শুক্রবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২২, ০৯:৩৯ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ খবর :

কুলিয়ারচরে ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধনে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ

আলী হায়দার, কুলিয়ারচর, কিশোরগঞ্জ
  • আপডেট সময় রবিবার, ২৩ অক্টোবর, ২০২২
কুলিয়ারচরে ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধনে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ

কিশোরগঞ্জ কুলিয়ারচর ১নং গোবরিয়া আব্দুল্লাহপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে জন্ম নিবন্ধন ও মৃত্যু নিবন্ধন নিয়ে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। এ বিষয়ে স্থানী ভুক্তভোগীদের দেওয়া পোস্ট সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও চলছে ব্যাপক সমালোচনা। অভিযোগ উঠেছে নির্ধারিত ফি’র চারগুণ বেশি অর্থ আদায় করছেন চেয়ারম্যান এনামুল হক। চেয়ারম্যানে এ বাণিজ্যে নিয়ে ইউপি সদস্য সহ স্থানীয়দের মাঝে চরম ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

জানা যায়, এক থেকে ৪৫ দিন পর্যন্ত সরকারি নিয়মানুয়ী জন্ম নিবন্ধন ফ্রি। তবে ৫ বছর শিশু পর্যন্ত ২৫ টাকা ও ৫ বছরের উপরে সব বয়সীদের ৫০ টাকা ফি নির্ধারণ করে দিয়েছে সরকার। সরকারের এই নিয়মকে বৃদ্ধাঙ্গুল দেখিয়ে ১নং গোবরিয়া আব্দুল্লাহপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান এনামুল হক সরকারি বেঁধে দেওয়া টাকার জায়গায় নিজেই নতুন নিয়ম করেছেন। সে নিয়মে প্রতি জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধনে সর্বনিম্ন ২০০ থেকে ৩০০ টাকা ফি নির্ধারণ করে, আদায়ের অভিযোগ স্থানীয় ভুক্তভোগীদের।

জন্ম-নিবন্ধন নিতে আসা অসংখ্য ভুক্তভোগী বলেন, জন্ম নিবন্ধন নিতে পরিষদে গেলেই পরিষদের তথ্য সেবা কর্মী নাহিদা আক্তার ২০০ টাকার দাবি করেন। কেন দুই টাকা জানতে চাইলে নাহিদা আক্তারের সবসময় স্পষ্ট জবাব প্রতি নিবন্ধন ফিস ২০০ টাকা করেই দিতে হবে।

জন্ম নিবন্ধনের বাড়তি অর্থ আদায়ের নিয়মের বিরুদ্ধে প্রকাশে ফেসবুকে পোস্ট করতেও দেখা গেছে অসংখ্য ভুক্তভোগীদের। তেমনই এক ভুক্তভোগী মো. লোকমান হোসাইন তার ব্যবহৃত ফেসবুক আইডি থেকে লেখেন, আমি পরিবারের ৪টি নিবন্ধন করতে ইউনিয়ন পরিষদে যাই। যাওয়ার পর তথ্য সেবা কেন্দ্রের দ্বায়িত্বে থাকা নাহিদা আক্তার নামে এক নারী ৪টি নিবন্ধনের জন্য তার নিকট ৮০০ টাকা দাবী করেন। প্রতি নিবন্ধন ফিস ৫০ টাকার জায়গায় ২০০ টাকা করে কেন জিজ্ঞেস করা হলে তথ্য সেবা কর্মী নাহিদা আক্তার বলেন ৪টি নিবন্ধন করতে হলে ৮০০ টাকাই দিতে হবে তাকে। তা না হলে নিবন্ধন করতে পারবেনা। পরে নাহিদা আক্তারের কথা মতো ৪টি নিবন্ধনের জন্য তার হাতে ৮০০ টাকা তুলে দিয়ে এসেছি।

সেই পোস্টে অসংখ্য ভুক্তভোগী একই ভাবে বাড়তি টাকা দিতে হয়েছে বলে মন্তব্য করেন। তাছাড়া আরও অসংখ্য ভুক্তভোগীকে দেখা গেছে একই ভাবে বাড়তি অর্থ আদায়ের বিরুদ্ধে ফেসবুকে পোস্ট করে প্রতিবাদ করতে।

এব্যাপারে তথ্য সেবা কর্মী নাহিদা আক্তার অভিযোগ অস্বীকার করেননি। নাহিদা আক্তার বলেন, চেয়ারম্যানই বলেছে প্রতি নিবন্ধনে ২০০ টাকা নেওয়া জন্য। নাহিদা আক্তার বলেন, ৫০ টাকা সরকারি ফি, ৫০ টাকা তাদের খরচ। বাকী ১০০ টাকা পরিষদে থাকা নজরুলের কাছে জমা দিতে হয়।

এ বিষয়ে একাধিক ইউপি সদস্য বলেন, চেয়ারম্যান মোহাম্মদ এনামুল হক নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে এপর্যন্ত জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন থেকে প্রায় ২০ লক্ষ টাকা অতিরিক্ত নিয়েছেন। অতিরিক্ত টাকা থেকে পরিষদের কোন প্রকার উন্নয়ন কাজ করেননি। এমনকি তাদেরকেও কোন ভাগ দেয়নি। সকল টাকা চেয়ারম্যানের হেফাজতেই রয়েছে।

এ ব্যাপারে অবশ্যই ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ এনামুল হক কথা বলতে নারাজ। সাংবাদিকদের ফোন পেলে তিনি ফোনই রিসিভ করেন না।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) সাদিয়া ইসলাম লুনা’র সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলে, এব্যাপারে লিখিত অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

এব্যাপারে কুলিয়ারচর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব ইয়াছির মিয়ার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, আইনের উর্ধ্বে কেউ নন। সরকার নির্ধারিত ফি থেকে কেউ যদি অতিরিক্ত ফি নিয়ে জনগণকে হয়রানী করে থাকে তাহলে এটা অন্যায় এবং সরকারি আইন বহির্ভূত। সে যেই হোক তার বিচার হওয়া প্রয়োজন। যদি এঘটনা সঠিক হয়ে থাকে তাহলে বিষয়টি তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

Tahmina Dental Care

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2022 Onenews24bd.Com
Site design by Le Joe
%d bloggers like this: