সোমবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৩:২৭ অপরাহ্ন

নিকলীতে নারী দিবসে ইউএনও হস্তক্ষেপে বাল্যবিয়ের থেকে রক্ষা পেল দশম শ্রেনীর ছাত্রী

ওয়ান নিউজ 24 বিডি ডেস্ক
  • আপডেট সময় শুক্রবার, ৮ মার্চ, ২০১৯

 

দিলীপ কুমার সাহা:
নিকলী শুক্রবার (৮ মার্চ ) রাতে কিশোরগঞ্জের নিকলী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) হস্তক্ষেপে নারী দিবসে বাল্যবিয়ের থেকে রক্ষা পেয়েছে দশম শ্রেণিতে পড়ুয়া এক ছাত্রী। সে নিকলী জারুইতরা উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্রী এবং জারুইতলা ইউনিয়নের দক্ষিণ জাল্লাবাদ গ্রামের সুবুজ মিয়ার মেয়ে।
উপজেলা প্রসাশন সূত্র জানান, শুক্রবার বিকেলে নিকলী জারুইতলা উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির এক ছাত্রীর বাল্যবিয়ের আয়োজন করা হয়। সন্ধ্যার পর বর আসছে। গোপন সূত্রে খবর নিকলী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ও নির্বাহী হাকিম মুছাম্মৎ শামীমা আক্তার।
মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা শামসুর নাহার তাসমিন, স্থানীয় সরকার বিভাগের ইউ ডি এফ দূর্গা রানী সাহা ও থানা পুলিশকে সঙ্গে নিয়ে ইউএনও উপস্থিত হন উপজেলা জারুইতলা ইউনিয়নের দক্ষিণ জাল্লাবাদ গ্রামের সুবুজ মিয়ার ওই ছাত্রীর বাড়িতে। ছাত্রীর বাবা -মাকে ডেকে এনে এ বাল্যবিয়ে বন্ধ করে দেন। এবং উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ও নির্বাহী হাকিম মুছাম্মৎ শামীমা আক্তার বাল্যবিয়ের কবল থেকে রক্ষা করেন দশম শ্রেনীর পড়ুয়া ছাত্রীটিকে। পরে ভ্রাম্যমান আদালত বসিয়ে বাল্যবিয়ে দেওয়ার চেষ্টার দায়ে ছাত্রীটির বাবা সুবুজ মিয়াকে ২ হাজার টাকা জরিমানা করেন। এবং ১৮ বছরের আগে বিয়ে দিবেনা মর্মে মুছেলেখা নেন। খবর পেয়ে বর পক্ষ বিয়ে করতে না এসে রাস্তায় থেকেই পালিয়ে যায়।
জারুইতলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কামরুল ইসলাম মানিক জানান, দশম শ্রেনীর ওই ছাত্রীর বিয়ের খবর পাওয়ামাত্রই ইউএনও স্যারকে জানাই। নিজেও উপস্থিত থাকি। নিকলী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ও নির্বাহী হাকিম মুছাম্মৎ শামীমা আক্তার বলেন, আশা করছি এমন ভাবে প্রতিটি ইউনিয়নে পদক্ষেপে নিলে নিকলী উপজেলায় বাল্যবিয়ে শূণ্য কোটায় নেমে আসবে।

Tahmina Dental Care

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2022 Onenews24bd.Com
Site design by Le Joe
%d bloggers like this: