শুক্রবার, ০১ জুলাই ২০২২, ১০:২০ অপরাহ্ন

নিকলীতে তিন চাকার ব্যাটারি চালিত অবৈধ রিক্সায় বাড়ছে দুর্ঘটনা

ওয়ান নিউজ 24 বিডি ডেস্ক
  • আপডেট সময় বুধবার, ১৩ ফেব্রুয়ারী, ২০১৯

দিলীপ কুমার সাহা :
নিকলীতে ৯৫ ভাগ তিন চাকার রিক্সাই এখন ব্যাটারি চালিত। এ অবৈধ রিক্সা পায়ে প্যাডেল মারতে হয় না ,চলে হাওয়ার বেগে। প্রযুক্তির এ ব্যবহারটি বিজ্ঞানসম্মত নয় বলে সচেতন মহল মনে করছে। স্থানীয় কারিগররা রিক্সার নিচের অংশের কাঠামোর সঙ্গে একটি ব্যাটারি ও মোটর যুক্ত করে আর কিছু খুচরা যন্ত্রাংশ দিয়ে রিক্সাগুলোকে অটোরিক্সায় রূপাস্তরিত করে দিচ্ছেন। রিক্সা চালাতে এখন আর বয়স বা চালকের শক্তি-সামথ্যের প্রয়োজন হয় না। সুইচ টিপে ধরলেই হাওয়ার বেগে চলতে শুরু করে এসব রিক্সা নিকলীর উপজেলার রাস্তাঘাট তুলনামূলক ভালো বলে হয়তো সেখানে ঝুঁকি কম থাকে। কিন্তু গ্রামের কাঁচা বা খানাখন্দে ভরা রাস্তা দিয়ে এসব দ্রতগতি সম্পন্ন রিক্সা মারাত্মক ঝুঁকিপূর্ণ। এই ব্যাটারিচালিত রিক্সা আকার, ওজন ও গতির সঙ্গে সামঞ্জস্যহীন। চালকরা যান্ত্রিক সুবিধা পেয়ে স্বাভাবিক গতির চেয়ে অতিরিক্ত গতিতে চলান। এতে অতিরিক্ত ঝাঁকুনি অনুভূত হয়। ঝাঁকুনির মাত্রা এত প্রবল হয়, সুস্থ মানুষ অসুস্থ হয়ে পড়ে। এ ছাড়া দ্রতগতিসম্পন্ন এই রিক্সা মোড় ঘোরানোর সময় প্রায়ই দুর্ঘটনার শিকার হয়।এ বিষয়ে নিকলী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক আব্দুল আল সাফি বলেন, কোনো যানবাহনের অসহনীয় ঝাঁকুনিতে মানুষের শরীরের মেরুদ-ের ক্ষতি হতে পারে। মেরুদণ্ডে সমস্যার চিকিৎসা অত্যন্ত জটিল ও ব্যয়বহুল। এ সমস্যার কারণে মানুষ কর্মক্ষমতা হারিয়ে ফেলতে পারে। জানা যায়, একটি রিকশা ব্যাটারিচালিত রিকশায় রূপান্তর করতে ২৫ থেকে ৩০ হাজার টাকার প্রয়োজন হয়। সারারাত ব্যাটারি চার্জ দিয়ে সারাদিন চালানো যায়। প্যাডেল মেরে রিক্সা চালিয়ে দিনে মাত্র ২০০-২৫০ টাকা রোজগার হতো। পরিশ্রম হতো বেশি। প্রয়োজন থাকলেও শারীরিক অক্ষমতায় রিক্সা চালানো যেত না। এখন কম পরিশ্রমে ভালোই রোজগার হয়। দিনে ৬০০-৭০০ টাকা আয় করা যায়। বিভিন্ন এনজিও থেকে ঋণ নিয়ে রিক্সাগুলো অটোরিক্সায় রূপান্তরিত করা হচ্ছে। এসব রিক্সার চালক বেশিরভাগই কিশোর বয়সের হওয়ায় অহরহ ঘটছে দুর্ঘটনা। এ রিক্সার সংখ্যা দিন দিন দ্রুতগতিতে বেড়ে যাচ্ছে। অবৈধ এসব যান চলাচল বন্ধ বা এর ওপর প্রশাসনের নিয়ন্ত্রণ দরকার বলে অনেকেই মনে করছেন। নিকলী সদর ইউনিয়নের কুমারছাড়া গ্রামের কৃষক ইসরাইল মিয়ার ছেলে মোঃ আল আমিন (১৩) যে বয়সে বই খাতা নিয়ে স্কুলে যাওয়ার কথা। সংসারের অভাবের কারণে সে বয়সেই শক্ত হাতে ধরতে হচ্ছে রিক্সার হ্যান্ডল ।গত সোমবার দুপুরে আল আমিন বলেন, আমার বয়সের ছেলেদের সঙ্গে স্কুলে গিয়ে পড়তে ইচ্ছা হয়। কিন্ত তিন ভাই ,দুই বোন বাবা-মাসহ আট সদস্যের সংসার বাবার একা চালাতে পারছে না। ভাইদের মধ্যে আমিই বড়। সংসারের অভাব দুর করার জন্য আমি রিক্সা চালিয়ে দৈনিক ৪৫০ থেকে ৫০০ টাকা রোজগার করে সংসারে দিয়ে বাবাকে একটু সাহায্য করছি। নিকলী উপজেলার সদর ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) চেয়ারম্যান কারার শাহরিয়া আহমেদ তুলিপ বলেন, আমি কয়েক বার উপজেলা আইন শৃঙ্খলা সভায় ওই ব্যাটারি চালিত রিকসা বন্ধের জন্য দাবি করেছি। কিন্ত প্রসাশন কোনো উদ্যোগ নেয় না। এদিকে অবৈধ এ রিক্সা চলাচলে বিদ্যুতের প্রচুর অপচয় হচ্ছে। অন্যদিকে এক শ্রেণীর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির স্থানীয় কর্মকর্তা-কর্মচারীদের পকেট ভারি হচ্ছে।
নিকলী পল্লী বিদুৎ কার্যালয়ের প্রধান লাইনম্যান মোজাম্মেল হোসেন টাকা নিয়ে পকেট ভারি করার বিষয়টি অস্বিকার করে বলেন, যেসব ব্যাটারি চালিত রিক্সা আবাসিক কোনো মিটার থেকে চার্জ করে। আমরা সেসব মিটারের মালিকদের বিল বাণিজ্যিকভাবে ধরে থাকি।
পল্লী বিদ্যুৎ কটিয়াদী আঞ্চলিক অফিসের ডিজিএম বলেন, চালকরা রিকশার ব্যাটারিগুলো গভীর রাতে বিভিন্ন মিটার থেকে বিদ্যুৎ চার্জ দিয়ে থাকেন। অনেক সময় মেইন লাইন থেকে অবৈধভাবে লাইন নিয়ে ব্যাটারি চার্জ করা হয়। আমরা মাঝে মধ্যে অভিযানে নেমে জরিমানাও করি। এ ব্যাপারে নিকলীতে একটি টিম করে দেওয়া হয়েছে। এগুলো রোধ করার জন্য। বিকল্প ব্যবস্থা না করে এগুলো নিয়ন্ত্রণে আনা খুবই কঠিন।

Tahmina Dental Care

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2022 Onenews24bd.Com
Site design by Le Joe
%d bloggers like this: