রবিবার, ২৬ জুন ২০২২, ১১:০৪ অপরাহ্ন

নিকলীতে ধান চাষে লোকসান হওয়ায় চাষিরা ঝুঁকছে ভুট্টা চাষে

ওয়ান নিউজ 24 বিডি ডেস্ক
  • আপডেট সময় মঙ্গলবার, ৮ জানুয়ারী, ২০১৯

দিলীপ কুমার সাহা:
গত পাচঁ বছর ধরে বোরো চাষে উৎপাদন খরচ বেশি ও ফলন কম। ধানের দাম কম হওয়ায় কিশোরগঞ্জের নিকলী উপজেলায় এবার অনেক বোরো ধানের কৃষক ধানের চাষ কমিয়ে অধিক লাভের আশায় ভুট্টার আবাদ বেশি করেছে।
উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা মো: গোলাম মোস্তফা বলেন, বোরো ধানের আবাদ কমে গিয়ে বেড়েছে ভুট্টার আবাদ। গত তিন বছর উপজেলায় ভুট্টা চাষ হয়েছিল ৩৫০ হেক্টর জমিতে। এবার বেড়ে ২ হাজার ১৫ হেক্টর জমিতে ভুট্টার আবাদ হয়েছে।
উপজেলার সাতটি ইউনিয়নের ঘোড়াদীঘা, টেংগুরিয়া, সিংপুর, ভাটিবরাটিয়া, বরুলিয়া, কাচিকাটা, পাগলারচর, পরাইনারচর, দীঘলারচর, ছাতিরচর, মাধাইনগর হাওরে প্রায় ৫০ জন কৃষকের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, বোরো ধানের আবাদ করে কোনো রকমে উৎপাদন খরচ উঠলেও গত পাঁচ বছর ধরে তাদের কোনো লাভ হচ্ছে না। ঘোড়াদীঘা গ্রামের রইস মিয়া, স্বপন মিয়া, সিংপুর গ্রামের সুনামউদ্দিন মিয়া, মনিক মিয়া, ভাটিবরাটিয়া গ্রামের সুলতান মিয়া, কাইয়ুম মিয়া, নিকলী নগর গ্রামের কাঞ্চন মিয়া, মীরহাটির শাজাহান মিয়াসহ অনেক কৃষক জানান, বোরো আবাদের সময় ধানের বীজ , বীজতলা তৈরি, সার, কৃষি শ্্রমিক, কীটনাশক,জমিতে পানি দেওয়া, ধান কাটা ও ধান মাড়াই মিলে প্রতি একরে (১০০শতাংশ) খরচ হয় ৩৩ থেকে ৩৫ হাজার টাকা। একর প্রতি ধানের ফলন হয় ৬৫ থেকে ৭৫ মণ। ওই ৭৫ মণ বোরো ধান বাজার দরে বিক্রি করে পাওয়া যায় ৪০ হাজার টাকা। ঘোড়াদীঘা গ্রামের হাদিস মিয়া বলেন, গত বোরো মৌসুমে আমার ১০ একর জমিতে বোরো ধানের ফলন হয়েছে ৬০০ মণ। বৈশাখ মাসে বাজার দরে বিক্রি করে পেয়েছি ৩ লাখ ৩০ হাজার টাকা। ১০ একর বোরো জমিতে ধান ফলাতে উৎপাদন খরচ হয়েছে ৩ লাখ ৫০ হাজার টাকা। আমার লোকসান হয়েছে ২০ হাজার টাকা। সে কারণে আমি এবার বোরো ধানের জমিতে ভুট্টার আবাদ করেছি।
সিংপুর ইউনিয়নের ঘোড়াদীঘা গ্রামের কৃষক স্বপন মিয়া বলেন, কয়েক বছর ধরে বোরো ধানের চাষ করে আমিসহ এলাকার কৃষকরা লোকসান গুনছে। এ বছর আমার ১০ একর ধানের জমিতে ভুট্টা চাষ করেছি। প্রতি একরে ৯০ মণ করে ভুট্টা হবে আশা করছি। সব খরচ বাদ দিয়েও তিন লাখ টাকা লাভ হবে। আমার মতো এলাকার অনেক কৃষক তাদের ধানের জমিতে ভুট্টা চাষ করেছেন।
সিংপুরগ্রামের কৃষক সুনামদ্দিন মিয়া বলেন, ভুট্টা চাষে লাভ বেশি। কারণ ভুট্টা ধানের একমাস আগে তোলা যায়,এ সময় কৃষি শ্্রমিকের মজুরি থাকে কম।
এ উপজেলায় বাণিজ্যিকভাবে মৎস্য চাষ , লেয়ার ও ব্রয়লার মুরগির ফার্ম ও গরু মোটা-তাজাকরণের জন্য স্থানীয়ভাবেও ভুট্টার ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। এ ছাড়াও দেশের বিভিন্ন ফিড মিলের মালিকরা ভুট্টা তোলা হলে প্রতিদিন ১০থেকে ১৫ ট্রাক ভুট্টা নিকলী থেকে নিয়ে যাচ্ছে।
নিকলী উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মুহাম্মদ হারুন অর রশীদ বলেন, ধান চাষের চেয়ে ভুট্টা চাষে খরচ কম লাভ হয় বেশি। সে কারণে স্থানীয় কৃষকরা অর্থনৈতিকভাবে বেশি লাভের কথা চিন্তা করেই বেশি করে ভুট্টা চাষে আগ্রহী হয়েছে। বোরো ধানের চাষ করে চাষিরা লাভের মুখ না দেখায় এ বছর ২ হাজার ১৫ হেক্টর জমিতে ভুট্টা আবাদ হয়েছে।

Tahmina Dental Care

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2022 Onenews24bd.Com
Site design by Le Joe
%d bloggers like this: