শুক্রবার, ১২ অগাস্ট ২০২২, ০৯:৪৫ পূর্বাহ্ন

চোখের আলোয় না দেখলেও ভালোবাসার আলোয় পথ চলে তারা

ওয়ান নিউজ 24 বিডি ডেস্ক
  • আপডেট সময় বুধবার, ১৩ ফেব্রুয়ারী, ২০১৯

দিলীপ কুমার সাহা :
রাত পোহালেই ১৪ ফেব্রুয়ারি বিশ্ব ভালোবাসা দিবস । শুধু মন দেওয়া নেওয়া নয় , একে অন্যের আদান-প্রদানে গড়ে উঠা ভালোবাসায় ভর করে আজ জীবনকে নতুন করে গড়ে তুলেছেন কিশোরগঞ্জের নিকলী উপজেলার সদর ইউনিয়নের মহরকোনা গ্রামের দুই দৃষ্টি প্রতিবন্ধী মো: মহরম আলী (৫৯) ও রত্না বেগম (৩৯)। ১৮ বছরের দাম্পত্য জীবনে তাদের সংসারে রয়েছে দুইটি ফুটফুটে ছেলে সন্তান। মুখে আছে হাসি ও সংসারে আছে সুখ। সারা দিন ভিক্ষে করে বাড়িতে গিয়ে ছেলে দুইটির মাথায় হাত বুলিয়ে দিলেই তাদের মনে সুখ আর শান্তির অভাব হয় না। ভালোবাসার জোর দুঃখকে তাদের কাছে ভিড়তে দেয় না।
প্রায় বাইশ বছর ধরে মহরম আলী ও রত্না বেগম ভিক্ষা করছে। কাছাকাছি গ্রামে তাদের বাড়ি হওয়ায় ষোল বছর আগে একদিন ভিক্ষা করতে আসা মহরম আলীকে বাম চোখের দৃষ্টি প্রতিবন্ধী রত্না বেগম হাত ধরে ভিক্ষা করতে সাহায্য করে এবং দুই জনে মিলে ভিক্ষা করতে শুরু করেন। কিন্ত যেদিন থেকে দু’জন দু’জনের জন্য বাড়িয়ে দিয়েছেন সহযোগিতার হাত, বিনিময় করেছেন মন , সেদিন থেকে যেন তাদের মধ্যে জেগে উঠেছে এক আশ্চর্য শক্তি। এখন সারা দিন ভিক্ষা করে যা পায় তা দিয়ে ভালোই চলে তাদের দিন।সংসারে কোনো ঝগড়া না হওয়ায় তাদের দু’জনের ভালোবাসার বাঁধনও যেন আরও মধুর ও সুখের হয়েছে।
দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী মহরম আলী (৫৯) কিশোরগঞ্জে নিকলী উপজেলার মহরকোনা গ্রামের আ: রহিমের ছেলে। তিন ভাইয়ে মধ্যে সে সবার বড়। আর রত্না বেগম (৩৯) একই ইউনিয়নের টিক্কল হাটি গ্রামের আমির উদ্দিনের মেয়ে। তিন বোন ও এক ভাইয়ের মধ্যে রত্না বেগম দ্বিতীয়।
মহরম আলী জানান , ‘সাত বছর বয়সের সময় হঠাৎ আমার বসন্ত হয়। এই বসন্তের পর থেকে আমি সারা জীবনের জন্য দুই চোখের দৃষ্টি হারিয়ে অন্ধ যাই। অন্ধ হওয়ায় ছোট বেলা থেকেই বাবার অভাবের সংসারের বোঝা হয়ে পড়ি। বাবা মারা যাওয়ার পর ছোট ভাইয়েরা ঠিকমতো খাওন দেয় না এবং আমাকে আলাদা করে দেয়।’ পরে এই দিন থেকেই প্রথমে বাজারে ভিক্ষাবৃত্তি শুরু করেন তিনি। এই যে বাইশ বছর আগে থেকে ভিক্ষাবৃত্তি শুরু আজও চলছে। মহরম আলী বাবার রেখে যাওয়া আধা শতাংশ বাড়িতে মাটি ভরাট করে দু-চালা একটি টিনের ঘর করেছেন।
অন্য দিকে দশ বছর বয়সে রত্না বেগমের জল বসন্তের কারণে ডান চোখের দৃষ্টি শক্তি পুরোপুরি নষ্ট হয়ে যায়। বাম চোখেও একটু কম দেখে। তিনি জানান, আমি ছোট সময় নিকলী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দ্বিতীয় শ্রেণি পযর্ন্ত পড়েছি। চোখ নষ্ট হওয়ার পর শিক্ষকেরা আমাকে ইস্কুলে যাইতে মানা করছে। এরপর থেকে আর কোনো দিন ইস্কুলে গিছি না। বাবার অভাবের সংসার তাই বাবার বোঝা না হয়ে রত্না বেগম ভিক্ষা করতে শুরু করেন।
এই দম্পতি জানান , প্রায় আঠার বছর আগে নিকলী সদর বাজারে ভিক্ষা করার সময় হঠাৎ মহরম আলী পায়ে হোচট খেয়ে মাটিতে পড়ে যায়। এ সময় রত্না বেগম ও ভিক্ষা করছিল মহরম আলী হাত ধরে মাটি থেকে তোলেন রত্না বেগম। এরপর তাদের মধ্যে পরিচয় হয় জানতে পারে মহরম আলীর বাড়ি তার পাশের গ্রাম মহরকোনা। সে দিন রত্না বেগম দৃষ্টিহীন মহরম আলীকে হাত ধরে পথ দেখায় এবং দুই জনে মিলে এক সাথে ভিক্ষা করতে শুরু করে। প্রথম দিন ভিক্ষা করে দুই জনে পেয়ে ছিল পেয়ে ছিল ২৬০ টাকা। দুই জনে ১৩০ টাকা করে ভাগ করে নিল। এভাবেই একসময় দু’জন দু,জনের সহযোগিতায় এগিয়ে আসেন। দুই চোখের দৃষ্টিহীন মহরম আলীকে পথ দেখান এক চোখের দৃষ্টিহীন রত্না বেগম। প্রতিদিন ভিক্ষা করার পর রত্না বেগম মহরম আলীকে তার বাড়িতে দিয়ে আসতেন। বাড়িতে রত্না বেগম মহরম আলীকে গোসল করান, রান্না করে ভাত খাওয়ানো থেকে শুরু করে মহরম আলীর সব কাজ করে দিত। আর এ সহযোগিতায়ই একসময় তাদের মধ্যে ভালোবাসার জন্ম দেয়। এক বছর এভাবে মন দেওয়া-নেওয়ার পর তারা সিদ্ধান্ত নিলেন বিয়ে করার। সিদ্ধান্ত নেওয়ার কয়েক দিন পর এখন থেকে পনের বছর আগে ফাল্গুণের ২ তারিখ মহরম আলী ও রত্না বেগম বিয়ে করেন।ওই দম্পতির ঘরে বর্তমানে আসে দুইটি ছেলে সন্তান। একটির নাম মোঃ আতিকুল (১২) ও মোঃ শাহীন মিয় (১০)। আতিকুল ও শাহীন মাদ্রাসায় পড়েন। মহরম আলী ও রত্না বেগম জানান , এখন তারা মহরকোনা গ্রামে বাপের ভিটায় বাস করছেন। প্রতিদিন ভিক্ষা করে দুইজনে তিন থেকে চার কেজি চাল ও নগদ শতাধিক টাকা পান। এর থেকেই খেয়ে কিছু টাকা আয় হয়। তা ছাড়া মহরমকে আলী প্রতি মাসে সরকার থেকে ৬০০ টাকা প্রতিবন্ধী ভাতা দেওয়া হয়। এ ভাতার টাকা জমা করে একটি ছোট গরু কিনেছেন। তারা জানান , এভাবে তো আর সারা জীবন ভিক্ষা করে চলা সম্ভব না। আমরা লেখাপড়া না করলেও ছেলে দুইটারে মাদ্রাসায় পড়াইয়ে মৌলভী বানানোর চেষ্টা করছি আল্লা যদি আমাদের সে ইচ্ছা পূরণ করে।
এ দম্পতি বলেন ,চোখের দৃষ্টি না থাকলেও আমারা অনেক সুস্থ-স্বাভাবিক মানুষের চেয়েও জীবনে অনেক সুখী । পনের বছরের দাম্পত্য জীবনে একদিনও তাদের ঝগড়া বিবাদ হয়নি। কিন্ত কষ্ট লাগে ভিক্ষা করার সময় যখন মানুষে বলে কানা দুইডা যাইতেছে।আল্লা যখন চোখের দৃষ্টি নিয়ে গেছে এখন মানুষেতো কইলে কী হইবো। নামাজ পড়ার সময় আমারা দুইজনই আল্লার দরবারে দুই হাত তোলে দোয়া করি আমাদের মতো কেউ যেন দৃষ্টি প্রতিবন্ধী না হয়। তারা জানান , ভালোবাসাই সব শক্তির উৎস। তাই সবার কাছ থেকে বিশ্ব ভালোবাসা দিবসে ভালোবাসাই চাই।

Tahmina Dental Care

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2022 Onenews24bd.Com
Site design by Le Joe
%d bloggers like this: