রবিবার, ২৪ অক্টোবর ২০২১, ০৯:১০ অপরাহ্ন

সর্বশেষ খবর :

একজন সত্যিকারের করোনা যোদ্ধার গল্প

মো: আল-আমীন, কিশোরগঞ্জ
  • আপডেট সময় শুক্রবার, ৯ জুলাই, ২০২১
একজন সত্যিকারের করোনা যোদ্ধার গল্প
  • করোনার শুরু থেকে যারা সম্মুখসারিতে থেকে করোনা রোগীদের সেবা দিয়ে যাচ্ছেন মূলত তাঁদেরকে বর্তমান সময়ে করোনা যোদ্ধা বলে অভিহিত করা হচ্ছে। তারমধ্যে ডাক্তার, নার্স, স্বাস্থ্যকর্মী, পুলিশ প্রশাসন, সিভিল প্রশাসন ও রাজনৈতিক নেতাদের নামও রয়েছে। কিন্তু সবার চেয়ে বেশি ঝুঁকি নিয়ে যাঁরা কাজ করছেন, তারা হলেন করোনা রোগীদের থেকে সেম্পল সংগ্রহ করছেন যাঁরা। আজ এমনি একজন সম্মুখসারির করোনা যোদ্ধা কিশোরগঞ্জ শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মেডিকেল টেকনোলজিষ্ট তানভীর আহমেদ এর বিভিন্ন অভিজ্ঞতার গল্প শুনাবো আপনাদের। কাজের প্রতি প্রচুর ভালোবাসা ও করোনাকালীন ভয়াবহ কিছু অভিজ্ঞতার কথা শেয়ার করেছেন আমাদের নিজস্ব প্রতিনিধি মো: আল-আমীনের সাথে।

প্রশ্ন: এ পেশায় কেন আসা?
উত্তর: স্বাস্থ্য সেবা পেশায় আমার আসার ইচ্ছা ছিল খুব ছোট থেকেই। আমার মা-বাবা দুজনেরই স্বপ্ন ছিল আমি ডাক্তার হয়ে দেশ ও জনগণের সেবা করবো। কিন্তু আমার পড়াশুনার ফলাফল খুব ভালো না হওয়ায় আমার মা-বাবা চিন্তায় পড়ে গেল। পরবর্তীতে স্বপ্ন বাস্তবায়নে এইচএসসি পাশ করার পর আমাকে ডিপ্লোমা ইন মেডিক্যাল টেকনোলজিতে (প্যাথলজি) ভর্তি করে। ২০১৪ সালে আমি ৩ (তিন) বছরের কোর্স শেষ করার পর থেকেই স্বাস্থ্য বিভাগের বিভিন্ন প্রাইভেট প্রতিষ্ঠানে চাকরি করতে শুরু করি। চাকরির পাশাপাশি সেসময় আমি প্রাইভেট ইউনিভার্সিটি থেকে বায়োকেমিস্ট্রি ও মলিকুলার বায়োলজিতে অনার্স-মাস্টার্স সম্পূর্ণ করি। সব মিলিয়ে মূলত মায়ের ইচ্ছা পূরণ করার জন্যই আমি এই পেশাতে আসি।

প্রশ্ন: করোনাকালীন কিভাবে সতর্ক থাকছেন? এগুলো পড়ে থাকতে কষ্ট হয় না?
উত্তর: আমাদের জন্য বাংলাদেশ সরকার যে বিধি-নিষেধ দিয়েছেন তা মেনে চলতে চেষ্টা করি। যতক্ষণ ডিউটি করি পিপিই, মাস্ক, সেনিটাইজার, ফেইসশিল্ড এবং ঘামবুট পড়েই থাকি। যদিও অনেক গরম তবুও এভাবেই থাকি। মানুষকে নিরাপদ রাখতে ডিউটির বাইরের সময়টাতেও চেষ্টা করি সবার থেকে দূরত্ব বজায় রেখে চলতে। আর কষ্টের কথা যদি বলেন, আমার ফেইসবুক আইডিতে কিছু ছবি পোষ্ট করেছিলাম দেখে নিতে পারেন। শরীর থেকে পোষাক খোলার পর মনে হয় পোষাক থেকেই যেন প্রায় হাফ লিটার পানি বের হবে। শারীরিক যন্ত্রণার কথা নাই বললাম, এগুলো লিখে আর বলে বুঝানো সম্ভব না।

প্রশ্ন: পরিবারের লোকজন ভয়ে থাকে না? তাদের থেকে দূরে যখন কষ্ট হয় না?
উত্তর: ভয়ে তো থাকেই। তবে আমার মা একজন সাহসী মহিলা। ২০২০ সালের মার্চে প্রথম যখন করোনা আসলে তখন আমার মা বলেছিল তুমি যেহেতু এ পেশায় আছ সেহেতু পিঁছিয়ে যাওয়ার সুযোগ নেই। আমার স্ত্রীও ঢাকা মেডিকেল হাসপাতালের একজন সিনিয়র স্টাফ। আমার ছোট একটা বাচ্চা। অফিস থেকে যখন বাসায় আসি বাচ্চাটা কোলে আসতে চায় তখন বাচ্চাকে কোলে না নিতে পারার যে কষ্ট সেটা বলে বুঝানো সম্ভব না।

প্রশ্ন: প্রতিদিন কি পরিমাণ সেম্পল সংগ্রহ করতে হয়? সেগুলো পরীক্ষা-নিরীক্ষা কিভাবে হয়।
উত্তর: আমি গত বছরের জুনের ২০ তারিখ শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল হাসপাতালে কাজ শুরু করি। তার আগে আমি ব্র্যাকের প্রজেক্টে ছিলাম। সেখানে একটা লিমিটেশন ছিল। প্রতিদিন মিনিমাম ৩০টা লিমিটেশন থাকলেও বেশির ভাগ সময় ৪০/৪৫ হয়ে যেতো। কিন্তু মেডিকেলে আসার পর থেকে চাপটা বেড়ে গেছে। সরকারি হাসপাতাল, মানুষের চাহিদা বেশি। কিন্তু শুরু থেকেই এখানে জনবল কম। কোভিডের ডিউটি ছাড়াও এখানে হাসপাতালের যে ব্লাড ব্যাংক সেখানেও কাজ করতে হয়। যেহেতু জনবল সংকট সেহেতু আমরা প্রতিনিয়ত কাজ করে যাচ্ছি। গত ১ বছর যাবত আমরা তিনজন (আমি, তারেক মো: খালেদ সাইফুল্লাহ ও রতন আলী) পুরো হাসপাতালের প্যাথলজি, ব্লাড ব্যাংক ও কোভিড সেকশনে কাজ করে যাচ্ছি। আমাদের সাথে হাসপাতালের আউসসোর্সিং এর আরও ৫ (পাঁচ) জন সহযোদ্ধা কাজ করে যাচ্ছে। তবে তারা বর্তমানে শুধুমাত্র প্যাথলজি বিভাগে কাজ করে থাকে।

সেম্পলগুলো সংগ্রহ করার পর এগুলো মেডিকেল কলেজের আরটিপিসিআর ল্যাবে স্থানান্তর করা হয়। সেখানেই মূলত সব পরীক্ষা নিরীক্ষা করা হয়।

প্রশ্ন: কতবার আক্রান্ত হয়েছেন, কতবার টেস্ট করিয়েছেন?
উত্তর: আমি বহুবার টেস্ট করিয়েছি কিন্তু আলহামদুলিল্লাহ এখন পর্যন্ত একবারও পজেটিভ আসেনি। তবে আমার সাথে আরও যে দুজন আছে তাদের মধ্যে মো: খালেদ সাইফুল্লাহ একাধিকবার পজেটিভ হয়েছে। কিন্তু রতন আলী ও আমার এখনও পজেটিভ হয়নি।

প্রশ্ন: এ পর্যন্ত আনুমানিক কতগুলো সেম্পল সংগ্রহ করেছেন?
উত্তর: সঠিকভাবে বলা সম্ভব না। কিন্তু তা আনুমানিক ৬/৭ হাজার হবেই।

প্রশ্ন: সেম্পল সংগ্রহ করতে গিয়ে কি কি অভিজ্ঞতার সম্মুখিন হয়েছেন?
উত্তর: শুরু থেকে যদি বলি তাহলে বলতে হবে প্রথম দিকের অভিজ্ঞতাগুলো বার বার চোখে ভেসে ওঠে। ২০২০ সালের ২৪ মার্চ যখন আমাদের দেশে করোনা হানা দিল তখন আমার প্রথম অভিজ্ঞতা হল ঢাকা মেডিকেলের মর্গে। তখন এক ভয়াবহ ও ভয়ংকর পরিস্থিতির সম্মুখিন হই। করোনার লক্ষণ নিয়ে প্রথম যে ব্যক্তি মারা গিয়েছিল তার সেম্পল সংগ্রহ করতে হবে। আমাদের সেম্পল সংগ্রহের টিমে ছিল ৬৪ জন। তারমধ্যে বাকি ৬৩ জনই সেম্পল সংগ্রহ করার আপত্তি জানায়। তখন আমি সাহস করে সেই মৃত ব্যক্তির শরীর থেকে সেম্পল সংগ্রহ করেছিলাম।

এছাড়াও তখন মানুষ আমাদের দেখলে অন্যরকমভাবে নাক ভ্যাচকি দিয়ে থাকতো। তখন মনে খুব কষ্ট পেতাম। সে সময় প্রথমবার মা-বাবার সাথে ঈদ করার জন্য যখন ঢাকা থেকে কিশোরগঞ্জ আসি তখন বাড়িওয়ালা আমাকে বাড়িতে ঢুকতে দেয়নি। পরে গ্রামের বাড়িতে গেলে সেখানেও আমার আত্বীয়-স্বজনরা আমাকে গ্রহণ করতে অস্বীকৃতি জানায়। তখন মা-বাবার কান্না উপেক্ষা করে চোখে এক সাগর জল আর মনে পৃথিবী পরিমাণ কষ্ট নিয়ে সেদিন রাতেই আমি আবার ঢাকায় ফেরত যাই এবং ঈদ আমি ঢাকাতেই করি। এরকম আরও কিছু কষ্টদায়ক ঘটনা ঘটেছে আমার সাথে। তবুও পেশা পরিবর্তন করি নাই।

প্রশ্ন: সেম্পল সংগ্রহ ছাড়াও করোনা রোগীদের নিয়ে আর কি কি কাজ করেন?
উত্তর: আমরা মূলত হাসাপাতালে যারা আসে তাদের সেম্পল ই সংগ্রহ করি। বাহিরে কাজ করার জন্য সিভিল সার্জন অফিসের আলাদা টিম আছে। তবুও অফিসিয়ালি নির্দেশ থাকলে বাহিরে গিয়েও সেম্পল সংগ্রহ করতে হয়। সেম্পল সংগ্রহ ছাড়াও কেউ যদি করোনা তথ্য বিষয়ক সংযোগিতা চায় তখন তাদের বিভিন্নভাবে তথ্য দিয়ে সহযোগিতা করি।

প্রশ্ন: এখন তো ভয়াবহ সময় চলছে, তবুও ভয় করেন না?
উত্তর: ভয় প্রথমেও ছিল এখনও আছে। প্রথমে যে আতংকে ছিলাম এখন ততটা আতংকে থাকি না। পরিবার পরিজন নিয়ে ভয়ে থাকি। যেহেতু বাসায় অসুস্থ্য বৃদ্ধ মা-বাবা আছেন, সন্তান আছে তাদের নিয়ে ভয়ে থাকি। তবুও শুরু থেকে স্বাস্থ্য সেবায় নিয়োজিত থাকার যে ইচ্ছা পোষণ করেছিলাম সেটা যেন ধরে রাখতে পারি, মানুষের সেবায় নিয়োজিত থাকতে পারি সেই দোয়া করবেন সবাই।

প্রশ্ন: করোনা নিয়ে সবার উদ্দেশ্যে কি বলার আছে আপনার?
উত্তর: বাংলাদেশ সরকারের যে বিধি-নিষেধ আছে সেগুলো সবাই যেন মেনে চলি। এখন পরিস্থিতি খুব ভয়াবহ সেটা সবাই দেখতে পারছেন। প্রতিদিন প্রায় দুই শতাধিক মানুষ মারা যাচ্ছে। যদি এ ভয়াবহ অবস্থা আরও ছড়িয়ে পড়ে তবে সেটা সবার জন্যই মৃত্যুর কারণ হবে। আমার শেষ কথা- আপনারা ঘরে থাকুন আমরা বাহিরে আছি। আপনাদের সেবায় আমরা সর্বদা প্রস্তুত।

Tahmina Dental Care

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2021 Onenews24bd.Com
Site design by Le Joe
%d bloggers like this: