মঙ্গলবার, ০৪ অগাস্ট ২০২০, ১২:০৮ পূর্বাহ্ন

ডিজিটাল শিক্ষাই হবে সকল শিক্ষার অগ্রপথিক

অধ্যক্ষ গোলসান আরা বেগম
  • আপডেট সময় শুক্রবার, ৩১ জুলাই, ২০২০
  • ৯২ বার পড়া হয়েছে
ছবি: ইন্টারনেট

বাংলাদেশ গ্লোবাল জগতের স্বনাম ধন্য সদস্য। বিশ্ব দরবারে উন্নয়নের রোল মডেলে পরিনত হয়েছে। রুপকল্প ২০২১ বাস্তবায়িত হলে অচিরেই উন্নত দেশের তালিকায় অর্ন্তভূক্ত হবে বাংলাদেশ। একুশ শতকের শিক্ষাকে তথ্য হাইওয়ের মাধ্যমে ও তথ্য প্রযুক্তির সমন্নয়ে মাল্টিকালচারেল করার বিকল্প নেই। একুশ শতকের শিক্ষাব্যবস্থায় তথ্য প্রযুক্তি ভিত্তিক পাঠ্য সুচির সংযোজন ঘটিয়ে দক্ষ মানবসম্পদ গঠনে ডিজিটাল শিক্ষাব্যবস্থার উপর গুরুত্ব দিতে হবে।

 

ইতিমধ্যে শিক্ষার সর্ব নিম্ন স্তর প্রাথমিক শিক্ষাকে যুগোপযোগী করতে ১ম ৫ম শ্রেণির সকল বিষয়ে ডিজিটাল কনটেন্ট তৈরী করা হয়েছে। ২০০৯ সাল থেকে কনটেন্ট র্নিমানের কাজ বেশ গুরুত্ব সহকারে চলছে। ২৩৫০০ টি ডিজিটাল ক্লাস রুম তৈরী করা হয়েছে, ১০ হাজার মিক্ষকে দেয়া হছে প্রশিক্ষণ। অনরাইন শিক্ষা, ডিজিটাল নেট ওয়ার্ক বিশ্ব গড়ে তোলার পাশপাশি ডিজিটাল বিশ্ববিদ্যালয়ও গড়ে তোলা হয়েছে ( ২৮ জুলাই২০২০, দৈনিক সংবাদ)। সামগ্রিক শিক্ষাব্যবস্থাার ভীত প্রাথমিক শিক্ষাকে বাধ্যতা মূলক ভাবে ডিজিটাল করা হলে সামগ্রিক শিক্ষায় এর প্রতিফলন ঘটবে। অনলাইন ভিত্তিক মাল্টিমিডিয়া শ্রেণি শিক্ষা ও ডিজিটাল শিক্ষাব্যবস্থা বাংলাদেশের মান সম্পন্ন শিক্ষা নিশ্চিত করে জাতি সংঘ কতৃক র্নিধারিত লক্ষ্যমাত্রা টেকসই ডেভালপমেন্ট গোল্ডকে এগিয়ে দিবে বহু দুর?

 

অনলাইনে শ্রেণি শিক্ষা দেয়া, পরীক্ষা নেয়া ও ফলাফল প্রকাশ করা এখন আর দুঃসাধ্য কোন ব্যাপার নয়। শ্ক্ষিকদের ক্লাশ রুমে না গেলেও চলে, অনেকেই তার নিজের বাসায় একটি হোয়াইট বোর্ড ঝুলিয়ে দিয়ে অনলাইনে ক্লাশ নিচ্ছে। শিক্ষার্থীরাও অনলাইনে শিক্ষকের সঙ্গে যুক্ত হয়ে ক্লাশ করছে। শুধু আমাদের দেশে কেন দেশের বাহিরে কোন কোন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা নিচ্ছে আমাদের তরুণ শিক্ষার্থীরা। এর জন্য প্রয়োজন একটু দের্য, বুদ্ধি , মেধা ও সাহসের। এমন কি কোচিং সেন্টারেও যুক্ত হচ্ছে ডিজিটাল শিক্ষা পদ্ধতি। তা হলে কি বই খাতায় সম্পৃক্ত থেকে হাতে কলমের শিক্ষা ওঠে যাবে? প্রাতিষ্টানিক শিক্ষার প্রয়োজন হবে না। বাসায় বসেই শিক্ষার্থীরা ঘর বন্দি জীবন যাপন করার পাশাপাশি প্রথম থেকে উচ্চ শিক্ষার সার্টিফিকেট অর্জন করবে ?

 

আজকাল ভার্চুয়াল মাধ্যমে ডিজিটাল ক্লাউড লিংক ব্যহার করে গুরুত্বর্পুণ মিটিং ,বিনোদন আয়োজন, সাংস্কৃতিক র্চ্চচা, তথ্য আদান প্রদান চলছে। তাতে কায়িক পরিশ্রম কমে যায় ও র্অথনৈতিক সাশ্রয় হচেছ। পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্তে বসে সমালোক বা আলোচকরা টক-সো এর মাধ্যমে নিজস্ব ধ্যান ধারনা , যুক্তি খন্টন ছড়িয়ে দিচ্ছে মহূতেই বিশ্বময়। ব্যবসা বানিজ্য , স্বাস্থ্য সেবা, টাকা লেন দেন, ঘূর্ণি ঝড়, ভয়াল বন্যার র্পূবাভাস ঘরে বসেই জানা সম্ভব । জীবনের নিত্যদিনের হাসি কান্না ঘরের দুয়ারে নয় শুধু, নখের ডকায় চলে আসছে। এই সমস্ত সুয়োগ সুবিধা আয়ত্ব করতে না পারলে জাতীয় উন্নয়ন সম্ভব নয়। এ কারনেই ডিজিটাল শিক্ষায় প্রশিক্ষিত মানব সম্পদ তৈরী করতে হবে। ষোল কোটি মানুষের বাংলাদেশের প্রায় বার কোটি জনগণ মোবাইল ব্যবহারে অভ্যস্থ । এই ছোট্ট মোবাই যন্ত্রটিতে রয়েছে বিশ্বের যাবতীয় তথ্য সংযুক্ত। সার্বিক অর্থে মোবাইল ব্যবহার করতে হলেও ডিজিটাল শিক্ষার প্রয়োজন রয়েছে। অদুর ভবিষ্যতে প্রত্যাশা করা যায় আমাদের দেশের জনগণ ডিজিটাল শিক্ষায় প্রশিক্ষিত হয়ে অনলাইনে হবে আসক্ত। এ কারণেই শিক্ষার সকল স্তরে ডিজিটাল শিক্ষার আযোজনকে আরো জোড়দার করতে হবে।

 

ইতিপূর্বে ১৯৯৬ সালের পর থেকেই অবাধ তথ্যপ্রযুক্তির প্রসারতার যাত্রা শুরু হয়। বাংলাদেশকে নিজস্ব অর্থায়নে কেবল লাইনের সঙ্গে সংযুক্ত করে। ২০০৮ সালে নির্বাচনী ইশতেহারে জননেত্রী শেখ হাসিনা ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার অঙ্গিকারের ঘোষণা দিয়েছিলেন। সে শর্ত অনুযায়ী তথ্যপ্রযুক্তির উপর বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে গড়ে ওঠে বাংলাদেশেসফটওয়্যার শিল্প। ভুউপগ্রহ বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ উদক্ষেপনের মাধ্যমে মহাকাশ বিপ্লবের সাথে যুক্ত হয়। তথ্যপ্রযুক্তির সুদক্ষ প্রয়োগের মাধ্যমে প্রবেশ করে চতুর্থ বিপ্লবের জগতে। ডিজিটাল বিপ্লব বদলে দেয় দেশের অর্থনৈতিক ও সার্বিক পরিবেশ পরিস্থিতি। ভার্চুয়াল সংস্কৃতির উপর নির্ভরশীল হয়ে ওঠছে রাষ্ট্রীয়সহ অন্যান্য সামাজিক, সংস্কৃতিক কার্যকলাপ।

 

মহামারী- ২০২০ কভিড-১৯ প্রতিরোধে বাংলাদেশের সকল শিক্ষাব্যবস্থা রয়েছে স্থবির হয়ে। সরকার লক ডাউন ঘোষণা করার পর থেকেই প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা কার্যক্রম রয়েছে বন্ধ। প্রায় ১ কোটি ৬০ লক্ষ শিক্ষার্থী রয়েছে ঘরবন্দি জীবনে আবন্দ। জীবন যাত্রা কবে স্বাভাবিক হবে তাও বোঝা যাচ্ছে না। সরকারি নির্দেশে সফটওয়্যার ব্যবহার করে স্মার্ট টিভি, প্রজেক্টরের অনলাইন পদ্ধতিতে শিক্ষা কার্যক্রম করা হয়েছে চলমান। সেই প্রত্যন্ত অঞ্চলের ও গরীব শিক্ষার্থীরা কি ভাবে এই শিক্ষায় অংশ গ্রহন করবে? সবার হাতে টেপযন্ত্র , মোবাইলফোন নেই। প্রায় স্থানে বিদুৎ বা অনলাইন সংযোগের নেটওর্য়াকও নেই। তা হলে এই ধরনের অনলাইন শিক্ষার আওতায় সবাইকে আনা কি সম্ভব হবে ? কেউ প্রস্তাব রাখছে পাড়া মহল্লার ১৫ বা ২০ জন শিক্ষার্থী দলবদ্ধ হয়ে টেপযন্ত্র কিনে অনলাইন শিক্ষার অর্ন্তভুক্ত হতে। প্রস্তাবটি মন্দ নয়।

 

এদিকে আম্ফান নামক ঘূর্ণিঝড়ের তান্ডব কাটিয়ে ওঠতে না ওঠতেই ধেয়ে আসে বন্যার মাহাদুর্যোগ। চলছে সারা দেশে বন্যার ভয়াবহতা। ঘরবাড়ী তলিয়ে যাচ্ছ বানের পানিতে। লক্ষ মানুষ মানবেতর জীবন যাপন করছে। এদের সন্তানের উপায় কি হবে। কি ভাবে তারা অনলাইন শিক্ষায় অংশ গ্রহন করবে? এও দেখছি নদী ভাঙ্গনে চোখের পলকে বহু বাড়ী ঘর , হাটবাজান, রাস্তা ঘাট, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান নদী গর্ভে বিলিন হয়ে যাচ্ছে। আমরা নদী ভাঙ্গন, বন্যা, করোনা, ঘূর্ণিঝড় ইত্যাদি বহু ধরনের সংকটের চিপায় পরে মাথা ডুবু সমস্যায় হাবুডুবু খাচ্ছি। সরকার ঘর্মাক্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছে জনগণকে এই দুর্যোগ ও দুর্বিপাক থেকে উদ্ধার করতে। জানি না মহান সৃষ্টি কর্তা কখন কি ভাবে যন্ত্রণাদায়ক অবস্থার পরিত্রাণ দিবেন।

 

ডিজিটাল শিক্ষাব্যবস্থাকে গতিশীল করতে ও বাস্তবতা দিতে হলে আরো যা করা দরকার তা হলো –

প্রাথমিক শিক্ষায় তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়টি বাধ্যতামূলক ভাবে পাঠ্য করতে হবে। প্রতিটি শিশুকে কাগজের বই থেকে মুক্ত করে ডিজিটাল ডিভাইজ হিসেবে টেপযন্ত্র বা মোবাইল দিতে হবে। স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসা, কওমী, আরবী ইত্যাদি শিক্ষার সকল শাখায় চালু করতে হবে। মাধ্যমিক স্তরে বিষয়টি মূল্যায়ন মান ১০০ তে এবং উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ে ২০০ তে উন্নীত করতে হবে। স্নাতক, স্নাতকোত্তর পর্যায়ে বিষয়টি অর্ন্তভুক্ত করতে হরে। ইন্টারনেট ব্যবহারের প্রযুক্তিটি ফ্রি করে দিয়ে গ্রামে গ্রমে ইন্টারনেট জোন তরৈী করে দিতে হবে সরকারকে। প্রতটি প্রতিষ্ঠানে প্রযোজনীয় জিনিস পত্র সরবরাহ করে শ্রেণি শিক্ষার উপযোগী ডিজিটাল ল্যাব তৈরী করে দিতে হবে। পরীক্ষা গ্রহন ও মূল্যায় ডিজিটাল পদদ্ধতিতে করতে হবে। প্রত্যেক প্রস্তাবনা বাস্তবায়ন করাই হবে ব্যয় বহুল। তারপরও সাহস নেিয় এগিয়ে আসতে হবে।

 

পরিশেষে বলবো বৃহৎ জনগোষ্টিকে জনসম্পদে রূপান্তরিত করার প্রয়োজনে ডিজিটাল শিক্ষার বিকল্প নেই। উন্নত জাতি গঠনে ও দক্ষ মানব সম্পদ তৈরী করতে হলে ডিজিটাল শিক্ষাই হবে সকল শিক্ষার অগ্রপথিক।

 

লিখা: অধ্যক্ষ, গোলসান আরা বেগম, কবি, কলামিস্ট, সিনেট সদস্য (জাবি)

নিউজটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2020 Onenews24bd.Com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com