বৃহস্পতিবার, ২১ অক্টোবর ২০২১, ০২:১৪ অপরাহ্ন

সর্বশেষ খবর :

দুর্ঘটনার দায় কোন সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান নিতে চায় না

ডেস্ক রিপোর্ট
  • আপডেট সময় শনিবার, ১০ জুলাই, ২০২১
যখন দুর্ঘটনা ঘটে তখন সমস্ত সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠানগুলো দায়িত্ব এড়িয়ে চলে

নগর পরিকল্পনা এবং ডিজাইন (Urban planning and urban design) একটি চলমান প্রক্রিয়া। এজন্য দরকার যথাযোগ্য নগর পরিকল্পনা এবং নগর ডিজাইন, দক্ষ জনবল (ব্যবস্থাপক, প্ল্যানার, ডিজাইনার, ইঞ্জিনিয়ার, ইত্যাদি), জনসম্পৃক্ততা, সুশাসন, সমন্বয়, এবং ক্রমাগত নগর পুনঃউন্নয়ন (আরবান রি-ডেভেলপমেন্ট)। ক্রমান্বয়ে এগুলির ব্যবস্থা করে যেতে হয়, যা ঢাকা শহরের উন্নয়ন প্রক্রিয়ায় প্রচণ্ডভাবে উপেক্ষিত। মগবাজার বিস্ফোরণজনিত দূর্ঘটনা এই সমীকরণেরই ফল। এ রকম ফল আমরা পূর্বেও দেখেছি, যেমন-নিমতলি, চুড়িহাট্টা ইত্যাদি। যদি এভাবে চলতে থাকে হয়তো ভবিষ্যতেও আমরা আরো এর চেয়ে মারাত্মক ও ঘন ঘন দুর্ঘটনার সম্মুখীন হব।

এই জটিল বিষয়ের সমস্যা, কারণ, করণীয় ইত্যাদি নিয়ে আজ শনিবার (১০ জুলাই) সকাল ১১টায় পরিবেশ বাঁচাও আন্দোলন (পবা) মগবাজারে বিস্ফোরণঃ নগর নকশা ও চ্যালেঞ্জ” শীর্ষক বিশেষজ্ঞ পর্যায়ে আলোচনার সভার আয়োজন করেছে। পরিবেশ বাঁচাও আন্দোলন –পবা’র চেয়ারম্যান আবু নাসের খানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন প্রাইম এশিয়া ইউনিভার্সিটির ডিপার্টমেন্ট অব আর্কিটেকচারের চেয়ারম্যান স্থপতি সাজ্জাদুর রশীদ। মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন স্থপতি ও নগর নকশাবিদ মোহাম্মদ জাকারিয়া ইবনে রাজ্জাক (ড়াসেল)। বিশেষজ্ঞ আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্ট্যামফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় বাংলাদেশ-এর উপাচার্য ও স্থপতি অধ্যাপক মোহাম্মদ আলী নকী, নগর পরিকল্পনাবিদ ও বাংলাদেশ ইন্সটিটিউট অব প্ল্যানার্স (বিআইপি)-এর সভাপতি অধ্যাপক ড. আকতার মাহমুদ, বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের পুরকৌশল বিভাগের অধ্যাপক ড. এম শামসুল হক, অস্ট্রেলিয়ার ভিক্টোরিয়ান গভর্নমেন্ট-এর পরিবেশ, ভূমি, পানি ও পরিকল্পনা বিভাগের সিনিয়র পরিকল্পনা ও অনুমোদন কর্মকর্তা শেখ মোহাম্মদ ইজাজ, প্রকৌশলী মোঃ আনোয়ার হোসেন, ভারপ্রাপ্ত সভাপতি, বিএসভিসিএফআইসিএ, পবা’র সম্পাদক এম এ ওয়াহেদ রাসেল, কবি কামরুজ্জামান ভূঁইয়া এবং গ্রীনফোর্স সমন্বয়ক ও পবা’র সম্পাদক মেসবাহ সুমন ।

অনুষ্ঠানের শুরুতেই রাজধানীর মগবাজারে বিস্ফোরণের ঘটনায় ও নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে সেজান জুসের কারখানায় আগুনে পুড়ে নিহত, আহত ও ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির ঘটনায় গভীর দুঃখ প্রকাশ করে এক মিনিট নিরবতা পালন করা হয়।

প্রবন্ধ উপস্থাপক মগবাজার ঘটনাস্থল সরেজমিনে পরিদর্শনের ভিত্তিতে যেসকল পর্যবেক্ষণ তুলে ধরেন, সেগুলো হলো-

  • ডিজাইনকৃত ভবন এর কংক্রিটের কলাম ও ছাদ ইমিডিয়েট দুর্ঘটনার উৎসকে প্রতিরোধ করতে পারেনি।
  • সাধারন ব্যবহার্য গ্লাস-ওয়াল কোনো প্রতিরোধ করতে পারেনি ।
  • গ্লাস এর কারণে বহুদূর পর্যন্ত বহু লোক হতাহত হয়েছেন।
  • দুর্ঘটনা ত্রিমাত্রিক ভাবে ছড়িয়ে পড়েছে। এক্ষেত্রে নগর উন্নয়ন প্রক্রিয়ায় নগর নকশাবিদদের (Urban Designer) ভূমিকা দেখা যাচ্ছে না। অন্যান্য প্রফেশনালদের সাথে যারা এ ব্যপারে বিশেষ ভুমিকা রাখতে পারতেন।
  • নিয়ম বিহীন ব্যবহার (use) বা ভূমির-ব্যবহার (land-use), এবং অনুমোদনহীন গোডাউন।
  • দুর্ঘটনার ভয়াবহতা সম্পর্কে মনঃদৈহিক সম্মুখ ধারনার অভাব, এবং অসতর্কতা ও অসচেতনতা।

আলোচনায় অংশ নিয়ে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের পুরকৌশল বিভাগের অধ্যাপক ড. এম শামসুল হক বলেন, নন টেকনিকাল লোকজন নয় টেকনিক্যাল লোকজনকে আরবান ডিজাইনে সম্পৃক্ত করতে হবে।নগর গঠন কাঠামো লোক দেখানোতে আবদ্ধ না হয়ে, শুধুমাত্র দর্শনীয় কাঠামো গড়ে না তুলে নিরাপদ, স্থিতিশীল কাঠামো গড়ে তুলতে হবে। স্টেকহোল্ডারদের নগর নকশা পরিকল্পনায় সম্পৃক্ত করতে হবে। যে কোন দুর্ঘটনা ঘটলে সেটার সমাধানের যে সুপারিশ আসে সেটা হিমালয় সমান কিন্তু সেটা কখনোই মানা হয়না, কাজ করা হয়না সেই অনুযায়ী ফলে চাপা পড়ে যায়। আমরা কাঠামোগত রক্ষনাবেক্ষন নিয়ন্ত্রণ ও নজরদারি অবজ্ঞা করি বলেই আমাদের এতো সমস্যা। যে কোন বিষয়কে একটা প্রাতিষ্ঠানিক রুপ দিতে না পরলে উন্নয়ন টেকসই হবেনা ও এর ভালো সুফল পাবো না।

নগর পরিকল্পনাবিদ অধ্যাপক ড. আকতার মাহমুদ বলেন,  যখন একটি দুর্ঘটনা ঘটে তখন সমস্ত সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠানগুলো দায়িত্ব এড়িয়ে চলে। তাদের আইন থাকার পরও তারা এড়িয়ে চলে। এখানে ফায়ার ব্রিগেড আইন এখনো অনুন্নত, ফলে একটা বৈপরীত্য দেখা যায় অন্য প্রতিষ্ঠানগুলো সাথে। বিএনবিসি, ইমারত নির্মান বিধিমালা এবং ভবন নির্মানের ক্ষেত্রে পরিকল্পনা প্রতিষ্ঠানের কোন রকম তদারকি নেই। তারা শুধু অনুমোদন দেয়, আর কোন কাজে নেই ফলে নানারকম সমস্যা সৃষ্টি হয়। ইমারত বিধিমালার অকুপেন্সি সার্টিফিকেট  নেয়ার বাধ্যবাদকতা ১২ বছরেও যথাযথ বাস্তবায়ন হয়নি এটি খুবই দুঃখজনক। ফায়ার সেফটি সার্টিফিকেট যারা নেয় তাদের নবায়ন ও পরিদর্শন জরুরি। এটা কোন বিশেষ মৌসুমের বিষয় নয়, এই নজরদারি প্রতিবছর করতে হবে। SDG-এর যে ১৭ টি লক্ষ্য ও ১৬৯ টি ইন্ডিকেটর আছে সেখানে ১১ নম্বর লক্ষ্যে নিরাপদ ও টেকসই শহরের কথা বলা হয়েছে। আমাদের নগরের দর্শন হবে নিরাপদ, টেকসই, অন্তর্ভুক্তিমূলক ও সহনশীল। আধুনিক শহরের জমির ব্যবহারে সতর্ক হতে হবে, না হলে নিমতলির মতো ঘটনা ঘটবে। সবাইকে আইন মেনে ভবন নির্মাণে সচেষ্ট হওয়ার পাশাপাশি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে এ ব্যাপারে কঠোর হতে হবে।

শেখ মোহাম্মদ ইজাজ বলেন, সকল সংগঠনকে একই ভাষায়, একই বক্তব্য দিয়ে দাবি জানাতে হবে, যেন সঠিক ব্যক্তিকে দিয়ে সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা মাফিক নগর কাঠামো গঠন করানো হয়।

স্থপতি অধ্যাপক মোহাম্মদ আলী নকী বলেন, যে সমস্যা নিয়ে আলোচনা হচ্ছে তার সাথে একাধিক সংস্থা জড়িত। তাই সম্মিলিতভাবে সমাধান জরুরি। সকলের মধ্যে মাঠপর্যায়ে কাজ করার প্রবণতা থাকতে হবে। ভবন শুধু বিলাসের জন্য নয়; ভবন একটি নিরাপদ আশ্রয়। এজন্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করা সংশ্লিষ্ট সকলের নৈতিক দায়িত্ব। সতর্ক ও সচেতন করার প্রক্রিয়া চালু রাখতে হবে এবং সেই মোতাবেক উদ্যোগ নিতে হবে। যারা সতর্কতা অমান্য করবে তাদের কঠোর শাস্তির আওতায় আনতে হবে। গ্যাস লাইনের ব্যবস্থা নিরাপদ ও নিশ্চিত করতে হবে। পুরাতন ভবনে ত্রুটি থাকতে পারে, সেটা ধ্বংস না করে ত্রুটি মুক্ত করা যায়। ভবনের মালিককে ত্রুটি ধরিয়ে দিয়ে তাকে বুঝিয়ে পুরাতন ভবন সংস্কার করা যায়। লোকজনের মাঝে সহযোগিতা পূর্ণ মনোভাব সৃষ্টি করতে হবে। এতে নিরাপত্তা নিশ্চিত হবে। নগর পরিকল্পনায় ত্রুটির কারণে দূর্ঘটনা কবলিত স্থানে নিরাপত্তা ও অগ্নিনির্বাপক কর্মীরা সহজে পৌঁছতে পারেন না। নগর পরিকল্পনা ত্রুটি মুক্তকরণ জরুরি।

পবা’র চেয়ারম্যান আবু নাসের খান বলেন, প্রতিটি বিল্ডিং তৈরির পূর্বে পানি,গ্যাস, বিদ্যুৎ সরবরাহসহ অন্যান্য নিরাপত্তা ভিত্তিক ব্যবস্থা নিশ্চিত করার জন্য এসব বিষয়ে প্রশিক্ষিত বিশেজ্ঞদের সুচিন্তিত মতামত নিয়ে ভবন নির্মাণ করতে হবে। সংশ্লিষ্ঠ সেবাদানকারী ও নিয়ন্ত্রনকারী প্রতিষ্ঠানসমূহের পূর্বানুমতি নিয়ে রাজউকের অনুমোদনের প্রথা চালু করতে হবে। ব্যক্তিগত এবং দলগত লোভ-লালসা পরিহার করে সকলের বসবাস নিরাপদ করার ব্যাপারে সঠিক আইনি প্রয়োগ নিশ্চিত করতে হবে। নগর নকশা পরিকল্পনা করার বিষয়ে প্রভাবশালী মহলের চাপকে উপেক্ষা করতে হবে।

আলোচনায় অংশ নিয়ে অন্যান্য বক্তারা বলেন, ঢাকা শহরের সব গ্যাসলাইনে স্বয়ংক্রিয় সেন্সর লাগানো ব্যাবস্থা গ্রহণ করতে হবে, যেন একটা নির্দিষ্ট মাত্রার বেশি ভূমিকম্প হলে স্বয়ংক্রিয়ভাবে গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। পুরোনো গ্যাসলাইনগুলো জরুরি ভিত্তিতে পুনঃসংস্কার/পরিবর্তন করতে হবে। দুর্ঘটনার ঝুঁকি এড়াতে নির্বিচারে ভবনে কাঁচের ব্যবহার হ্রাস বা রোধ করতে হবে। আমাদের ফায়ার হাইড্রান্ট ব্যবস্থা নেই, তাই দ্রুত অঞ্চলভিত্তিক ফায়ার হাইড্রান্ট স্থাপনের ব্যবস্থা করতে হবে। ভবন নির্মাণের সময় সব নিয়ম মানা হলে সিটি করপোরেশন থেকে বিশেষ রেয়াতের ব্যবস্থা করতে হবে, অন্যথায় আইনানুযায়ী শাস্তি দিতে হবে।

অপরিকল্পিত ভাবে গড়ে ওঠা নগরের উপর চাপ কমানোর জন্য ঢাকার বিপুল সংখ্যক জনসংখ্যার একটি অংশকে ঢাকার বাইরে আশেপাশে তাদের বসবাসের ব্যবস্থা করতে হবে। এবং সেই মোতাবেক নাগরিক সুযোগ সুবিধা দিতে হবে।

নগর নকশা ও চ্যালেঞ্জ বিষয়ে সুপারিশসমূহ:

১। দূর্ঘটনার পরে দেখা যায় সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানসমূহ পরষ্পর দায়িত্ব এড়িয়ে যাবার চেষ্টা করতে থাকে। প্রতিষ্ঠান সমূহ যে আইন দ্বারা পরিচালিত হয় সেখানে তাদের ম্যান্ডেট লেখা থাকে। সুতরাং স্পষ্টভাবে তাদের দায়িত্ব সুনির্দিষ্ট করা আছে, এড়িয়ে যাবার কোন উপায় নাই। তাদের দায়বদ্ধ করতে হবে। দূর্ঘটনার দায়িত্ব নিতে হবে।

২। ভবন মালিকরা তাদের দায়িত্ব ভুলে যাবেন না। ভবনটি কতটা নিরাপদ, নির্দিষ্ট সময় পর পর পরীক্ষা করাবেন এবং সেই অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন। এতে ভবনের ঝুঁকি কমে আসবে।

৩। বাংলাদেশ ন্যাশনাল বিল্ডিং কোড, ইমারত নির্মান বিধিমালা ২০০৮ এবং অগ্নি প্রতিরোধ ও নির্বাপণ আইন ২০০৩ ইত্যাদি আইনগুলোর মধ্যে “বহুতল ভবনের” সংজ্ঞার ভিন্নতা আছে। এ কারণে ভবনগুলো ঝুঁকি পূর্ণ থেকে যাচ্ছে। এই ভিন্নতা দূর করা অত্যন্ত জরুরী।

৪। ইমারত নির্মান বিধিমালা ২০০৮ আইনের মধ্যে ভবন নকশা ও নির্মান সামঞ্জস্যতা বিধানের জন্য “অকুপেন্সি সার্টিফিকেট” দেয়ার বিধান আছে। এই বিধান পূর্ণ বাস্তবায়ন হলে যে কোন ভবনের ঝুঁকি অনেকাংশে কমে যাবে।

৫। রাজউকসহ অন্যান্য সংশ্লিষ্ট নিয়ন্ত্রনকারী ও সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠানসমূহ নিয়মিতভাবে (প্রয়োজনে ২-৫ বছর) পরিদর্শন করবেন ও প্রয়োজনীয় সুপারিশ করবেন। এই কাজটি হয়রানি মুক্ত হতে হবে।

৬। ফায়ার ব্রিগেডের সার্টিফিকেট নির্দিষ্ট সময় পর পর ভবন পরিদর্শন পূর্বক নবায়নের ব্যবস্থা থাকতে হবে।

৭। ভবন নির্মানের সাথে নিয়োজিত কারিগরি ব্যক্তিবর্গের দায়-দায়িত্ব “ইমারত নির্মান বিধিমালা ২০০৮” নির্দিষ্ট করা আছে। সেই অনুযায়ী কারিগরি ব্যক্তিদের বিল্ডিং এর দূর্ঘটনার জন্য দায় নিতে হবে। কারিগরি ব্যক্তিরা তাদের কোড অব এথিক্স অনুযায়ী পরিচালিত হবেন। ভবন মালিক নিরাপদ ইমারত নির্মানে সচেষ্ট হবে এবং ভবনের ঝুঁকি কমানো যাবে।

৮। নগরের মাষ্টার প্ল্যান, ডিটেইল্ড এরিয়া প্ল্যানে নির্দেশিত ভুমি ব্যবহারকে নিশ্চিত করতে হবে। ঝুঁকিপূর্ণ ব্যবহার বন্ধ করতে হবে। তাহলে চুড়িহাট্টা বা নিমতলীর মতো দূর্ঘটনা ঘটবে না।

৯। টেকসই উন্নয়নের লক্ষ্যমাত্রা অনুযায়ী সূচকগুলো বাস্তবায়ন সরকারের দায়িত্ব। সরকারের বিভিন্ন সহায়তা বিশেষ করে প্লট ও ফ্ল্যাটের সহায়তা শুধুমাত্র নিম্ন আয়ের মানুষদের প্রদান করবে। কিছুতেই সম্পদশালীদের জনগণের সম্পদ হস্তান্তর করবে না।

Tahmina Dental Care

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2021 Onenews24bd.Com
Site design by Le Joe
%d bloggers like this: