব করার মতো একটি বিষয় খেকে।
উপমহাদেশের প্রথম চলচ্চিত্রকার হিসেবে মেনে নেয়ার পক্ষে যথেষ্ট নির্ভরযোগ্য প্রমাণ থাকা সত্ত্বেও ‘বাংলা চলচ্চিত্র শিল্পের ইতিহাস’ গ্রন্থের প্রণেতা ছাড়া কেউই হীরালাল সেনকে অখন্ড ভারত বা উপমহাদেশে চলচ্চিত্রের জনক হিসেবে মেনে নেননি। বরং নির্লজ্জভাবে তারা বোম্বের দাদা সাহেব ফালকে-কেই বসিয়েছেন। উপমহাদেশের চলচ্চিত্রের প্রথম পুরোহিত হিসেবে।
কাহিনী চলচ্চিত্রকে মানদন্ড ধরে চলচ্চিত্রের জনক অনুসন্ধান করা হলে দাদা সাহেব ফালকে নামটাই প্রথমে উল্লেখ করতে হয়। যদিও তিনি হীরালাল সেনের অনেক পরে চলচ্চিত্র নির্মাণ করেন। আর এ ছবিটি নির্মাণের কারণে ফালকে পেলেন এই ভূখন্ডে চলচ্চিত্রের জনকের মর্যাদা। এ পর্যায়ে একটা বড় প্রশ্ন থেকে যায় সেটি হচ্ছে, বিশ চলচ্চিত্র ইতিহাসে যে লুমিয়ের ভ্রাতৃদ্বয়কে চলচ্চিত্রের জনক হিসেবে আখ্যায়িত করা হচ্ছে তারা কী ১৮৯৫ এর ২৮ ডিসেম্বর প্যারিসের গ্রাঁ কাফেতে কোনো কাহিনী চলচ্চিত্র দেখিয়ে ইতিহাস গড়েছিলেন, নাকি অন্য কিছু? ইতিহাস বলছে তারা সেখানে প্রামাণ্য চিত্র দেখিয়েছিলেন। ট্রেনের ছুটে আসা, রানির অভিষেক ইত্যাদি। সে হিসেবে হীরালাল সেন চলচ্চিত্র নির্মাণে ফালকের চেয়ে এক দশক অগ্রণী। নাট্যদৃশ্য ছাড়া যেসব অনুষ্ঠানের চলচ্চিত্র হীরালাল এই শতকের শুরুর দিকে তুলেছিলেন এবং প্রদর্শন করেছিলেন তাতে নির্দ্বিধায় হীরালালের জন্যই ছেড়ে দিতে হয় উপমহাদেশের প্রথম চলচ্চিত্রকারের আসনটি। কারণ চলচ্চিত্র নির্মাণের ইতিহাস রচনার বিশ্বস্বীকৃত মানদন্ড সঙ্গত কারণেই মানতে হবে। প্রামাণ্যচিত্রই হোক আর কাহিনীচিত্রই হোক চলচ্চিত্র শিল্পের সার্বিক প্রক্রিয়ার ভিতর দিয়ে গিয়ে তবেই তা চলচ্চিত্র শিল্প হিসেবে রূপ লাভ করে।
বাঙালি জাতির গর্ব প্রকাশ করতে গিয়ে হীরালাল সেনের কীর্তির কিংবা মিথ্যার আশ্রয় নেয়ার দাবিদার হওয়ার বিন্দুমাত্র ইচ্ছা কিংবা মিথ্যার আশ্রয় নেয়ার প্রয়োজন নেই। কেননা এটা পরীক্ষিত হীরালাল সেনই অখন্ড ভারতে প্রথম ক্যামেরায় দৃশ্য ধারণ করে পরবর্তী সময়ে তা চলচ্চিত্রে রূপ দেন।

Tahmina Dental Care

নিউজটি শেয়ার করুন

13 responses to “উপমহাদেশের চলচ্চিত্রের প্রথম পুরোহিত : হীরালাল সেন”

  1. eger bunlar dogruysa yer yerinden oynar ??

  2. 15 kisi beni engellemis, hepinizi gördüm arkadaslar ??

  3. Benim 1 saat sonra geldi türk aktif hemde

  4. stalkers, let’s sit down and talk why me ??

  5. En iyi minecraft apk sitesi burası! Minecraft son sürüm güncel apkları hemen indir.

  6. Congratulations to you and your team for this incredible work. I don’t know how I found this place, but I’m glad I did. Thanks. Here is my website: https://steroidfitin.com/

  7. Bu çerçevede steroid kür satın al çözümleri sayesinde kusursuz bir seçimden faydalanmanız mümkün!

  8. A very successful work. Congratulations, take care of yourself. https://steroidmagazan.com Geniş kadrosu ile kurulduğu dönemden beri steroid satın al konusunda güvenli bir alışveriş imkânı sunuyor. Hedefimiz, Yurtiçi ve Yurtdışı kaynaklar ile bu sektörde bulunduğumuz liderlik konumumuzu korumak.

  9. Kapıda ödeme steroid satın al işlemi için birçok online alışveriş siteleri bu şekilde hizmet vermektedir.

  10. A very successful work. Congratulations, take care of yourself. https://steroidmagazan.com Geniş kadrosu ile kurulduğu dönemden beri steroid satın al konusunda güvenli bir alışveriş imkânı sunuyor. Hedefimiz, Yurtiçi ve Yurtdışı kaynaklar ile bu sektörde bulunduğumuz liderlik konumumuzu korumak.

  11. levmont says:

    Thanks for share post

Leave a Reply

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2022 Onenews24bd.Com
Site design by Le Joe
%d bloggers like this: