রবিবার, ২৪ অক্টোবর ২০২১, ০৯:০৩ অপরাহ্ন

সর্বশেষ খবর :

ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগ নিয়ে থানায় গিয়ে গ্রেফতার এক গৃহবধূ

আলী হায়দার, কুলিয়ারচর, কিশোরগঞ্জ
  • আপডেট সময় শনিবার, ১৭ জুলাই, ২০২১
ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগ নিয়ে থানায় গিয়ে গ্রেফতার এক গৃহবধূ

কিশোরগঞ্জের কুলিয়ারচরে এক গৃহবধূ ছিনতাই ও ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগ নিয়ে থানায় গেলে, অভিযোগ না নিয়ে উল্টো ইয়াবা সহ গ্রেফতার দেখিয়ে বিজ্ঞ আদালতে প্রেরণের অভিযোগ উঠেছে পুলিশের বিরুদ্ধে।

গ্রেফতারকৃত গৃহবধূ বলেন, কুলিয়ারচর থানার কনস্টেবল সাইফুলের ফোনের ভিত্তিতে রাত আনুমানিক ১০ টার দিকে থানায় যাওয়ার পথে, কুলিয়ারচর তিশা বাসস্ট্যান্ড কাছাকাছি গেলে স্থানীয় কয়েকটি ছেলে তার পথরোধ করে এবং গলায় ছুরি ঠেকিয়ে তার সাথে থাকা মোবাইল ফোন, গহনা ও টাকা পয়সা নিয়ে তাকে ধর্ষণের উদ্দেশ্যে পরনের বোরকা খুলে নেয় এবং জামা-কাপড় ছিড়ে ফেলে। এক পর্যায়ে তাদের হাত থেকে ছুটে দৌড়ে কে আছেন আমাকে বাঁচান বলে চিৎকার করতে করতে বাসস্ট্যান্ডে গেলে সেখানকার নাইড গার্ড তাকে একটি কাপড় দেয় সম্ভ্রম রক্ষার জন্য।

পরবর্তীতে বিষয়টি স্থানীয় কমিশনার নূরে আলমকে জানালে তিনি তার ভাগিনা সহ কয়েকজন লোক দিয়ে থানায় অভিযোগ করার জন্য পাঠায়। পরে আমি অভিযোগ করতে থানায় গেলে পুলিশ আমার অভিযোগ না নিয়ে উল্টো আমাকে আটক করে, ৩০ পিস ইয়াবা সহ গ্রেফতার দেখিয়ে মামলা করে।

এই বিষয়ে নাইড গার্ড আওয়াল মিয়া (৫০) জানান, রাতে আমার ডিউটিরত অবস্থায় হঠাৎ একটি নারী প্রায় অর্ধ উলঙ্গ অবস্থায় আমাকে বাঁচান, বাঁচান বলে চিৎকার করে বাসস্ট্যান্ডে আমার কাছে আসলে প্রথমে আমি তাকে খাবার হোটেলের টেবিল মুছার একটি পুরাতন গামছা দিয়ে তার সম্ভ্রম রক্ষা করি । পরে স্থানীয় কয়েকজন মুরুব্বি দিয়ে ওই নারীকে তার বাড়িতে প্রেরণ করি।

এই বিষয়ে কমিশনার ও প্যানেল মেয়র-২ নূরে আলম জানান, ঘটনার পর আমাকে ফোন দিলে আমি ওই নারীর কাছে যাই। তখন ঘটনা শুনে আমি ওই নারীর সাথে আমার ভাগিনা সহ কয়েকজন লোক দিয়ে থানায় অভিযোগ করতে পাঠাই। পরে জানতে পারি পুলিশ তার অভিযোগ না নিয়ে, উল্টো মাদক মামলা দিয়ে চালান করে।

এই বিষয়ে কুলিয়ারচর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) একেএম সুলতান মাহমুদ বলেন, মহিলা একজন মাদক ব্যবসায়ী, তার স্বামীও একজন চিন্তিত মাদক ব্যবসায়ী। তাদের নামে একাধিক মামলা রয়েছে।

এসময় ছিনতাই ও ধর্ষণ চেষ্টা অভিযোগ না নিয়ে গ্রেফতার দেখানো বিষয়ে জানতে চাইলে ওসি বলেন, এই ঘটনাটি একটি সাজানো নাটক। মূল্যত ওই দিন রাতে তাদের একটি বাড়ি থেকে কয়েক কোটি পরিমাণ ইয়াবা সেবনের দুইটি কয়েল উদ্ধার করি। আর এই ঘটনা থেকে বাঁচতেই ছিনতাই ও ধর্ষণ চেষ্টার নাটক সৃষ্টি করে সে।

কনস্টেবল সাইফুল কেন থানায় যেতে বলেছিলো এবং কেনই বা এতো রাতে যাচ্ছিলো এমন প্রশ্নের জবাবে গ্রেফতার কৃত নারীর স্বামী রোকন মিয়া (৪৩) বলেন, আমি আগে ইয়াবার ব্যবসার করতাম কিন্তু একটি মাদক মামলায় জেল থেকে জামিনে এসে গত ৬ মাস যাবৎ ব্যবসা ছেড়ে দিয়েছি। বর্তমানে ভৈরবে জুতার ব্যবসা করি। বর্তমানে মাদকের ব্যবসা না করলেও দেখা যায় বিভিন্ন উৎসব/ঈদ আসলেই কনস্টেবল সাইফুল বিভিন্ন ভাবে ফোন দিয়ে মামলা ও গ্রেফতারের ভয় দেখায় টাকার জন্য। টাকা দিতে না চাইলেই, বিভিন্ন নাটক সাজিয়ে হেস্তনেস্ত করে। আর এই ভয়েই আমার স্ত্রী ২০ হাজার টাকা নিয়ে কনস্টেবল সাইফুলের কথা মতো থানার পিছনের মাঠে দেখা করতে যাচ্ছিলো। এই কথার প্রেক্ষিতে ওসি জানায়, কনস্টেবল সাইফুল কৌশলে তাকে গ্রেফতারের জন্য থানায় আসতে বলে।

তিনি বলেন, ওই দিন রাত ৯টা থেকে রাত ২টা পর্যন্ত প্রত্যক্ষদর্শী ও স্বাক্ষীদের জিজ্ঞাস করলে এবং কুলিয়ারচর থানার সিসি ক্যামেরার ফুটেজ দেখলেই প্রমাণ হয়ে যাবে আমার স্ত্রীকে পুলিশ মাদকসহ আটক করে থানায় নিয়েছে না কি অভিযোগ করার জন্য আমার স্ত্রী লোক নিয়ে থানায় যাওয়ার পর আটক করে। মামলার সঠিক তদন্তের জন্য থানার সিসি ক্যামেরার ফুটেজ সংরক্ষণ করার জন্য উর্ধতন কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি কামনা করে এঘটনার সুষ্ঠু বিচার দাবী করে সে।

উল্লেখ্য, ওই নারীর বিরুদ্ধে গ্রেফতারকৃত মাদক মামলার (মামলা নং ১১, তারিখ ১৬/০৭/২১ইং) বিবরণে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে আশ্রবপুর এলাকার ভাঙা ব্রিজের পাশে মোঃ খোকন মিয়ার পরিত্যক্ত একটি বাড়িতে ইয়াবা সহ ১৫ জুলাই রাত সাড়ে ৯ টায় গ্রেফতার দেখায় পুলিশ। অথচ ওই মহিলা ছিনতাই ও ধর্ষণ চেষ্টার শিকারের পর ওই রাত (১৫ জুলাই দিবাগত রাত অর্থাৎ ১৬ জুলাই রাত) সাড়ে ১২টার দিকে বিষয়টি এই প্রতিনিধিকে ০১৯১২-১৩১২১৫ এই নাম্বার থেকে ফোন করে ঘটনা জানালে, ঘটনা শুনে এই প্রতিনিধি রাত ১২ টা ৩৩ মিনিটে ওসির সাথে ফোনে কথা বলে থানায় অভিযোগ করতে পরামর্শ দেয়। পরবর্তীতে ওই নারী রাত ১টার দিকে থানায় অভিযোগ করতে গেলে আটকের পর, রাত সাড়ে ৯টায় আটক দেখায় পুলিশ। ওই নারীকে অভিযোগ করতে আসার পর গ্রেফতার করা হয়, বিষয়টি ওসি স্বীকার করে।

বিশ্বস্থ সূত্রে জানা যায়, কনস্টেবল মো. সাইফুল ইসলাম মাদক ব্যবসায়ীদের বিভিন্ন প্রকার হুমকি প্রদর্শন করে দীর্ঘদিন ধরে তাদের নিকট থেকে মোটা অংকের টাকা আদায় করে আসছে। কিশোরগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার সাইফুলকে এ থানা থেকে অষ্টমগ্রাম থানায় বদলী করলেও রহস্যজনক কারণে অষ্টমগ্রাম থানায় যোগদান না করে কুলিয়ারচর থানা এলাকায় বিভিন্ন অপকর্ম করে যাচ্ছে।

Tahmina Dental Care

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2021 Onenews24bd.Com
Site design by Le Joe
%d bloggers like this: