বৃহস্পতিবার, ৩০ জানুয়ারী ২০২০, ০২:২১ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
ঐতিহাসিক শোলাকিয়া ঈদগাহে হবে আল্লামা আযহার আলী আনোয়ার শাহ হুজুরের জানাযা জেলা পর্যায়ে বিজ্ঞান বিষয়ক সেমিনার ও কুইজ প্রতিযোগিতায় কিশোরগঞ্জ টেক্সটাইল মিলস্ আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় চ্যাম্পিয়ন দুই কোটি টাকা অর্থ আত্মসাৎ মামলায় কমলগঞ্জের দলই চা বাগানে প্রাক্তন ব্যবস্থাপকসহ ৩ জন জেলহাজতে সাকিবের শাস্তি কমাতে সংসদে প্রস্তাব, যা বললেন সাংসদ ক্রিকেটে বাজি ধরতে ব্যাংকের ৩ কোটি টাকা হাতিয়েছেন ইনচার্জ শামসুল! ৪ বলে ২ রান করতে পারলো না নিউজিল্যান্ড দুই দিনে হাসপাতাল বানিয়ে ফেললো চীন ! চলে গেলেন আল্লামা আযহার আলী আনোয়ার শাহ আজহারী জামায়াতের প্রোডাক্ট: ধর্ম প্রতিমন্ত্রী মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে ঘোড়দৌড় প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত

জনপ্রিয় ব্যান্ডদল মাইলসের ৪০ বছর পূর্তি উদযাপন, আপ্লুত দর্শক

আবদুল্লাহ আল মামুন পলাশ
  • আপডেট সময় বুধবার, ২৫ ডিসেম্বর, ২০১৯
  • ২৭৩ বার পড়া হয়েছে
ছবি : প্লাবন রায়

তারুণ্যের উন্মাদনায় জনপ্রিয় ব্যান্ডদল মাইলসের ৪ দশক পূর্তি উদযাপন হলো। বসুন্ধরা আন্তর্জাতিক কনভেনশনের রাজদর্শন হলে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ৪০ বছরের মাইলসকে নতুনভাবে চিনলো ভক্তরা। ওয়ার্ল্ড ট্যুর শেষে জমকালো এ কনসার্টের মাধ্যমেই চল্লিশ বছর পথচলা উদযাপনের ইতি টানল দেশের শীর্ষ ব্যান্ডদলটি।

কানায় কানায় দর্শক ভরপুর রাজদর্শন হলে প্রথমেই গান শুরু করে ব্যান্ডদল ভাইকিংস। তারা মাইলসকে ট্রিবিউট করে গেয়ে শোনান মাইলসের ‘শান্তি চাই’ গানটি। প্রথম গানেই উপস্থিত দর্শকদের কড়তালিতে মুখর পুরো হল। উল্লাসে তারা আরো গান শোনার অনুরোধ করেন।

এর ফাঁকে মাইলসের জনপ্রিয় গানের গীতিকারেরা শোনান মাইলসের গান লেখা ও তৈরির পেছনের কথা। কীভাবে গানগুলো তারা তৈরি করেছিলেন। ফাঁকে ভক্তরাও মাইলসের গানের সঙ্গে তাদের জীবনের সম্পৃক্ততা নিয়ে কথা বলে উঠেন কেউ কেউ। ভাইকিংসের পরই অনুষ্ঠানের উপস্থাপক আজরা মাহমুদ মঞ্চে ডেকে নেন প্রখ্যাত গীতিকার লতিফুল ইসলাম শিবলীকে।

মঞ্চে এসে তিনি মাইলসকে শুভ কামনা জানিয়ে বলেন, আমি নিজেও মাইলসের ভক্ত। একটা ব্যান্ডের চল্লিশ বছর পার করা সোজা কথা নয়। মাইলস সেটা পেরেছে। অতীতের মতো আগামীতেও মাইলস বাংলা ব্যান্ড সঙ্গীতকে বিশ্বে ছড়িয়ে দেবে।’ তার পরই মঞ্চে হাজির হন ওয়ারফেজ।

মাইলসকে ট্রিবিউট করে তারা গেয়ে শোনান মাইলসের ‘শেষ ঠিকানা’ গানটি। এরপর মঞ্চে আসেন ব্যান্ড সোলস। মাইলসের ‘গুঞ্জন শুনি’ গেয়ে শোনান সোলসের নাসিম আলী। সোলসের গলায় মাইলসের গুঞ্জন শুনিতে মুগ্ধ হয়ে যায় দর্শক। কড়তালিতে মুখর তখন বসুন্ধরার রাজদর্শন হল। এর পর দলছুটের বাপ্পা মজুমদার মঞ্চে এসে কণ্ঠে তুলেন মাইলসের ‘জাদু’ গানটি। পরে ফিডব্যাক মঞ্চে উঠে গেয়ে শোনান মাইলসের ‘ভালাবাসো যারে’ গানটি। এরপরই আসে প্রতিক্ষার সেই প্রহর। মঞ্চে আসেন মাইলস।

চিরচেনা ভঙ্গিতে দলপ্রধান হামিন আহমেদ বলে উঠেন ‘ইটস মাইলস টাইম’। এরপরই শাফিন আহমেদ গেয়ে উঠেন ‘পাহাড়ি মেয়ে’। এরপর হামিন আহমেদ কণ্ঠে তোলেন ‘সুপ্ত বাসনা’। এর পর শুরু টানা মাইলস টাইম। একে একে প্রিয়তমা, কী জাদু, চাদতারা, গানগুলো পরিবেশন করেন তারা। এরপর মঞ্চে উঠেন তিনজন মাইলসভক্ত। যারা মাইলসের ‘নীলা’ গানের কন্টেস্টে সেরা বিজয়ী হয়েছেন। মাইলসের সাথে মঞ্চে নীলা গানটি গেয়ে শোনান তারা। দর্শক অনুরোধের পর এই গানটি আবার গেয়ে শোনান হামিন। এরপর একাধিক গানের কোলাজ গেয়ে শোনান। চাঁদ তারা, পিয়াসি মনসহ আরো সব জনপ্রিয় গান।

মাইলসের চার দশকের এই উদযাপন শুরু হয় গত ২১ জুন। সেদিন যুক্তরাষ্ট্রের পথে রওনা করে গানের দল মাইলস। উদ্দেশ্য—দলটির ৪০ বছর উদ্‌যাপনের কনসার্টে অংশ নেওয়া। একে একে যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা ও অস্ট্রেলিয়ায় ২৭টি কনসার্ট করে তারা। প্রতিটি কনসার্টে মাইলসের সঙ্গে গলা ছেড়ে গান করেন প্রবাসী বাঙালি শ্রোতারা। ঝুলিভরা নতুন অভিজ্ঞতা ও শ্রোতাদের ভালোবাসা নিয়ে দলটি দেশে ফেরে ৬ নভেম্বর। ফিরেই ঘোষণা দেয় দলটি—৪০ বছর বয়সী মাইলস ক্লান্ত হয়নি। ঢাকায় বিশাল এক কনসার্টের মধ্য দিয়ে শেষ হবে এই আনন্দ উৎসব। সেই ঘোষণা অনুযায়ি মঙ্গলবার মাইলস বাংলাদেশের শ্রোতাদের উপহার দিলেন ব্যান্ড দলটির সবচেয়ে বড় এ আয়োজন।

১৯৭৯ সালে যাত্রা শুরু করা মাইলসের সদস্য এখন পাঁচ। শাফিন আহমেদ, হামিন আহমেদ, মানাম আহমেদ, সৈয়দ জিয়াউর রহমান তূর্য ও ইকবাল আসিফ জুয়েল। তাদের মধ্যে শাফিন, হামিন, মানাম শুরু থেকেই দলের সঙ্গে আছেন।

ফরিদ রসিদের হাত ধরে মাইলসের পথচলা শুরু হয়। এক কথায় বলতে তিনিই ছিলেন মাইলসের প্রতিষ্ঠাতা। অনুষ্ঠানের গানের মাঝে মাঝে কথায় ঠিক এমনটাই জানান মাইলসের বোকাল ও গিটারিস্ট হামিন আহমেদ। নিজেদের আত্মপ্রকাশের আগে হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালের গান গাইতো মাইলস। তাদের সঙ্গে একরকম পেশাদার ব্যান্ড হিসেবেই চুক্তি করেছিল হোটেলটি। সপ্তাহে পাঁচদিন তারা সেখানে গান করতেন।

হামিন বলেন বলেন, ‘সেই সময়টা আমাদের জন্য বড় একটি অর্জন ছিল। কারণ নিজেদের পরিপক্কতার জন্য, প্র্যাক্টিসের জন্য, বাজানোর জন্য একটা ভালো জায়গা দরকার ছিল। প্রথম তিন বছর ওই হোটেলটাতে বাজিয়েছি আমরা। সেখানে বিদেশি অতিথি বেশি থাকায় দেশি গানের পাশাপাশি ইংলিশ গানও হতো। তবে কখনও আমরা কমার্শিয়াল চিন্তা করিনি।’ মঞ্চে কথা বলতে বলতে যেনো চল্লিশ বছর আগের দিনগুলোতে চলে যান এ ব্যান্ড তারকা। এরপর গানে গানেই চার দশক উদযাপনের ইতি টানে মাইলস।

সম্পূর্ণ অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের সাথে মিডিয়া পার্টনার হিসেবে সংযুক্ত ছিল HP Bangladesh. অপরদিকে HP Bangladesh মাইলসের ৪০ বছর পুর্তি উপলক্ষে এইচপির দশম জেনারেশনের ল্যাপটপ উন্মুক্ত করে। অনুষ্ঠানে মাইলস পরিবারের প্রত্যেক সদস্যকে ইচপির দশম জেনারেশনের একটি করে ল্যাপটপ উপহার দেয়।

নিউজটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2019 Onenews24bd.Com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com