শুক্রবার, ২২ জানুয়ারী ২০২১, ০৪:১৫ অপরাহ্ন

দোকানপাট খুলতেই কেনাকাটার ধুম পড়েছে কিশোরগঞ্জ শহরে, চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে পোশাক

মো: আল-আমীন
  • আপডেট সময় রবিবার, ১০ মে, ২০২০
  • ৯৬৬ বার পড়া হয়েছে
ছবি: সংগ্রহিত

পূর্ব নির্ধারিত আদেশে আজ (১০মে) রবিবার থেকে সীমিত পরিসরে শর্ত মেনে দেশব্যাপি শপিংমল ও দোকানপাট খোলার সিদ্ধান্ত জানানো হয়েছিল সরকার থেকে। কিন্তু চট্টগ্রাম’সহ দেশের খ্যাতনামা কয়েকটি শহরে বিভিন্ন শপিংমল ও দোকান মালিকরা এ ভয়াবহ পরিস্থিতিতে শপিংমল ও দোকান না খোলার সিদ্ধান্ত জানিয়েন। তারা বলছেন আগে জীবন, পরে ঈদ মার্কেট। বেঁচে থাকলে জীবনে বহু কেনাকাটা ও বিক্রি করা যাবে।

 

অপরদিকে মানুষের জীবনের মূল্যকে তুচ্ছ করে কিছু শহরের ন্যায় কিশোরগঞ্জ জেলা শহরেও সকাল থেকে শপিংমল ও দোকানপাট খুলেছে। কিন্তু যেসব শর্ত মেনে বিপণী বিতান ও শপিংমলে বিক্রয় করার কথা সেই শর্ত কোনোভাবেই মানা হচ্ছে না। শহরের রথখলা এলাকায় দেখা গেছে কিছু মানুষ মাস্ক না পড়েই পরিবারসহ ঈদের কেনাকাটা করতে এসেছেন। টপ টেন, ইজি ফ্যাশন, রিচম্যান, আনোয়ারা সুপার মার্কেট, বাটা সু, তেরীপট্টি গেঞ্জি মার্কেটে সকাল থেকেই প্রচুর মানুষের ভীড়। ৩ফুট দূরত্বে থেকে কেনাকাটা করার কথা থাকলেও তাদের মধ্যে ১ ইঞ্চি ফাঁকাও নেই। কেনাকাটা করতে আসা মানুষের চোখ দেখলে মনে হচ্ছে শহরে করোনা ভাইরাসের চিটেফুটেও নেই।

 

এদিকে ক্রেতারা বলছেন, দোকানীরা পোষাকের দাম বেশি নিচ্ছে। যে পোশাক গত ঈদে বিক্রি করছে সাড়ে ৩০০ টাকা, সেটা এখন বিক্রি করছে সাড়ে ৫০০ টাকায়। দোকানীরা বলছেন, আমরা ঢাকা থেকে আগে যখন মালামাল আনতাম তখন খরচ পড়তো কম। এখন দিগুণ খরচে এবং একটু বেশি দামে মালামাল আনতে হচ্ছে, তাই দাম তো একটু বেশি হবেই।

 

পোষাক কিনতে আসা রুমকি আক্তার বলেন, এতদিন বের হতে পারিনি। আজ শুনেছি সব গার্মেন্টসগুলো খোলা হয়েছে তাই বাজারে ঈদের কেনা কাটা করতে এসেছি। দাম বেশি হলেও কিনতেই হবে। তাই কিনে নিলাম। ক্রেতা শারমিন আক্তার জানান, ঈদের আগে মার্কেটে আরও প্রচুর ভীর হতে পারে সেজন্য এখনিই সব ধরণের কেনাকাটা করে নিচ্ছি।  গার্মেন্টসগুলো খুলে দেওয়ায় নারী-পুরুষের ঢল নেমেছে। হৈ-হুল্লোড় করে কেনাকাটার ধুম পড়ে গেছে সকাল থেকেই। তিল পরিমাণ জায়গা নেই জুতার দোকানগুলোতেও। বাজার ঘুরে দেখা গেছে, পুরুষ ক্রেতার চেয়ে মহিলা ক্রেতার সংখ্যা দিগুণ। রবিবার সকাল ১০টায় শহরের ঈশাখা রোড ঘুরে এসব চিত্র দেখা গেছে।

ছবি: সংগ্রহিত

 

অপরদিকে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে নিয়মিত বাজার মণিটরিং ও করোনা ভাইরাসের সতর্কতার জন্য মাস্ক পড়া বাধ্যতামূলক ঘোষণা করা হয়েছে। গতকাল শনিবার পৌর শহরের বিভিন্ন পয়েন্ট থেকে ২৫ জনকে মাস্ক না পড়ার জন্য ৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। পুলিশ প্রশাসন ও র‌্যাব যৌথভাবে শহরের প্রধান প্রধান সড়কে টহল চালু রেখেছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2020 Onenews24bd.Com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com