রবিবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ০৩:২৬ অপরাহ্ন

কিশোরগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে প্রচারণায় সরব ডজনখানেক প্রার্থী

মো: আল-আমীন, কিশোরগঞ্জ
  • আপডেট সময় বুধবার, ৯ ডিসেম্বর, ২০২০
  • ১৪৫৮ বার পড়া হয়েছে
কিশোরগঞ্জ পৌরসভা

তিনজন রাষ্ট্রপতির জেলা কিশোরগঞ্জ। প্রথম জন মুক্তিযুদ্ধকালীন অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম, দ্বিতীয় জন আওয়ামী লীগের ত্যাগী নেতা সাবেক রাষ্ট্রপতি মরহুম জিল্লুর রহমান, আর বর্তমানে হাওর উন্নয়নের রূপকার মহামান্য রাষ্ট্রপতি মো. আব্দুল হামিদ। সে হিসেবে বাংলাদেশের গুরুত্বপূর্ণ জেলা ঢাকা বিভাগের অন্তর্গত এ জেলা।

 

আসন্ন পৌর নির্বাচনকে সামনে রেখে ইতিমধ্যে দ্বিতীয় ধাপে পৌর নির্বাচনে কিশোরগঞ্জ জেলার দুইটি পৌরসভা কিশোরগঞ্জ সদর ও কুলিয়ারচর পৌরসভাকে নির্বাচন করা হয়েছে। নির্বাচন কমিশনের তথ্যানুযায়ী আগামী বছরের ১৬ জানুয়ারী এ দুটো পৌরসভাতে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচনের প্রস্তুতি সম্পন্নের জন্য চলতি বছরের ২০ ডিসেম্বর মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ সময়, ২২ ডিসেম্বর মনোনয়ন বাছাই ২৯ ডিসেম্বর প্রার্থীতা প্রত্যাহারের সময় বেঁধে দেয়া হয়েছে।

 

এদিকে পৌর মেয়র নির্বাচনকে সামনে রেখে ক্ষমতাশীন দলের প্রায় ডজনখানেক মেয়রপ্রার্থীর দৌড়ঝাঁপ, মিটিং, পথসভা, ভ্যান, মোটরসাইকেল মহড়া শুরু হয়ে গেছে। ক্ষমতাশীন দলের মধ্যে কে পাচ্ছেন দলের মনোনয়ন তা নিয়ে ইতোমধ্যে অফিস, চায়ের দোকান, পথে-হাটে শুরু হয়ে গেছে জল্পনা-কল্পনা। সামনের বছরের ১৬ জানুয়ারী কিশোরগঞ্জ পৌরসভার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। তারিখ ঘোষণা হবার পর থেকে প্রার্থীরা এখন আর ঘরে বসে নেই। যার যার স্থান থেকে তারা নির্বাচনের প্রচারণা করে যাচ্ছেন। প্রচারণায় চাঙ্গা হয়ে উঠছেন মাঠের কর্মীরাও।

 

কর্মীরা তাদের নিজস্ব পছন্দের প্রার্থীর পক্ষে অবস্থান নিয়েছেন। তারা প্রতিদিন তাদের পক্ষের প্রার্থীদের জন্য পৌর এলাকার বাসিন্দাদের কাছে ভোট চাইছেন। কিছু সুবিধাভোগীকর্মী একাধিক প্রার্থীর জন্যও ভোট চাইছেন। প্রতিদিন বিভিন্ন প্রার্থীর মোটরসাইকেল মহড়া, ভ্যান ও রিকশার মহড়া দিয়ে প্রচারণা চলছে। কয়েকজন প্রার্থী প্রার্থীতা জানান দেয়ার জন্য এবং ভোটারদের কাছে পরিচিত হবার জন্য গত এক বছর ধরে প্রচারণা চালিয়ে আসছেন শহরে।

 

জানা গেছে, এইসব প্রার্থীরা দলীয় মনোনয়ন পাওয়ার জন্য দলের শীর্ষ নেতাদের কাছে দৌড়ঝাঁপ শুরু করেছেন। প্রচারণার মাধ্যমে সকল প্রার্থী যার যার জনপ্রিয়তা দেখানোর চেষ্টা করছেন। এদের মধ্যে একাধিক প্রার্থী জানিয়েছেন, দলের মনোনয়ন নিয়েই তারা নির্বাচনে অংশ নেবেন।

এদিকে শহরে ব্যানার-ফেস্টুন না টানালেও সোস্যাল মিডিয়ার প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন বর্তমান পৌর মেয়র মাহমুদ পারভেজ। তার আমলে পৌরসভার উন্নয়নমূলক চিত্র তুলে ধরে ইতিমধ্যে ভিডিও বার্তা প্রকাশ করা হয়েছে। প্রচারণায় কমতি থাকলেও জেলা আওয়ামী লীগের গুরুত্বপূর্ণ নেতা হেলাল উদ্দিন মানিকের নাম নেতা-কর্মীদের মুখে ভালোভাবেই শোনা যাচ্ছে।

 

প্রচারণায় এগিয়ে রয়েছেন সাবেক ভিপি ও কিশোরগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মোহাম্মদ আব্দুল আজিজ। প্রতিদিন মিটিং, মিছিল ও সমাবেশ করছেন জেলা আওয়ামী লীগের আরেক সাংগঠনিক সম্পাদক আমিনুল ইসলাম বকুল, জেলা সেচ্ছাসেবক লীগ সভাপতি মো. শরীফুল ইসলাম, জেলা আওয়ামী লীগের বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক এনায়েত করীম অমি, সাবেক জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি শফিকুল গণি ঢালী লিমন, সাবেক প্যানেল মেয়র এ্যাড. নজরুল ইসলাম জুয়েল। তাদের মধ্যে আমিনুল ইসলাম বকুল ও তরুণ প্রার্থী শফিকুল গণি ঢালী লিমন ইতিমধ্যে কিশোরগঞ্জ পৌর শহরে হাজার হাজার মানুষ নিয়ে আলাদা আলাদা নির্বাচনী শোডাউন করেছেন। এছাড়াও কিশোরগঞ্জ জেলা দোকান মালিক সমিতির কোষাধ্যক্ষ মো: সোহেল হাসান ও কিশোরগঞ্জ জেলা যুবলীগের সাবেক জনশক্তি ও কর্মসংস্থান বিষয়ক সম্পাদক প্রদীপ কুমার বর্মণ মেয়র পদে দলীয় মনোনয়নের জন্য প্রচারণা চালাচ্ছেন।

 

অন্যদিকে কিশোরগঞ্জ পৌর নির্বাচনে বিএনপি নেতাদের অংশগ্রহণ থাকবে কিনা তা আগে থেকেই স্পষ্ট হয়েছে। কারণ ইতিমধ্যে একাধিক প্রার্থী নির্বাচনের জন্য প্রস্তুত রয়েছেন জানা গেছে। দলীয় শীর্ষ নেতাদের কাছ থেকে দলীয় মনোনয়ন পাবার জন্য তারা ইতিমধ্যে দৌঁড়ঝাপ শুরু করেছেন। জেলার কয়েকজন গুরুত্ব নেতা এরইমধ্যে নির্বাচনী প্রচারণায়ও অংশ নিয়েছেন। তাদের মধ্যে রয়েছেন সাবেক দুই বারের মেয়র আবু তাহের মিয়া, জেলা বিএনপি’র সাংগঠনকি সম্পাদক হাজী ইসরাইল মিয়া এবং কিশোরগঞ্জ বড় বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক ও জেলা বিএনপির অর্থনীতি বিষয়ক সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন দিলু। তাদের মধ্যে জেলা বিএনপি’র সাংগঠনকি সম্পাদক হাজী ইসরাইল মিয়া শক্ত অবস্থানে রয়েছেন বলে জানিয়েছে দলীয় নেতাকর্মীরা।

 

দু’দলের নেতাকর্মীরা ইতিমধ্যে বিপাকে পড়েছেন প্রার্থীদের পক্ষে সমর্থনের বিষয়টি নিয়ে। দলের পক্ষ থেকে প্রার্থীতা ঠিক না হওয়া পর্যন্ত এখনো গুরুত্বপূর্ণ নেতারা প্রার্থীদের পক্ষে প্রচারণায় অংশগ্রহণ করতে দেখা যায় নি। প্রধান দুই দলের বাইরে নির্বাচনের প্রচারণা চালাচ্ছেন ন্যাশনাল পিপলস পার্টি’র নেতা মো: স্বপন মিয়া।

 

তবে নির্বাচনের আগ থেকে প্রচুর অর্থ খরচ করে নির্বাচনের প্রচারণা দেয়া, পোষ্টার লাগিয়ে মানুষের বাসা-বাড়ির দেয়াল নষ্ট করা, শহরের সৌন্দর্য নষ্ট করার জন্য অনেক মানুষ বিরূপ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন। একাধিক ব্যক্তি জানিয়েছেন ভোটের মাধ্যমে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হলে আমরা অবশ্যই যোগ্য প্রার্থীকে ভোট দিব। তবে প্রচারণায় এতো অর্থ নষ্ট না করে মানুষের কাছে কাছে গিয়ে ভোট চাইলেই পারেন তারা।

 

এদিকে পৌরসভার ৯টি ওয়ার্ডে কাউন্সিলর ও সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর মিলিয়ে প্রায় শতাধিক প্রার্থী নির্বাচনী প্রচারণায় অংশ নিয়েছেন। পুরুষ কাউন্সিলর পদে প্রত্যেক ওয়ার্ডে তরুণ প্রার্থী চোখে পড়ার মতো। কাউন্সিলর প্রার্থীরা নিয়মিত প্রচারণায় অংশ নিয়ে ভোটারদের কাছে কাছে গিয়ে ভোট চাচ্ছেন।

ক্ষমতাশীল দলের শীর্ষ মহল থেকে জানা গেছে দলের জন্য ত্যাগী ও পরীক্ষিত নেতাদের মধ্য থেকেই দলীয় মনোনয়ন দেয়া হবে। প্রচার প্রচারণায় এগিয়ে থাকা বা ব্যানার ফেস্টুন করে গাছে ঝুলে থাকলেই মনোনয়ন পাওয়া সম্ভব না।

 

উল্লেখ্য যে, কিশোরগঞ্জ পৌর নির্বাচনে চূড়ান্তভাবে কারা প্রার্থী হবে তা জানার জন্য চলতি মাসের ২০ ডিসেম্বর পর্যন্ত এবং নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দিতা করার জন্য শেষ পর্যন্ত কারা ঠিকে থাকেন তা জানার জন্য ২৯ ডিসেম্বর পর্যন্ত অপেক্ষার প্রহর গুণতে হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

2 responses to “কিশোরগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে প্রচারণায় সরব ডজনখানেক প্রার্থী”

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2020 Onenews24bd.Com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com