সোমবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০২:৩৫ অপরাহ্ন

নিকলীতে উপজেলা পরিষদ নির্বাচন কেন্দ্র করে ফেইসবুকসহ বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রচারণায় সরব হয়ে উঠছেন সম্ভাব্য প্রার্থীরা

ওয়ান নিউজ 24 বিডি ডেস্ক
  • আপডেট সময় মঙ্গলবার, ১৫ জানুয়ারী, ২০১৯

দিলীপ কুমার সাহা :
চলতি বছরের মার্চ মাসে উপজেলা পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে সম্প্রতি এমন খবরে কিশোরগঞ্জের নিকলী উপজেলার সম্ভাব্য চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থীরা নড়েচড়ে বসছেন। নির্বাচনী মাঠে এখন পর্যন্ত সরাসরি প্রচার-প্রচারণায় না নামলেও ফেসবুকসহ বিভিন্ন যোগাযোগ মাধ্যমে নিজেদের পক্ষে সমর্থন আদায়ে প্রচার-প্রচারণার পাশাপাশি আড়ালে-আবডালে চালিয়ে যাচ্ছেন জোর লবিং। এমনকি প্রথম বারের মতো দলীয় প্রতীকে উপজেলা নির্বাচন হওয়ায় স্ব স্ব দল থেকে প্রতীক ও মনোনয়ন পত্র পাওয়ার জোর তৎপরতা চালাচ্ছেন সম্ভাব্য প্রার্থীরা। তবে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সম্ভাব্য প্রার্থীদেরই তৎপরতা লক্ষ্য করা গেলেও এখানে বিএনপি বা তার শরীক দলের সম্ভাব্য প্রার্থীদের তৎপরতা নেই বললেই চলে।
৭টি ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত এ উপজেলায় গত নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী ছিলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, তিনি বিপুল ভোটে বিএনপির প্রার্থীকে পরাজিত করে বিজয়ী হয়েছিলেন । এবারো তিনি নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবেন বলে জানা গেছে। আরো দুইজন সম্ভাব্য প্রার্থীর নাম জোর আলোচনায় রয়েছে তারা হলো উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহসভাপতি সাবেক উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ইকবাল হোসেন, উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহসভাপতি মো. জনি ভূইয়া। উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কারার সাইফুল ইসলাম প্রার্থী হলে দলীয় মনোনয়ন প্রায় নিশ্চিত বলে দাবী করছেন তার কর্মী-সমর্থকরা। সম্ভাব্য চেয়ারম্যান পদে প্রর্থীদের সকলই দাবী করে বলেন, বঙ্গবন্ধু তনয়া টানা তিনবারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ক্ষুধা ও দারিদ্র্যমুক্ত ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে এবং অবহেলিত উপজেলাবাসীর কল্যাণে কাজ করতে দল তাদেরকেই প্রার্থী হিসেবে মূল্যায়ন করবে। জানতে চাইলে কারার সাইফুল ইসলাম বলেন, আমি দলের আদর্শ থেকে কখনো বিচ্যুতি হইনি। দলের সুসময়-দুঃসময় যাই হোক সবসময় দলীয় নেতা-কর্মীদের সঙ্গে নিয়ে দলের কাজ করেছি। যার প্রতিদান জনগণের ফেসবুকের স্ট্যাটাস। তবে সবার সাথে কথা বলে প্রার্থী হওয়ার বিষয়ে আমি পদক্ষেপ নেব। জানতে চাইলে ইকবাল হোসেন বলেন, অন্য যে কেউ প্রার্থী হতে পারেন। তবে তিনি প্রার্থী হিসেবে মাঠে থাকবেন। মো. জনি ভূইয়া বলেন, দলীয় নেতা-কর্মীদেও নিয়ে এলাকার উন্নয়নের কথা ভাবি। দলের মনোনয়ন পেলে আমি নিবাচনে বিজয়ী হব।
এদিকে, উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে অংশগ্রহণের ব্যাপারে বিএনপি এখন পর্যন্ত কেন্দ্রীয়ভাবে কোনো ধরণের আলোচনা বা সিদ্ধান্ত গ্রহণ না করায় প্রচার-প্রচারণায় বিএনপি প্রার্থীরা নেই বললেই চলে। বিএনপি’র তৃণমূল নেতাকর্মীদের মধ্যেও উপজেলা নির্বাচন নিয়ে কোন ধরণের আগ্রহ প্রকাশ করতে দেখা যায়নি। তবে উপজেলা নির্বাচন নিয়ে হাট-বাজার, চা’য়ের দোকান, পাড়া-মহল্লায় ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগের সম্ভাব্য প্রার্থীদের নামের পাশাপাশি বিএনপি ও তার শরীকদলের সম্ভাব্য প্রার্থীদের নিয়েও আলোচনা করছেন সাধারণ ভোটাররা। তন্মধ্যে নিকলী উপজেলা বিএনপির সভাপতি বদরুল মোমেন মিঠু ও সাধারণ সম্পাদক আবু সায়েদদের নাম জোর আলোচনায় রয়েছেন। বিএনপির সম্ভাব্য উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থীদের অনেকেই জানিয়েছেন, দলের সিদ্ধান্ত অমান্য করে কোন ধরণের নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবেন না তারা। দল যদি নির্বাচনে অংশ নেয়ার সুযোগ দেন তাহলেই প্রার্থী হবেন।

Tahmina Dental Care

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2022 Onenews24bd.Com
Site design by Le Joe
%d bloggers like this: