মঙ্গলবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৫:৪৬ অপরাহ্ন

কুমিল্লা চৌদ্দগ্রামে অবৈধ গ্যাস লাইনের ছড়াছড়ি: রাজস্ব হারাচ্ছে সরকার

ওয়ান নিউজ 24 বিডি ডেস্ক
  • আপডেট সময় শুক্রবার, ২২ মার্চ, ২০১৯
  • ৬৪৮ বার পড়া হয়েছে

আব্দুল্লাহ আল মানছুর :
কুমিল্লা চৌদ্দগ্রাম উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন এলাকায় বাখরাবাদ গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লি: এর অবৈধ গ্যাস ব্যবহারের অভিযোগ পাওয়া গিয়েছে। কুমিল্লা চৌদ্দগ্রাম উপজেলার জগন্নাথদিঘী ইউনিয়নের বেতিয়ারা, সাতঘড়িয়া ও আলকরা ইউনিয়নের গোলাইকরা (পদুয়া) চৌদ্দগ্রাম উপজেলার অন্যান্য গ্রাম বিজিডিসিএল এর অবৈধ গ্যাস লাইন ব্যবহার করছে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, বাখরাবাদ গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লি: এর গ্যাসের মেইন লাইনটি ঢাকা টু চট্টগ্রাম মহাসড়কের দু’পাশ দিয়ে যাওয়ায়-গ্যাস লাইন হতে সহজে গ্যাস চোরাকারবারীরা অবৈধভাবে কুমিল্লা চৌদ্দগ্রাম উপজেলার জগন্নাথ দিঘী ইউনিয়নের বেতিয়ারা, সাতঘড়িয়া চৌমহুনী ও আলকরা ইউনিয়নের গোলাইকরা(পদুয়া) গ্রামের বিভিন্ন বাড়িতে প্রায় ৮০০ লাইনেরও বেশি অবৈধ গ্যাস লাইন নিয়ে আজও পর্যন্ত ব্যবহার করে আসছে।নামপ্রকাশে অনিচ্ছুক বেতিয়ারা, সাতঘড়িয়া ও গোলাইকরা (পদুয়া) গ্রামের সালাম, রফিক মিয়া ও মোখলেছুর রহমান (ছদ্মনাম) জানান-উপজেলার সাতঘড়িয়া গ্রামের মুজিবুর রহমান প্রায় দেড় বছর আগে উপরোক্ত গ্রামের প্রতিটি গ্যাস সংযোগ হতে একলক্ষ, সত্তর হাজার টাকার বিনিময়ে বিভিন্ন বাড়িঘড়ে অবৈধ গ্যাস লাইন দিয়েছে। তবে অবৈধ গ্যাস লাইন ব্যবহারকারীদের অবৈধ রাইজার থাকলেও কিছু কিছু গ্রাহক রাইজার ছাড়াই লাইন হতে সরাসরি বাড়ির চুলায় সংযোগ দিয়ে গ্যাস ব্যবহার করছে।

যে কোন সময় বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। অবৈধ গ্যাস লাইন সিন্ডিকেটের মূল হোতা চৌদ্দগ্রাম উপজেলার জগন্নাথ দিঘী ইউনিয়নের সাতঘড়িয়া গ্রামের মুজিবুর রহমানের সাথে অবৈধ গ্যাস লাইন ব্যবহারের বিষয়ে কথা বললে তিনি বলেন-আপনাদের কাছে কি প্রমাণ আছে যে লাইনটি বৈধ না অবৈধ। বাখরাবাদ গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লি: এর কর্তৃপক্ষকে জানিয়ে আমি এ ধরনের লাইন দিয়েছি। বিশেষ সূত্রে জানা যায় যে-বিগত দেড় বছর ধরে উপরোক্ত গ্রামের প্রায় ৮০০ অবৈধ গ্যাস ব্যবহারকারীরা কোন প্রকার বিল বই ছাড়াই লাইন ব্যবহার করে আসছে, আর এতে বাখরাবাদ গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লি: এর প্রতি মাসে ৩,২০,০০০/- (তিনলক্ষ বিশ হাজার টাকা) ও প্রতি বছরে ৩,৮,৪০,০০০(তিন কোটি আট লক্ষ চল্লিশ হাজার টাকা) রাজস্ব হারাচ্ছে। এতে বাখরাবাদ কর্তৃপক্ষের নেই কোন মাথা ব্যাথা। বিষয়টি নিয়ে ১৮ মার্চ বাখরাবাদ গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লি: এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক ইঞ্জিনিয়ার নিজাম শরিফুল ইসলামের সাথে কথা বললে তিনি বলেন-আগামী দু’এক দিনের মধ্যে অবৈধ গ্যাস সংযোগ প্রদানের মূল হোতার বিরুদ্ধে ব্যবস্থাসহ কুমিল্লা জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেটের মোবাইলকোর্ট আইনের মাধ্যমে শাস্তি দেওয়া হইবে।

এদিকে বিজিডিসিএল এর সেফটি সিকিউরিটি বিভাগের ডিজিএম হেলাল উদ্দিন অবৈধ গ্যাস সংযোগ উচ্ছেদের বিষয়ে বলেন- আমরা বিজিডিসিএল কর্তৃপক্ষ ব্যার্থ অবৈধ গ্যাস সংযোগ উচ্ছেদ করতে, বিষয়টি জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক জাহিদ হোসেন সিদ্দিক এর কাছে নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রট চাইলে তিনি সময় সাপেক্ষে নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট প্রদান করবেন বলে জানান। এবিষয়ে সংশ্লিষ্ট অভিযোগকারীরা বলেন- অবৈধ গ্যাস সংযোগ উচ্ছেদ করতে বাখরাবাদ কর্তৃপক্ষের নেই কোন মাথা ব্যাথা। তবে তৈল, গ্যাস ও খনিজ সম্পদ কর্পোরেশন (পেট্টোবাংলা ) অবৈধ গ্যাস সংযোগের কারনে প্রতি বছর কোটি টাকার চেয়েও বেশি রাজস্ব হারাচ্ছে। বিষয়টি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ তদন্ত সাপেক্ষে দ্রুত ব্যবস্থা নিয়ে অপরাধীদের আইনের আওতায় আনবেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2020 Onenews24bd.Com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com