শনিবার, ১৩ অগাস্ট ২০২২, ১২:৩৪ অপরাহ্ন

নিকলীতে গণধর্ষণের শিকার হয়ে গৃহবধূর মৃত্যু, স্বামী’সহ গ্রেফতার ৪

দিলীপ কুমার সাহা, নিকলি, কিশোরগঞ্জ
  • আপডেট সময় বুধবার, ২৯ জুন, ২০২২
নিকলীতে গণধর্ষণের শিকার হয়ে গৃহবধূর মৃত্যু, স্বামী’সহ গ্রেফতার ৪

কিশোরগঞ্জের নিকলী উপজেলায় গণধর্ষণের শিকার হয়ে এক গৃহবধূর হাসপাতালে মৃত্যু হয়েছে । এ ঘটনায় মামলা হওয়ায় স্বামী লালচান মিয়া, রমছু মিয়া, নাছির মিয়া ও শরিফ মিয়া চার জনকে নিকলী থানা পুলিশ গ্রেফতার করেছে বুধবার সকালে।

মামলা সূত্রে জানা যায়, সোমবার (২৭জুন) রাত ৮ টায় গৃহবধু আশামনি(১৯) নানীর বাড়ি দক্ষিণ জাল্লাবাদ থেকে স্বামী লাল চান মিয়ার বাড়ি সাহাপুর যাওয়ার সময়, আগে থেকে উৎপেতে থাকা স্বামীসহ অন্য ৭-৮জন মিলে আশামনিকে সাহাপুর রাস্তার মোড় থেকে পতিত ভরাটকৃত জমিতে নিয়ে পালাক্রমে র্ধষণ করে রক্তাক্ত অবস্থ্যায় পেলে রেখে চলে যায়। সকালে এলাকাবাসী আশামনিকে বিবস্ত্র ও রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করে নিকলী উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে কিশোরগঞ্জ আধুনিক হাসপাতালে উন্নত চিকিৎসার জন্য প্রেরণ করেন। সেখানে মঙ্গলবার (২৮জুন) রাত ৩ টায় আশামনি হাসপাতালে মারা যায়।

আশামনির মামা মোঃ জাহাঙ্গীর আলম জানান, বেশ কয়েক মাস পূর্বে রসুলপুর গ্রামের মৃতঃ সহর আলীর মেয়ে আমার ভাগনী আশামনির সাথে সাহাপুর গ্রামের রাজু মিয়ার ছেলে লাল চানের সঙ্গে বিবাহ হয়। বিবাহর পর থেকে স্বামী লাল চান আমার ভাগনীকে পতিতা বৃত্তি ও অসামাজিক কাজে লিপ্ত করতে চাপা চাপি সৃষ্টিকরে। ঘটনার দিনও স্বামী সহ কয়েকজন আমার ভাগনীকে কু-প্রস্তাব দিলে, আশামনি নানীর বাড়ি দক্ষিণ জাল্লাবাদ চলে যায়। সেখান থেকে রাতে স্বামীর বাড়ি আসার সময় স্বামীসহ ৭-৮ জন মিলে রাস্তা থেকে তুলে নিয়ে আমার ভাগনীকে ধর্ষণ করে। এক দিন হাসপাতালে মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জালড়ে মৃত্যু বরণ করেছে।

গণধর্ষণ ও হত্যার অভিযোগে আশামনির মামা মোঃ জাহাঙ্গীর আলম বুধবার দুপুরে নিকলী থানায় স্বামীসহ সাতজনের নাম উল্লেখ করে ও অজ্ঞাত নামা কয়েজনের নামে একটি মামলা দায়ের করেন। এ মামলার পুলিশ বুধবার খবর পাওয়ান পর থেকে স্বামীসহ এজাহারভূক্ত চার আসামীকে গ্রেপ্তার করে। বুধবার বিকেলে কিশোরগঞ্জ ২৫০ শয্যা আধুনিক হাসপাতালে তার ময়না তদন্ত হয়। সেখানে তিন সদস্যের মেডিকেল টিম ঘটন করা হয়েছিল।

নিকলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মনসুর আলী আরিফ বলেন, গৃহবধূকে গণধর্ষণের দায়ে মৃত্যুর ঘটনায় তার মামার করা মামলায় স্বামীসহ চারজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। জড়িত অন্যান্যদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

Tahmina Dental Care

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2022 Onenews24bd.Com
Site design by Le Joe
%d bloggers like this: