বৃহস্পতিবার, ০৪ মার্চ ২০২১, ০৫:৪২ অপরাহ্ন

তীব্র শীতে রাস্তার পাশে কাঁদছিল ফুটফুটে নবজাতক, শেষ পর্যন্ত না ফেরার দেশে

ডেস্ক রিপোর্ট
  • আপডেট সময় শুক্রবার, ২৫ ডিসেম্বর, ২০২০
  • ৮৩ বার পড়া হয়েছে
নবজাতক

মায়ের উষ্ণতায় বেড়ে ওঠার কথা ছিলো ফুলের মতোই ফুটফুটে নবজাতকটির। কিন্তু মায়াবি চেহারার সদ্যোজাত এই শিশুটিকে জন্মের পরই দেখতে হয়েছে নিষ্ঠুরতা আর নির্মমতা।

 

বাজারের একটি ব্যাগে ভরে নবজাতক মেয়ে শিশুটিকে ফেলে রাখা হয় কিশোরগঞ্জের হোসেনপুরের একটি ব্রীজের নিচে। তীব্র শীতের রাতে রাস্তার পাশে নবজাতকের কান্নার শব্দে এগিয়ে যান হাসেন ওরফে ছেইসু মিয়া নামে এক এলাকাবাসী। ব্যাগের ভেতর অজ্ঞাত নবজাতক ফেলে রাখার ঘটনা জানানো হয় উপজেলা নির্বাহী অফিসার এএসএম জাহিদুর রহমানকে।

 

মঙ্গলবার (২২ ডিসেম্বর) দিবাগত রাত ১২টার দিকে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এএসএম জাহিদুর রহমান নিজেই ছুটে যান উপজেলার গোবিন্দপুর ইউনিয়নের পানান গ্রামে। ঘটনাস্থলে ছুটে যায় হোসেনপুর থানার পুলিশও। পানান গ্রামের আব্দুল গফুর মাষ্টারের বাড়ি সংলগ্ন রাস্তার পাশ থেকে তারা উদ্ধার করেন শিশুটিকে। নবজাতকের কান্না শুনে প্রথম এগিয়ে যাওয়া গ্রামের হাসেন ওরফে ছেইসু মিয়ার হেফাজতে রাখা হয় নবজাতককে।

কিন্তু বিধিবাম! কয়েক ঘন্টার ব্যবধানেই অসুস্থ হয়ে পড়ে শিশুটি। বুধবার (২৩ ডিসেম্বর) সকাল হতে না হতেই নবজাতকের অসুস্থতার খবর জানানো হয় উপজেলা প্রশাসনকে। খবর পেয়ে হোসেনপুর উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা মো. এহসানুল হক গিয়ে নবজাতককে মুমূর্ষু অবস্থায় পান। সকাল ১০টার দিকে নবজাতকটিকে হোসেনপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। ১০ ঘন্টা বেঁচে থাকা শিশুটির কান্না আর চিৎকার যেন হয়ে ওঠেছিল নিষ্ঠুরতা আর নির্মমতার সুতীব্র প্রতিবাদের প্রতীকী রূপ।

 

স্থানীয়রা বলছেন, মঙ্গলবার (২২ ডিসেম্বর) দিবাগত রাত ১২টার দিকে যখন নবজাতকটিকে উদ্ধার করা হয়, তীব্র শীতে জবুথবু ছিলো শিশুটি। তখনই শিশুটিকে হাসপাতালে নিয়ে গিয়ে ভর্তি করানো হলে হয়তো নবজাতকটি বেঁচে যেতেও পারতো। কিন্তু স্বজনেরা যেমন নিষ্ঠুর অবহেলায় রাস্তার পাশে জন্মের পরই ছুঁড়ে ফেলে গেছে, উদ্ধার সংশ্লিষ্টরাও তেমন করে স্থানীয় হাসেন দম্পতির হেফাজতে দিয়ে তাদের দায় সেরেছেন।

 

এ ব্যাপারে হোসেনপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. নাছিরুজ্জামান জানান, এ বিষয়ে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য তিনি পুলিশকে অবগত করেছেন। হোসেনপুর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. নূর ইসলাম জানান, তদন্ত সাপেক্ষে এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2020 Onenews24bd.Com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
%d bloggers like this: