বুধবার, ০৬ জুলাই ২০২২, ০৬:৪৭ অপরাহ্ন

কিশোরগঞ্জ শহরে বাজারের ভিন্ন রং

মো: আল-আমীন, কিশোরগঞ্জ
  • আপডেট সময় রবিবার, ১০ এপ্রিল, ২০২২
কিশোরগঞ্জ শহরে বাজারের ভিন্ন রং

খবরের শিরোনাম দেখে ভাববেন না রং নিয়ে আলোচনা হবে। সবজি বাজারে গিয়ে প্রতিনিয়ত কতজন কতভাবে যে প্রতারিত হয় তা যাচাই করবেন কিভাবে? আর যাঁচাই করলে নিশ্চয় আপনি অবাক না হয়ে পারবেন না।

সকালে বাজারে গেলে সবজির দাম কম মনে হলেও আপনাকে পরিমাণে কিনতে হবে বেশি। সন্ধ্যায় একই সবজির দাম থাকে আবার আকাশচুম্বী। রাত ১০টার পর যখন সবজির দাম কম মনে হবে তখন সবজি ততটা টাটকা থাকবে না। আবার আপনি যখন এক বাজার থেকে অন্য বাজারে যাবেন তখন দেখবেন দামের উল্টো চিত্র।

রোববার (১০ এপ্রিল) সকালে শহরের বড় বাজারে গিয়ে দেখা যায়, সবজির দাম ঢেড়সের কেজি ৪০ টাকা, করলা ৫০ টাকা, টমেটো ২০ টাকা, বেগুন ৭০ টাকা, শসা ২৫ টাকা, মিষ্টি কুমড়া ২০ টাকা, গাজর ৩০ টাকা, চিচিংগা ৫০ টাকা, কাচা মরিচ ৬০ টাকা, ধনিয়া পাতার কেজি ৮০ টাকা। আলু ৫ কেজি ৭৫ টাকা কিন্তু কেজি দরে ১৭-১৮ টাকা, রসুন বড় কেজি প্রতি ৫০ টাকা ছোট ২৫-৩০ টাকা। দেশী পিয়াজ ৫ কেজি ১২৫ টাকা, বিদেশী ১০০ টাকা। বড় লেবু কেজি ৭০ টাকা ছোট লেবু ৫০-৬০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। শুকনা মরিচের কেজি বালুজুড়ি ১৮০ টাকা ও উপদা ১৬০ টাকা।

সন্ধ্যার পর যখন আপনি শহরের পুরানথানা বাজারে যাবেন তখন প্রায় সবজি কিনতেই আপনাকে কেজি প্রতি ৫/১০ টাকা বেশি গুণতে হবে। অন্যদিকে কাচারী বাজারে দ্রব্যমূল্য সব সময় আকাশচুম্বী থাকে। আবার শহরের ভিন্ন ভিন্ন জায়গায় এখন ভ্যানগাড়িতে চড়া দামে সবজি বিক্রি করতে দেখা যায়। দামের এই যে ভিন্নতা তা ক্রেতা বুঝতে পারলেও করার কিছুই থাকে না।

সকাল ৮টায় রবিন মিয়া নামে পৌর শহরের এক ক্রেতা বাজারে সবজি কিনতে এসে জানায়, তিনি প্রতিদিন সকালে বাজার করে পরে অফিসে যান। সকালে সবজির মূল্য তুলনামূলকভাবে কমে পাওয়া যায় বলে তিনি জানান। কিন্তু সন্ধ্যা বা রাতে বাজারে আসলে তার উল্টো চিত্র দেখা যায়।

শনিবার রাতে কাচা মরিচ কিনেছিলেন হারুন সাহেব ৬০ টাকা কেজি। পরদিন সকালে বাজারে এসে দেখেন একই মরিচ বিক্রি হচ্ছে ৮০ টাকা কেজিতে। দামাদামির সুযোগ নেই। আমরা একরকম তাদের কাছে জিম্মি। তারা যত বলবে দাম ততই!

এবিষয়ে সবজি ব্যবসায়ীদের সাথে কথা হলে তারা জানান, সকালে বাজারে প্রচুর সবজি থাকে ও কেনা-বেচার একটা প্রতিযোগিতা থাকে তাই তুলনামূলকভাবে দামও কম মনে হয়। বিকেলে ও সন্ধ্যায় বাজারে ক্রেতা বেশি থাকার কারণে পণ্যের মূল্য সবার এখানে একরকম থাকে না। যে যেভাবে পারে বিক্রি করে।

কিশোরগঞ্জ শহরে বাজারের ভিন্ন রং

তারা আরও জানান, রাত ১০টার পর ব্যবসায়ীদের কাছে মালামাল থাকলে তা ওজন কমে যাওয়ার ভয়ে বা পরের দিন বাজার মূল্য কমে যাওয়ার ভয়ে একটু কম দামে বিক্রি করে দেয় অনেকে।

আজকে বাজারে মোটা চাল বিক্রি হচ্ছে ৩০-৩২ টাকা দরে এবং ঊনপঞ্চাশ চাল ৪৬-৪৮টাকা, আটাশ চাল ৫৪ থেকে ৬০ টাকা। খোলা প্যাকেটের পোলাও চাল বিভিন্ন জাতের ৭৫ টাকা থেকে ১০০ টাকা কেজি ও দেশী কাটারী ৬০ কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

চিনি ৭৭-৭৮ টাকা প্রতি কেজি, আটা ৩৪-৩৫ টাকা, মটর ৫০ টাকা, ছোলা ৬৫ টাকা, মুশুরী ডাল ৯৫ টাকা মাথা মুশুরী ১২০।

খোলা বাজারে সয়াবিন তেল কেজি ১৬৮ টাকা, লিটার ১৬০ টাকা। অথচ বোতলজাত সয়াবিন তেল’ই ১৬০ টাকাতে বিক্রি হচ্ছে। সয়াবিনের বিকল্প কোয়ালিটি তেল কেজি ১৬২ টাকা, লিটার ১৫৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

মুরগীর বাজারে গিয়ে দেখা যায় বয়লার মুরগী বিক্রি হচ্ছে ১৬০ টাকা ও সোনালী ২৭০ টাকা ও গরুর গোশত ৬৫০ টাকা কেজি। সংকট দেখা দিলে মুহুূর্তেই দাম বেড়ে যায়।

এ বিষয়ে ব্যবসায়ীরা জানান, রমজানের কারণে মানুষের মধ্যে বেশি কেনার প্রবণতার কারণে মুরগির দাম বেড়েছে। অতিরিক্ত দামে কিনতে হয় বলে বেশি দরে বিক্রি করতে হচ্ছে। কম দামে কিনতে পারলে কম দামে বিক্রিও করা যায়।

সাধারণ ক্রেতারা জানান, যখন বাজার মনিটরিং হয় এবং অভিযান হয় তখন বাজার দর নিয়ন্ত্রণে থাকে। তাঁরা চলে যাওয়ার পর আবার দাম বাড়িয়ে দেয়া হয়। একই শহরে বিভিন্ন বাজারে দামের এই ভিন্ন রং আমরা দেখতে চাই না। খুচরা বাজারে দ্রব্যমূল্যের চার্ট টানিয়ে রাখা বাধ্যতামূলক করা হোক। তাহলে আমাদের পণ্য ক্রয় করতে সুবিধা হবে।

কিশোরগঞ্জ ক্যাবের (CAB) সভাপতি আলম সারোয়ার টিটু এবিষয়ে বলেন, আমরা জেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন নিয়ে বাজারে গিয়ে ব্যবসায়ীদের অনুরোধ করে এসেছি দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে রাখার জন্য। এত বলার পরেও কিছু অসাধু আরতদার ও খুচরা ব্যবসায়ীরা তাদের নিজেদের মতো করে পণ্য বিক্রি করছে। তিনি আরও জানান, খোলা বাজারে সয়াবিনের দর ১৩৬ টাকা, পামওয়েল ১৩০ টাকা লিটার। তারা সরকারের কাছ থেকে কম দামে কিনে এনেও বাজারকে অস্থিতিশীল করে রাখছে যেটা খুবই দু:খজনক।

কিশোরগঞ্জ ভোক্তার অধিকারের সহকারি পরিচালক হৃদয় রঞ্জন বনিক জানান, সবজি বাজারে এমনটা কাম্য নয়। আমরা প্রতিদিন সবজি বাজার মনিটরিং করছি। আর যারা তেল বিক্রি করেন তাদের অবশ্যই ক্রয়মূল্যের বাউচার রাখতে হবে। বিক্রয়ের ক্ষেত্রে দাম বেশি রাখলে অবশ্যই জরিমানার আওতায় আনা হবে।

Tahmina Dental Care

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2022 Onenews24bd.Com
Site design by Le Joe
%d bloggers like this: