শুক্রবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ১২:২২ অপরাহ্ন

নিকলীর হাওরের মানুষ বর্ষার পাচঁ মাস বেকার

দিলীপ কুমার সাহা
  • আপডেট সময় বৃহস্পতিবার, ২২ আগস্ট, ২০১৯
  • ৬৮৩ বার পড়া হয়েছে

কিশোরগঞ্জের হাওরবেষ্টিত উপজেলা নিকলী-মিঠামইন ও ইটনার হাওরজুড়ে এখন থৈ-থৈ পানি। যেদিকে চোখ যায় পানিতে টইটম্বুর। পানিবেষ্টিত হাওরের শতকরা ৮০ শতাংশ মানুষ কৃষিজীবি । বর্ষার সময়ে কোনো কাজ থাকে না হাওরের ওই ৮০ শতাংশ কৃষক মানুষের। শুষ্ক মৌসুমে তুমুল ব্যস্ত হাওরবাসীর বর্ষায় পাঁচ মাস কাটে বেকার সময়।

 

কাজ না থাকায় এ এলাকার ছেলে-বুড়ো প্রায় সবাই সময় কাটায় বাড়ির উঠানে তাস কিংবা ক্যারম খেলে। উঠতি তরুণ-যুবক ও বয়স্করা বিকেলে যান গ্রামের ছোট-ছোট বাজারে। স্থানীয় এসব বাজারে বিকেল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত চলে তাদের আড্ডা ও সিডিতে সিনেমা দেখা।

 

বর্ষার দিনগুলোতে সন্ধ্যায় ও রাত্রিতে তাই হাওরের গ্রামীণ বাজার হয়ে ওঠে জমজমাট। বিশেষ করে বাজারে চায়ের দোকানগুলো থাকে মানুষে ঠাঁসা। এসব দোকানে চা-বিড়ি কিংবা পানের সঙ্গে চলে বাংলা সিনেমা দেখা। সরেজমিন সম্প্রতি হাওরের বিভিন্ন এলাকা ঘুরে এমন চিত্র দেখা গেলে।

 

জেলা পরিসংখ্যান অফিস সূত্র জানায়, নিকলী উপজেলায় ৭টি ইউনিয়ন (নিকলী সদর, সিংপুর , দামপাড়া , কারপাশা , জারুইতলা , গুরুই ও ছাতিরচর), মিঠামইন উপজেলায় ৭টি ইউনিয়ন (মিঠামইন সদর, গোপদীঘি, ঢাকী, ঘাগড়া, কেওয়ারজোড়, কাটখাল ও বৈরাটি) ও ইটনা উপজেলার ৮টি ইউনিয়ন (ইটনা সদর, বড়িবাড়ী, বাদলা, চৌগাংগা, এলংজুরী, মৃগা, ধনপুর ও রায়টুটী) নিয়ে হাওর গঠিত। এই ২২টি ইউনিয়নের জনসংখ্যা মোট ৪ লাখ ১২ হাজার ৩৭৫ জন।

 

এলাকার বিভিন্ন শ্রেণির পেশার লোকজনের সঙ্গে কথা বলে জানা যায় , হাওরের মানুষের ব্যস্ত সময় কাটে (কার্তিক মাস থেকে বৈশাখ মাস)। এ সময়টাতে জমিতে ধান রোপণ, জমির পরিচর্যা ও ধান কেটে শুকিয়ে বাড়ির গোলায় তোলতে ফুসরত মেলেনা তাদের। এ সাত মাস সূর্য উদয়-অস্ত পরিশ্রম আর ব্যস্তস্থাকে ঘিরে রাখে হাওরবাসীকে। কিন্তু ঘরে ধান তোলা শেষ হওয়া মাত্রই হঠাৎ করেই বেকার হয়ে যায় হাওরের লোকেরা। এরপর তাদের আর তেমন কোনো কাজ থাকেনা। এ সময়ে মাঠে বর্ষার পানি আসতে থাকায় এ বেকারত্ব আরো বৃদ্ধি পায়। কেউ কেই বেকারত্ব ঘোঁচাতে পাড়ি জমায় রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন শহরে। আবার বর্ষার পর গ্রামে ফিরে আসে।

 

হাওরের বিভিন্ন গ্রাম ও বাজার ঘুরে দেখা গেলো, অবসর সময় কাটাতে অধিকাংশ বাড়িতেই উঠোনে পাটি বিছিয়ে তরুণ থেকে শুরু করে বয়স্করা তাস খেলছে। অনেকেই আবার বাড়ির সামনের দোকানে তাস বা ক্যারম খেলে কেউ কেউ গল্পে করে সময় কাটাচ্ছে।

 

বিকেলের পর থেকেই দ্বীপের মত ভাসমান বাজারের দোকানে ও আশেপাশে বসে জমজমাট আড্ডা। রাত বারটা পর্যন্ত বাজারের চায়ের দোকানে গুলোতে চলে সিডিতে বাংলা সিনেমা দেখার ধুম। কথা হয় সিংপুর ইউনিয়নের ভাটিবরাইটিয়া গ্রামের সুলতান মিয়ার (৩৩) সঙ্গে। পেশায় জেলে সুলতান মিয়া জানান, ‘নদীতে মাছ নাই জাল বাইব কেমনে, তাই আমরা আজাইরা মানুষ (বেকার)। আজাইরা থাকতে ভালা লাগে না। তাস খেলে সময়টা খাটায়।

 

ঘোড়াদীঘা গ্রামে চায়ের দোকানে বসে থাকা রইস মিয়া (৩২) নামে এক সিনেমা দর্শক জানান, ‘কিতা করুম? ঘরে বসে দিনটা তো যায় না। তাই সিনেমা দেখেই সময় কাটাই। এদিকে, বাড়ির পুরুষদের মতো বেকার থাকা নারী ও মেয়েদের সময় কাটে বাড়িতে লুডু খেলে। কেউ কেউ বাড়ির পাশে হাওরের পানিতে বড়শি দিয়ে মাছ ধরে।

 

দামপাড়া ইউনিয়নের বরকান্দা গ্রামের গৃহবধু জুনু আক্তার (৪৮) নামে এক গৃহবধূ জানান, ধানের মৌসুমে মানুষের ক্ষেতে কাজ করে দিন কেটে যায়। কিন্তু বর্ষায় দিন কাটতে চায় না। তাই বড়শি দিয়ে মাস ধরে সময় ও খাটায় সংসারের মাছের অভাবও দুর হয়। নিকলী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সামছুদ্দিন মুন্না বলেন, হাওরের মানুষ মূলত মৌসুমী বেকার।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2020 Onenews24bd.Com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com