বৃহস্পতিবার, ২২ অক্টোবর ২০২০, ০৮:১৬ অপরাহ্ন

চুরির অভিযোগ করায় সংখ্যালঘু মণিপুরী বৃদ্ধাকে মারপিটের অভিযোগ

সালাহউদ্দিন শুভ
  • আপডেট সময় সোমবার, ২১ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ৬৭ বার পড়া হয়েছে

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জের আদমপুর ইউনিয়নের কাটাবিল গ্রামে সংখ্যালঘু মণিপুরী বৃদ্ধা চাউবিহান দেবী (৬০)-কে ঘর থেকে ৬ বস্তা ধান চুরি হয়েছিল গত আগস্ট মাসে। এ নিয়ে তিনি থানায় অভিযোগ করেন। অভিযোগ করার পর পুলিশ ৩জনকে আটক করে পুলিশ। আটকের পর জিজ্ঞাসাবাদকালে চুরির কথা স্বীকারের পর ৬মন ধান উদ্ধার করেছিল পুলিশ।

 

এ ঘটনার জের ধরে শনিবার (১৯ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে মণিপুরী বৃদ্ধা চাউবিহান দেবীকে সবজি চুরির অপবাদে আটকিয়ে মারপিট করে রক্তাক্ত জখম করেন একই গ্রামের উমেদ মিয়া (৫০) বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় রোববার কমলগঞ্জ থানায় আহত বৃদ্ধার পক্ষে কমলগঞ্জ থানায় আরও একটি সাধারণ ডায়েরী করা হয়। আহত মণিপুরী বৃদ্ধা কমলগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে বর্তমানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রয়েছেন।কমলগঞ্জ থানায় করা সাধারণ ডায়েরী ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, গত ২৩ আগস্ট দিবাগত রাতে কাটাবিল গ্রামের মণিপুরী বৃদ্ধা চাউবিহান দেবীর বাড়ি থেকে ৬ বস্থা ধান চুরি হয়েছিল।

 

এ ঘটনায় স্থানীয় ইউপি সদস্যকে অবহিত করে কমলগঞ্জ থানায় একটি অভিযোগ করেছিলেন বৃদ্ধা চাউবিহান দেবী। পুলিশ সন্দেহজনক নিয়ামত আহমেদ (২৮), শাকিল মিয়া (২৬) ও শামীম মিয়া (২৫)কে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদকালে তারা তিনজন ধান চুরির কথা স্বীকার করলে পুলিশ ৬ বস্তা ধানও উদ্ধার করে। পুলিশ আটক তিনজনকে গ্রেফতার দেখিয়ে মৌলভীবাজার আদালতের মাধ্যমে কারাগারে প্রেরণ করলে নিয়ামত আহমেদ ও শামীম মিয়া জামিনেমুক্ত হলেও শাকিল মিয়ার জামিন হয়নি। কারাগারে থাকা শাকিল মিয়া কাটাবিল গ্রামের উমেদ মিয়ার ভাতিজা বলে এ ঘটনার জের ধরে উমেদ মিয়া শনিবার সন্ধ্যায় মণিপুরী বৃদ্ধা চাউবিহান দেবীকে ডেকে নিয়ে তাকে খেতের কাকরোল চুরির অপবাদ দিয়ে আটকিয়ে স্ত্রীসহ তিনি (উমেদ মিয়া)মারপিট করেন। এলাকাবাসী চাউবিহান দেবীকে রক্তাক্ত জখম অবস্থায় উদ্ধার করে কমলগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন।

 

সোমবার সকালে কমলগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন বৃদ্ধা চাউবিহান দেবী বলেন, মূলত আগষ্ট মাসে তার ঘরের ধান চুরির ঘটনাকে কেন্দ্র করে গত শনিবার তাকে কাকরোল চোর অপবাদ দিয়ে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে উমেদ মিয়া ও তার স্ত্রী মিলে মারপিট করেন।আদমপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবদাল হোসেন ও ওয়ার্ড ইউপি সদস্য জুমের আলী শনিবার সন্ধ্যায় কাটাবিল গ্রামে সবজি চুরির অভিযোগে মৃণিপুরী বৃদ্ধা চাউবিহান দেবী মারপিটের শিকার হয়ে চিকিৎসাধীন থাকার সত্যতা নিশ্চিত করেন। ইউপি চেয়ারম্যান আবদাল হোসেন আরও বলেন, বিষয়টি সামাজিকভাবে বসে সমাধানের চেষ্টা করা হচ্ছে। তবে অভিযুক্ত কাটাবিল গ্রামের উমেদ মিয়া বলেন, ধান চুরির অভিযোগে আটক থাকা শাকিল মিয়া তার ভাতিজা হলেও তাদের সাথে কোন যোগাযোগ নেই। তাছাড়া ধান চুরির ঘটনার সাথে শনিবারের ঘটনার কোন সম্পর্ক নেই। শনিবার চাউবিহান দেবী তার খেতের কাকরোল চুরি করে নেওয়া তাকে ডেকে এনে শাসিয়েছিলেন।

 

এসময় তার স্ত্রীকে গালাগালি দিয়ে চাউবিহান দেবী কুস্তিতে জড়িয়ে পড়েন। এসময় তার স্ত্রীও আহত হয়েছেন। তিনি চাউবিহান দেবীকে মারপিট করেননি। তবে দুই মহিলার কুস্তি ভাঙ্গাতে গিয়ে চাউবিহান দেবী আহত হতে পারেন। তিনি আরও বলেন, চাউবিহান দেবীর যন্ত্রনায় তিনি খেতে কোন সবজি চাষ করতে পারেন না। কমলগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. এম মাহবুবুল আলম ভূঁইয়া বলেন, বৃদ্ধা চাউবিহান দেবী বেশ জখম নিয়ে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হয়েছেন।

 

তিনি এখন চিকিৎসাধীন আছেন। কমলগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্য আরিফুর রহমান মারপিটের সত্যতা নিশ্চত করে বলেন,এই বিষয়ে আমি একটা লিখিত অভিযোগ পেয়েছি, এখন তদন্ত শেষে আইনআনুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2020 Onenews24bd.Com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com