বৃহস্পতিবার, ০৬ অগাস্ট ২০২০, ০৬:৫৭ পূর্বাহ্ন

নিকলীর হাওরের পর্যটন এলাকায় পর্যটক ও যানবাহন চলাচল নিষিদ্ধ

ডেস্ক নিউজ
  • আপডেট সময় বৃহস্পতিবার, ১৬ জুলাই, ২০২০
  • ২৬৬ বার পড়া হয়েছে

নীল জলরাশি। উত্তাল ঢেউ। চারদিকে শুধু পানি আর পানি। দূরের একেকটি গ্রাম যেন মনে হয় একটি দ্বীপের মতো। দিগন্ত বিস্তৃত জলের বুকে ভাসছে পালতোলা নাও। বক, পানকৌড়িসহ নানা প্রজাতির পাখির উড়াউড়ি। হাওরে ট্রলারে যেতে যেতে হঠাৎ চোখে পড়বে জেলেদের মাছ ধরার ছোট ছোট ডিঙি নৌকা। ঢেউয়ের গর্জন। ক্ষণে ক্ষণে আকাশও রঙ বদলায় । সামনে যতদূর চোখ যায় শুধু পানি আর পানি।

 

কিশোরগঞ্জের নিকলীর হাওরের বুকচিরে বয়ে গেছে সুপ্রসস্ত উঁচু পাকা সড়ক। সড়কের দুই পাশে থৈ থৈ পানি। মাঝখান দিয়ে বয়ে গেছে পিচঢালা পাকা সড়ক। খানিক পর পর মনকাড়া সেতু! উঁচু থেকে দেখতে মনে হবে উত্তাল জলের উপর দিয়ে কালো মসৃণ কার্পেট বিছিয়ে কৃত্রিমভাবে এমন রাস্তা বানানো হয়েছে!

হাওর উপজেলা নিকলী ৫ কিলোমিটার বেড়িবাধঁ ও নির্মাণ কাজ অসমাপ্ত রাষ্ট্রপতি আব্দুল হামিদ নিকলী-কিশোরগঞ্জ সড়ক অলওয়েদার রোড বা সারা বছর চলাচল উপযোগী পাকা রাস্তাটি বদলে দিয়েছে হাওরের চেহেরা। এমনিতে প্রতি বছর বর্ষায় নিকলী পর্যটকদের ঢল নামে। এবার বর্ষায় হাওর উপজেলাকে আগের সব ইতিহাস ভেঙে দিয়েছে। পানির মাঝখান দিয়ে প্রশস্ত সড়কে দ্রুতগতিতে চলছে মোটরসাইকেল। মাথার উপরে বর্ষার সাজে আকাশ। দুই পাশে নীল জলরাশি। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এমন ছবি দেখে দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে দলে দলে ছুটে আসছে মানুষ। বিশেষ করে আবাল, বৃদ্ধ, কিশোর,যুবকেরা বেপরোয়া গতিতে গাড়ি ও মোটরসাইকেল হাঁকিয়ে ছুটে আসছেন হাওর দেখতে। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে বেরিয়ে পড়ছেন নৌকায় করে। করোনা মহামারিতেও অনেকে মানছেন না স্বাস্থ্যবিধি।

 

করোনা মহামারির কারণে এবার নিকলীর হাওরে বাইরের পর্যটকদের ভ্রমণ কঠোরভাবে নিয়ন্ত্রণ করা হচ্ছে। কিন্তু প্রশাসনের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে হাওরের পর্যটন স্পটে বহিরাগত পর্যটকদের ঢল নামছে। পর্যটকদের আগমন ঠেকাতে পুলিশ ও প্রশাসনকে হিমশিম খেতে হচ্ছে। মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করেও পরিস্থিতি সামাল দেয়া যাচ্ছে না। প্রশাসনের নির্দেশ না মেনে হাওরের উত্তাল জলে অবাধে ঘুরতে গিয়ে বিপদের সম্মুখীন হচ্ছে অনেকে। এমন কী প্রাণও হারিয়েছেন। এ অবস্থায় হাওরের পর্যটন এলাকাতে বাইরের লোকজনকে গাড়ি ও মোটরসাইকেল নিয়ে যাওয়া এবং হাওরে ঘোরা কঠোরভাবে নিয়ন্ত্রণের উদ্যোগে নিয়েছে উপজেলা প্রশাসন। পর্যটকদের ভ্রমণ কঠোরভাবে নিয়ন্ত্রণের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। এ লক্ষ্যে পর্যটন এলাকায় প্রবেশের সড়কগুলোতে তল্লাশি চৌকি বসিয়েছে পুলিশ।

 

এ ছাড়া বিভিন্ন এলাকায় মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও সহকারী কমিশনার(ভ’মি ) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটরা।
জানা গেছে, প্রতি বছর বর্ষা মওসুমে হাওর উপজেলা নিকলীর ঘোড়াউত্রা ও সোয়াইজনি নদীর তীরে বেড়িবাঁধে, দেশের বিভিন্ন এলাকার হাজার-হাজার পর্যটক ভিড় করে। তবে এবার করোনা মহামারির জন্য হাওরে পর্যটকদের ভ্রমণ নিয়ন্ত্রণ করা হয়েছে।

 

প্রশাসনের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করেও স্বাস্থ্যঝুঁকি নিয়ে কিশোরগঞ্জের নিকলীর হাওরে ভিড় করছেন অসংখ্য পর্যটক। প্রশাসনের নানা উদ্যোগেও ঠেকানো যাচ্ছে না পর্যটকদের। আশপাশের মানুষ ছাড়াও দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে গাড়ি নিয়ে বেড়িবাঁধ এলাকায় হাওরের পানিতে ঘুরতে আসছেন তারা। অনেকে মানছেন না স্বাস্থ্যবিধি। এতে এলাকায় বাড়ছে করোনা ঝুঁকি।

 

হাওরের প্রবেশদ্বার হিসেবে পরিচিত কিশোরগঞ্জের নিকলী উপজেলা। ঘোড়াউত্রা নদীর তীর ঘেষে নির্মিত প্রায় ৫ কিলোমিটার গ্রাম প্রতিরক্ষা বাঁধের এক পাশে বিস্তীর্ণ হাওর। প্রতি বছর বর্ষায় হাওরের সৌন্দর্য উপভোগ করতে এখানে ভিড় করে পর্যটকরা।
নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে প্রতিদিন গিয়ে বেড়িবাধেঁর ঘোড়াউত্রা নদীর পানিতে সাঁতার কাটছেন শত শত পর্যটক। ঢাকা, নারারায়ণগঞ্জ, গাজীপুরসহ অনেক রেডজোন এলাকা থেকে ও গাড়ি হাঁকিয়ে লোকজন আসছেন হাওরের টানে।

 

ছোট ছোট নৌকা নিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছেন বর্ষার পানিতে। স্বাস্থ্যবিধি না মেনে অনেকেই ঘুরছেন অপরিচিত মানুষের সাথে।পর্যটকরা জানালেন, দীর্ঘ লকডাউনে ঘরে বন্দি জীবন থেকে একটু নির্মল আনন্দ পেতেই নিষেধ অমান্য করে ঝুঁকির মধ্যে তারা ছুটে এসেছেন হাওরে। নিকলীতে প্রবেশের একমাত্র পথ কিশোরগঞ্জ-নিকলী সড়কের কয়েকটি স্থানে তল্লাশি চৌকি বসিয়েছে পুলিশ।

 

প্রবেশমুখে প্রতিদিন চলছে মোবাইল কোর্ট। তবু থামানো যাচ্ছে না পর্যটকদের স্রোত। এ অবস্থায় আরও কঠোর পদক্ষেপ নেয়ার কথা জানালেন, নিকলী প্রশাসনের এ শীর্ষ কর্মকর্তা। ১৯৯৭ সালে নিকলী উপজেলা সদর থেকে মোহরকোনা পর্যন্ত ৫ কিলোমিটার বেড়িবাঁধ নির্মাণ করা হয়।কযেক বছর যেতে না যেতেই বেড়িবাঁধ এলাকাটি হয়ে উঠে পর্যটকদের কাছে একটি আকর্ষণীয় স্পট। প্রতি বছর এখানে নৌকা বাইচ অনুষ্ঠিত হয়।

 

নিকলী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সামছুদ্দিন মুন্না জানান, করোনা মহামারিতে দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে দলে দলে পর্যটকরা চুরি করে হাওরে আসছেন। নিষেধাজ্ঞা না মেনে তারা হাওরে অবাধে ঘুরছেন। মাস্ক পড়ছেন না। মানছেনা স্বাস্থ্যবিধি। যেখানে-সেখানে খাওয়া-ধাওয়া করছেন, অপরিচিত লোকজনের সাথে মিশছেন। এতে করোনাভাইরাস হাওরে আরও ব্যাপক হারে ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। শত শত পর্যটক মোটরবাইক নিয়ে আসায় দুর্ঘটনার আশঙ্কা বেড়েছে। সাঁতার না জানায় এরই মধ্যে পানিতে ডুবে একজন মারা গেছেন।

 

 

এমন পরিস্থিতিতে হাওরে বাইরের পর্যটকদের ভ্রমণ নিরুৎসাহি ও কঠোরভাবে নিয়ন্ত্রণ করা হচ্ছে।নিকলী-বাজিতপুর নির্বাচনী এলাকার সংসদ সদস্য ও উপজেলা করোনাভাইরাস প্রতিরোধ কমিটি প্রধান উপদেষ্টার পরার্মশক্রমে। ওই কমিটি এলাকায় মাইকিং করছে। ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা, রাস্তায় পুলিশি চেকপোস্ট বসানো ও নৌকা,মোটরসাইকেল এবং গাড়ি নিয়ে কাউকে উপজেলা প্রশাসন হাওরে প্রবেশ করতে দিচ্ছে না।

নিউজটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2020 Onenews24bd.Com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com