শনিবার, ০৬ মার্চ ২০২১, ০৫:২৮ অপরাহ্ন

করোনার প্রভাবে পর্যটক শূন্য লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান, স্বাস্থ্যবিধি না মেনে মাধবপুর লেকে পর্যটক

সালাহউদ্দিন শুভ
  • আপডেট সময় বৃহস্পতিবার, ২৮ মে, ২০২০
  • ৩৬৩ বার পড়া হয়েছে

প্রতিবছর ঈদ উপলক্ষে মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জের পর্যটন কেন্দ্রগুলো পর্যটকদের ঢল নামলেও করোনাভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে সরকারি নির্দেশনায় পর্যটন কেন্দ্রগুলোতে পর্যটকদের যাতায়াত নিষিদ্ধ করা হয়। ফলে এবার ঈদে পর্যটক শূণ্য রয়েছে লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যাণ। তবে স্বাস্থ্য বিধি না মেনে ঈদের দিন সকাল থেকে মাধবপুর চা বাগান লেকে দেখা গেছে পর্যটকদের প্রচুর যাতায়াত। শহরের জীবন থেকে বাইরে এসে প্রকৃতির একটু ছোঁয়া পেতে পর্যটকরা ঈদের ছুটিতে ভিড় জমাতেন কমলগঞ্জের লাউয়াছড়া জাতীয়ণ উদ্যাণ,মাধবপুর চা বাগান লেক,হামহাম জলপ্রপাতসহ বিভিন্ন পর্যটন কেন্দ্রে।

ঈদের দিন ও পরের কয়েকদিন লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যাণ কয়েক হাজার পর্যটকের আগমনে মুখরিত হয়ে উঠতো। তবে করোনাভাইরাস সংক্রমণের কারণে এ বছর পর্যটন কেন্দ্রে প্রবেশ বন্ধ ঘোষণা করায় এবার ঈদুল ফিতরে পর্যটক শূণ্য রয়েছে লাউযাছড়া জাতীয় উদ্যাণসহ আশপাশের পর্যটন কেন্দ্রগুলো।

সোমবার ঈদের দিন দুপুরে লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যাণ ঘুরে দেখা যায়, টিকেট কাউন্টারসহ প্রবেশ ফটকে তালা ঝুলছে। ভিতরে বেশ কিছু এলাকা ঘুরে দেখা যায় পর্যটক শূণ্য উদ্যাণ যেন হাকার করছে। তবে বানর, লজ্জাবতী বানর, চশমাপরা বানর আপন মনে গাছে গাছে ছোটাছুটি করতে দেখা যায়। পুরো লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান নানা বর্ণে পাখির কলকাকলিতে মুখরিত ছিল।

লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যাণ ইকো ট্যুর গাইড সাজু মারচিয়াং বলেন, ঈদের ২ মাস আগ থেকেই এখানে ভ্রমণে পর্যটকরা ফোন দিতেন। কেউ কেউ বিকাশে গাইড ফি হিসেবে অগ্রীম বুকিং দিয়েও রাখতেন। এ বছর করোনাভাইরাসের কারণে পর্যটন কেন্দ্রগুলো বন্ধ থাকায় এখন পর্যন্ত কোন ফোন আসেনি।

লাউয়াছড়া বনরেঞ্জ কর্মকর্তা মোনায়েম হোসেন বলেন, করোনাভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধের কারণে সরকারি নির্দেশনায় প্রায় ৩ মাস ধরে লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যাণে পর্যটকদের প্রবেশাধীকার বন্ধ রয়েছে।

লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান বন্ধ থাকার কারনে সরকারের এই ৩মাস রাজস্ব ঘাঠতি থাকবে,কেননা যদি আগের মতো দেশ স্বাভাবিক থাকতো তাহলে,সরকারের রাজস্বক্ষেতে ১২ লাখ ১৩ লাখ টাকা জমা হতো। তিনি আরো বলেন,বন্যপ্রানী অবস্থান কেন্দ্রগুলো যদি বছরে ২ মাস বন্ধ রাখা যায় তাহলে বন্যপ্রানীর জন্য ভালো হয়।

মাধবপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান পুষ্প কুমার কানু বলেন, এ সময়ে লেকে পর্যটকদের নিষেধ থাকলেও প্রবেশ তারা কোন নিষেধাজ্ঞা মানছেন না। তারা স্বাস্থ্য বিদি না মেনে জোর করে লেকে প্রবেশ করছেন। তবে এ বিষয়ে কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও থানার পুলিশ কর্মকর্তাকে অবহিত করা হয়েছে।

কমলগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আরিফুর রহমান বলেন, খবর পেয়ে মাধবপুর লেকে পুলিশের একটি দল পাঠানো হয়েছে। তারা সেখান থেকে পর্যটকদের বের করে দিবে।

কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আশেকুল হক বলেন, এ সময়ে পর্যটন কেন্দ্রে প্রবেশ কোনভাবেই মানা যাবে না। আর দলবেধে এভাবে স্বাস্থ্য বিদি লঙ্গণ করে ঘুরে বেড়ানোর কোন সুযোগ দেওয়া যাবে না। তিনি মাধবপুর চা বাগান লেকে খোঁজ নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করছেন বলে জানান।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2020 Onenews24bd.Com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
%d bloggers like this: