শুক্রবার, ০১ জুলাই ২০২২, ১০:০৭ অপরাহ্ন

কিশোরগঞ্জ-৫ (নিকলী-বাজিতপুর) আসনে ভোটারদের ভাবনা

ওয়ান নিউজ 24 বিডি ডেস্ক
  • আপডেট সময় বুধবার, ২৬ ডিসেম্বর, ২০১৮

দিলীপ কুমার সাহা,নিকলী
নিকলী উপজেলা সদরের প্রধান সড়কছোঁঁয়া চায়ের দোকানগুলোতে অনেক ভিড়। রাজনৈতিক মতামত ব্যক্ত করতেএসব দোকানে আড্ডারত লোকদের জুড়ি নেই। সিএনজিস্ট্যান্ডের এক চা দোকানে চলছিল তুমুল আলোচনা। আলোচনার বিষয়বস্তু একটাই। এবারের নির্বাচনে এলাকায় কার কী অবস্থা।
প্র্রায় সবারই মুখ থেকে যে কথাটি বের হয়ে এলো তা হলো এ আসনে বিএনপির অবস্থাটা শুরুর দিকে ভালোই ছিল। কিন্তু এখন আর সেই ভালো অবস্থাটা নেই । যে চমক দেখিয়েছিল বিএনপি, তা এখন বুমেরাং হয়েছে। মাঠ আর ধরে রাখতে পারেনি বিএনপি। মামলা আর গ্রেপ্তার আতঙ্কে দিনে দিনে ঘরছাড়া হচ্ছে নেতাকর্মীরা।
বিপরীত দিকে শুরুতে যে খারাপ অবস্থা ছিল তা কাটিয়ে উঠেছে আওয়ামী লীগ। বিশেষ করে দ্বিধাবিভক্ত আওয়ামী লীগ নিজেদের মানসম্মান আর অস্থিত্বের প্রশ্নে এক হয়ে গেছে। উপস্থিত ভোটারদের কাছ থেকেই জানা গেল যে অবস্থাই থাকুক না কেন এর পরেও এখানে লড়াইটা ভালোভাবেই জমবে। যেমন ভোট আছে আওয়ামী লীগের, তেমনি ভোট আছে বিএনপিরও। প্রার্থী হিসেবে বিএনপির প্রার্থীও বেশ শক্তিশালী। অপরদিকে আওয়ামী লীগের প্রার্থী দুই বারের এমপি আফজাল হোসেনের বড় শক্তি হলো দলের ভোট এবং হিন্দু অধ্যাষিত এলাকা হওয়ায়।
নিকলী-বাজিতপুর উপজেলা নিয়ে গঠিত কিশোরগঞ্জ-৫ আসন ১৮ টি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভা নিয়ে গঠিত। এ আসনে ভোটার সংখ্যা ২ লাখ ৭৮ হাজার ৬১৩ জন। এরমধ্যে পুরুষ ১ লাখ ৪১ হাজার ৪৭১ এবং নারী ১ লাখ ৩৭ হাজার ১৪২জন। আসনটিতে আওয়ামী লীগের প্রার্থী আফজাল হোসেন এমপি ও বিএনপি প্রার্থী শেখ মজিবুর রহমান ইকবাল ছাড়াও প্রতিদ্বন্ধিতা করছেন বাংলাদেশ কমিউনিষ্ট পার্টির মো. ফরিদ আহম্মদ, বাংলাদেশ বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির খন্দকার মোছলেহ উদ্দিন, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মো.ইব্রাহিম, জাতীয় সমাজতান্ত্রীক দলের জেএসডি) সেলিনা সুলতানা এবং ন্যাশনাল পিপলস পার্টির প্রার্থী শাহ আলম। এ আসনে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি উভয় দলই বিজয়ী হয়েছে। দুই দলেরই উল্লেখযোগ্য কর্মী-সমর্থক আছে।
ভোটারদের সঙ্গে আলাপ করে জানা যায়, বিএনপি প্রার্থী মো. শেখ মজিবুর রহমান ইকবাল দলের মনোনয়ন চূড়ান্ত পাওয়ার পরই মাঠে দলীয় কর্মী-সমর্থকরা তাঁকে নিয়ে বিজয়ের স্বপ্নও দেখা শুরু করেছিল। কিন্তু দেশের বিভিন্ন এলাকায় আওয়ামী লীগের সঙ্গে মারামারির ঘটনায় নিকলীতেও মামলার ভয়ে ধানের শীষ নির্বাচনের মাঠ থেকে অনেকটাই ছিটকে পড়ে। মামলায় ভয়ে বিএনপির উচ্ছাস প্রচারণা এখন খুবই কম। তবে সিংপুর এলাকার বসবাস করা এক ব্যবসায়ী বলেন, বিএনপির অবস্থান এখানে খারাপ না। জয়ের হিসাবে এ আসনটি এখনো বিবেচনায় রাখছে বিএনপি। অন্যদিকে আওয়ামী লীগের শুরুটা খুব ভালো ছিল না। দলের মাঝে বিভক্তি ছিল। শুরুতে বিএনপি প্রার্থীর সরব অবস্থানের কারণে আওয়ামী লীগ এখন এক হয়ে গেছে।
গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে সিংপুর এলাকার চা দোকানে গিয়ে দেখা যায় বেশ কয়েকজন ভোটার নির্বাচন নিয়ে আলাপে মগ্ন। তাদের একজন জানান, বর্তমান সরকারের উন্নয়নের দিক বিবেচনা করলে জনগণ নৌকায় ভোট দেবে। আব্দুর রহিম নামে এক বৃদ্ধ বলেন, এমন নির্বাচন কোনো দিন দেখিনি। চারদিকে শুধু নৌকার প্রার্থীরাই মিটিং-মিছিল করছে। ধানের শীষের লোকজন মাঠে উঠতে পারছে না। উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কারার সাইফুল ইসলাম বলেন, এবারে ভোটাররা স্বাধীনতার পক্ষের প্রতীক নৌকাকে বিজয়ী করবে। জেলা আওয়ামী লীগ যুগ্নসাধারণ সম্পাদক এ্যাডভোকেট আবু সাঈদ ইমাম বলেন, জাতীয় উন্নয়ন ও স্থানীয় উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে জনগণ নৌকায় ভোট দেবে।
এমপি আফজাল হোসেন বলেন , (নিকলী-বাজিপুরের) আওয়ামী লীগ ঐক্যবদ্ধ। বিজয় আমাদের সুনিশ্চিত।
বিএনপির প্রার্থী মজিবুর রহমান ইকবাল বলেন, ‘আগুনের ওপর দাঁড়িয়ে আমাদের নেতাকর্মীদের প্রচারকাজ চালাতে হচ্ছে। যত বাধাই আসুক ৩০ তারিখ ধানের শীষের পক্ষে নীরব বিপ্লব ঘটাবে নিকলী-বাজিতপুরের জনগণ।
এই আসনে আওয়ামী লীগের বড় শক্তি হলো নিকলী উপজেলার ভোট। এ উপজেলাটি আওয়ামী লীগের ঘাঁটি। আওয়ামী লীগ আশা করছে এ উপজেলার ৮০ শতাংশ ভোট তারা পাবে। এ উপজেলায় পা রাখলেই বোঝা যায় এখানে নৌকার শক্ত অবস্থানের বিষয়টি। পথে ঘাটে নৌকার পোস্টার। কিন্তু সেই তুলনায় ধানের শীষের তেমন পোস্টার নেই। নেই ব্যাণার-ফেস্টুনও।

Tahmina Dental Care

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2022 Onenews24bd.Com
Site design by Le Joe
%d bloggers like this: