শুক্রবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৯, ০১:০১ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
হোসেনপুরে হতদরিদ্র ৯০ বছরের সেই বৃদ্ধার খোঁজে জেলা পরিষদের সদস্য মাসুদ আলম জাককানইবিতে চলছে তিনদিনব্যাপী লালন স্মরণোৎসব ২০১৯ ফিলিপাইনে ভূমিকম্পে ৪ জনের প্রাণহানি বাংলাদেশেল মাটিতে প্যারাগুয়ে ম্যাচ দিয়ে আন্তর্জাতিক ম্যাচে ফিরছেন মেসি বাংলাদেশ এখন বিশ্ব ফুটবলের রাজধানী, বললেন ফিফা সভাপতি যুবলীগের দুর্নীতিবাজ কেউ যেন গণভবনে না আসে- প্রধানমন্ত্রী সৌদিতে সড়ক দুর্ঘটনায় ৩৫ উমরাহ যাত্রীর মৃত্যু রিভার বাংলা নদী সভা’র কিশোরগঞ্জ জেলা কমিটি গঠিত নিকলীতে পুলিশের পৃথক অভিযানে যাবৎ জীবন সাজাপাপ্ত আসামি ও ইয়াবা ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার ২০২১ অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ আয়োজনের দায়িত্ব পেল বাংলাদেশ

গোলাপি রং পেন্সিল

ফারহানা মোবিন
  • আপডেট সময় সোমবার, ৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৯
  • ৩৭ বার পড়া হয়েছে

ফারহানা মোবিন :
ঢং ঢং ঢং। ঘন্টা পড়ে গেল আনন্দ বিদ্যালয়ের। সবাই দৌড়ে বেরিয়ে গেল শ্রেণীকক্ষ থেকে। শুধু মাত্র শিশির ছিল চেয়ারে বসে। তার দৃষ্টি আটকে গিয়েছিল মেঝেতে পড়ে থাকা গোলাপি রং পেন্সিলটির দিকে। শিশির ভালোভাবেই জানত যে, পেন্সিলটি বাদলের। কিন্তু শিশির কাউকে কিছু না বলে চুপ করে মেঝেতে পড়ে থাকা রং পেন্সিলটি নিয়ে নিল। কেউ দেখতে পেলো না।
গ্রামের মেঠো পথ দিয়ে সবাই চলে গেল বাড়ি। এই গোলাপি রং পেন্সিলটা দীর্ঘদিন থেকে শিশিরের খুব পছন্দ হয়েছিল। শিশিরের বাসার জানালা দিয়ে দেখা যাচ্ছিল কাঠঠোকরা পাখি। শিশির খুব সুন্দর করে এঁকে ফেলল সেই পাখির ছবি। বাবা পাখির ছবিটা দেখে মুগ্ধ হয়ে গেল। রং পেন্সিল দেখে বাবা বলল, তুমি এতো সুন্দর পেন্সিল কোথায় পেয়েছো? শিশির সব ঘটনা খুলে বলল।
বাবা বললো, শিশির এভাবে আর কোন জিনিস কাউকে না বলে নিবে না। এটা উচিৎ না। তুমি ভালো করেই জানো যে, এই রং পেন্সিলটা বাদলের। হয়তো কোন কারণে তার কাছে থেকে মেঝেতে পড়ে গেছে, রং পেন্সিলটা নষ্ট হলে বুঝতাম যে, ওটা নষ্ট, তাই বাদল ফেলে দিয়েছে। কিন্তু রং পেন্সিলটা ভালো, তোমার উচিৎ ছিল বাদলের পেন্সিলটা তাকে দিয়ে দেয়া। অথচ তুমি তাকে না জানিয়ে এটা নিয়েছো। এভাবে নেয়াটা অপরাধ।

বাবার কথাটাই ঠিক। শিশির তার ভুল বুঝতে পারলো। পরের দিন বাদলকে তার রং পেন্সিলটা ফিরিয়ে দিল। রং পেন্সিল ফিরে পেয়ে বাদল খুবই খুশি হলো। শিশিরকে বাদল একটি চকলেট উপহার দিল। কিন্তু রং পেন্সিলের জন্য শিশিরের মনটা খারাপ হয়ে গেল।

স্কুল ছুটি হয়ে গেল। সবুজ ঘাসের উপর দিয়ে বাড়ি চলে গেল শিশির। বাবা তার হাতে উপহার দিলেন পুরো এক বাক্স রং পেন্সিল। শিশির খুব খুশি হলো। এবার সে এঁকে ফেলল বাংলাদেশের লাল সবুজ পতাকা।

আর সে পতাকার নিচে আনন্দ বিদ্যালয়। ছবিটি দেখে বাবা মুগ্ধ হয়ে গেল। শিশিরকে জড়িয়ে ধরলেন বুকের সাথে শিশির বলল, বাবা আমি আর কোনদিন কাউকে না বলে লুকিয়ে কিছু নিবো না। অনেক সুন্দর সুন্দর ছবি আঁকবো।
বাবা বলল, একদিন তুমি অনেক বড় চিত্রশিল্পী হবে। কথাটা শুনে আনন্দে ভরে উঠল শিশিরের মন।

 

( শিশু উন্নয়ন মূলক লেখা)
লিখেছেন : ফারহানা মোবিন, চিকিৎসক ও লেখক।

নিউজটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2019 Onenews24bd.Com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com