রবিবার, ২৪ জানুয়ারী ২০২১, ০১:৫১ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
কিশোরগঞ্জ জেলা ক্রীড়া সংস্থাকে ক্রিকেট সামগ্রী উপহার দিয়েছে বিসিবি ২০০১-২০০৮ ছিল বাংলাদেশের জন্য একটি অন্ধকার যুগ: প্রধানমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রীর উপহারের পাকা বাড়ি পেল ৭০ হাজার গৃহহীন পরিবার পাগলা মসজিদের দানবাক্সে এবার ৫ মাসে সোয়া দুই কোটি টাকা চিনি শিল্পকে বাঁচাতে ১৫ চিনি কলের আখচাষী শ্রমিকদের সভা নাটোরের লালপুরে প্রধানমন্ত্রীর উপহারকৃত ঘর পেল ৩৫ গৃহহীন পরিবার কিশোরগঞ্জে জোরপূর্বক জমি দখল করে ফসল চাষ কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়ায় ৪১ গৃহহীন পরিবারকে জমির দলিল হস্তান্তর পাগলা মসজিদে স্বর্ণালঙ্কারসহ এবার মিলল ২ কোটি ৩৮ লাখ ৫৫ হাজার ৫৪৫ টাকা কুলিয়ারচরে কৃষকের বহুমুখী উদ্যোগ, সবজি দিয়ে তৈরি করলেন মানচিত্র, পতাকা ও নৌকা

করোনাকালীন অনলাইন প্রাথমিক শিক্ষার প্রতিবন্ধকতা ও প্রতিকারের উপায়

আইরিন রুবিনা হক লিয়া
  • আপডেট সময় সোমবার, ১১ জানুয়ারী, ২০২১
  • ২৬২ বার পড়া হয়েছে
করোনাকালীন অনলাইন প্রাথমিক শিক্ষার প্রতিবন্ধকতা ও প্রতিকারের উপায়

বৈশ্বিক এই মহামারীতে স্থবির হয়ে আছে পুরো শিক্ষা ব্যবস্থা। দীর্ঘ দশ মাসেরও অধিক সময় ধরে বন্ধ আছে দেশের সকল ধরনের শিক্ষা কার্যক্রম। কবে আবার বিদ্যালয়গুলোতে স্বাভাবিক কার্যক্রম চালু হবে সেটাও এখন অনিশ্চিত!

এই দীর্ঘ সময়ের বিরতিতে শিক্ষার্থীরা যাতে তাদের পড়াশোনা থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে না পড়ে সেজন্য চালু হয়েছে বিভিন্ন ধরনের অনলাইন শিক্ষা কার্যক্রম ।একটি শিশুর জীবনে শিক্ষার প্রাথমিক ভীতটা শুরু হয় প্রাইমারি স্কুলের গন্ডিতে। ৫-১০ বছর বয়সের শিশুরা প্রাথমিক শিক্ষায় অর্জিত শিখনফল অর্জন করে মাধ্যমিক, উচ্চমাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষায় নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করে। করোনাকালীন বিদ্যালয়গুলোর অচলাবস্থা নিরসনে কিশোরগঞ্জ সদর অনলাইন প্রাইমারি স্কুল নামে একটি ভার্চুয়াল বিদ্যালয় চালু হয়েছে যাতে করে কিশোরগঞ্জ জেলা তথা দেশের সকল প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা অনলাইন লাইভ ক্লাসে সংযুক্ত হতে পারে। বেশিরভাগ অভিভাবক ই মনে করেন তাদের সন্তানরা অনলাইন শিক্ষা কার্যক্রমকে উপভোগ করছে এবং অভিভাবকরাও তাদের সন্তানদের এক্ষেত্রে উৎসাহিত করছেন। শুধু কিশোরগঞ্জ সদর নয় ইতিমধ্যে দেশের সকল উপজেলা ও জেলা পর্যায়ে অনলাইন শিক্ষা কার্যক্রম শুরু হয়েছে।

মহামারী করোনা ভাইরাসের প্রভাবে শিক্ষা ব্যবস্থায় আমূল পরিবর্তন লক্ষ্য করা যাচ্ছে। বিদ্যালয়ে গিয়ে পড়ার বদলে তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় অনলাইন শ্রেণীকক্ষের পড়ায় অংশ নিচ্ছে বিশ্বের লাখো শিক্ষার্থী। অনলাইনে ক্লাস করাচ্ছেন শিক্ষকেরা। যুগ যুগ ধরে চলে আসা ক্লাসে বসে পড়ার প্রাচীন ব্যবস্থায় এসেছে পরিবর্তন। যদিও উন্নত বিশ্বের অনেক দেশেই অনলাইন শিক্ষা কার্যক্রমের সাথে শিক্ষার্থীরা পরিচিত কিন্তু বাংলাদেশের মতো উন্নয়নশীল দেশগুলোতে অনলাইন শিক্ষায় একটি নতুন মাত্রা যোগ করেছে ডেক্সটপ, ল্যাপটপ ও স্মার্টফোন।

মহামারী শুরুর আগে বিশ্বের অনেক উন্নয়নশীল ও স্বল্পোন্নত দেশগুলো ২০৩০ সাল নাগাদ সব শিশুর জন্য নূন্যতম প্রাথমিক শিক্ষার সুযোগ নিশ্চিত করার দিকে ভালোভাবে এগিয়ে যাচ্ছিলো। জাতিসংঘের টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা সমূহের মধ্যে এটি (প্রাথমিক শিক্ষা) অর্জনের সম্ভাবনাই সবচেয়ে জোরালোভাবে দেখা যাচ্ছিল। কিন্তু করোনাভাইরাস সব সমীকরণ ওলটপালট করে দিয়েছে। তারপরেও আমরা আশাবাদী।

সম্প্রতি এক জরিপে দেখা গেছে, অনলাইন ক্লাস করার মতো উচ্চ গতিসম্পন্ন ইন্টারনেট সেবা থেকে শিক্ষার্থীরা বঞ্চিত হচ্ছে। প্রয়োজনীয় ওয়াইফাই ও ব্রডব্যান্ড সুবিধা সম্পন্ন প্রযুক্তিগত সংযোগের সীমাবদ্ধতা রয়েছে। অন্যদিকে প্রত্যন্ত গ্রাম অঞ্চলে মোবাইল ডেটা ছাড়া ইন্টারনেট সেবা পাওয়া কঠিন।তাছাড়া শহরের বাইরের ইন্টারনেটের গতি বেশ ধীর, ক্ষেত্রবিশেষে অডিও সংযোগ পেলেও ভিডিওতে সংযোগ পাওয়া দুষ্কর। সে সাথে লোডশেডিং বিহীন নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুত সরবরাহের ক্ষেত্রে ধারাবাহিকতার অভাব আছে। সুতরাং অনলাইন শিক্ষা সর্বত্রভাবে নিশ্চিত করতে নিরবচ্ছিন্ন ইন্টারনেট না থাকা একটি অন্যতম বাধা। শিক্ষা বিশেষজ্ঞদের মতে, করোনাকালে শিক্ষার্থীদের অনেকেই আর্থিক, পারিবারিক ও সামাজিক সংকট ছাড়াও মানসিক দিক থেকেই সমস্যার মধ্যে রয়েছে। তা সত্ত্বেও শিক্ষার্থীরা অনলাইন শিক্ষা কার্যক্রমে যুক্ত থাকার ইতিবাচক মনোভাব প্রকাশ করেছে। আরও কিছু সুবিধা সংযুক্ত হলে শিক্ষার্থীরা অনলাইন শিক্ষা কার্যক্রমে যুক্ত থাকার বিষয়ে কখনও পিছপা হবে না। যেমন:

  • অনলাইন শিক্ষার প্রতিবন্ধকতা দূর করতে শিক্ষার্থীদেরকে প্রযুক্তিগত সহায়তা ও সরকারি প্রণোদনা। বিনামূল্যে বা ভর্তুকি দিয়ে শিক্ষার্থীদের ইন্টারনেট সেবা নিশ্চিতকরণ।

  • অনলাইন শিক্ষা ধারা অব্যাহত রাখতে শিক্ষার সাথে সংশ্লিষ্ট সরঞ্জামাদি যেমন স্মার্টফোন, ল্যাপটপ, ওয়েবক্যামেরা, মাইক্রোফোন ও কম্পিউটার ক্রয় করার ব্যবস্থার কথা চিন্তা করা এবং সহজশর্তে সুদমুক্ত ব্যাংক লোনের ব্যবস্থা।

  • প্রতিটি জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে শক্তিশালী মোবাইল ইন্টারনেট নিশ্চিত করা। 

  • দেশব্যাপী শিক্ষা কার্যক্রমের বিস্তার ঘটানোর প্রয়োজনে শিক্ষা মন্ত্রণালয় ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের সমন্বয়ে শিক্ষা বিষয়ক মোবাইল এপস চালু করা। শিক্ষার্থীদের অনলাইন ক্লাস নিশ্চিত করতে বিশেষ প্রক্রিয়ায় ফ্রী স্টুডেন্ট ডেটা প্যাক নিশ্চিত করা।

  • অনলাইন শিক্ষা কার্যকর করার লক্ষ্যে প্রয়োজনে জেলা ও উপজেলা ভিত্তিক শিক্ষকদের বিশেষ প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা । এছাড়াও বিশেষ মনিটরিং টিম গঠন করে এক্ষেত্রে বিনিয়োগকৃত সম্পদের যথাযথ ব্যবহার। 

যেকোন মহামারী-ই একটি রাষ্ট্রের উন্নয়নে বাঁধা হয়ে দাঁড়াতে পারে। তাই বলে থেমে গেলে হবে না, সমস্যা উত্তরণের জন্য অনেক সুযোগও তৈরী করে দেয়। শিক্ষা ব্যবস্থাকে পুনঃসংস্কার করার মাধ্যমে বর্তমান সমস্যাগুলো সমাধান করে সম্ভাবনাগুলো কাজে লাগাতে হবে। সেজন্য সবার সমন্বিত উদ্যোগ ও সবাইকে একযোগে কাজ করে যেতে হবে। সরকারের বিভিন্ন উন্নয়নমূলক উদ্যোগের পাশাপাশি ব্যক্তি উদ্যোগে শিক্ষক, শিক্ষার্থী, অভিভাবক ও শিক্ষা সংশ্লিষ্ট সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে। তবেই এই অমানিশার সময় গুলো কেটে যাবে এবং শিক্ষা ব্যবস্থায় আধুনিক তথ্য প্রযুক্তির প্রয়োগ বাংলাদেশকে উন্নত বিশ্বে নতুন ভাবে জেগে উঠতে সহায়তা করবে।

 

লেখক: আইরিন রুবিনা হক লিয়া, সহকারি শিক্ষক, সেওড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, কিশোরগঞ্জ সদর, কিশোরগঞ্জ।

নিউজটি শেয়ার করুন

One response to “করোনাকালীন অনলাইন প্রাথমিক শিক্ষার প্রতিবন্ধকতা ও প্রতিকারের উপায়”

  1. JABIN T HAQUE says:

    Good focus….carry on

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2020 Onenews24bd.Com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com