সোমবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৩:৫৫ অপরাহ্ন

নিকলী উপজেলার উন্নয়নে জনগণ খুশি, নাখোশ দলীয় কিছু নেতাকর্মীর আচরণে

ওয়ান নিউজ 24 বিডি ডেস্ক
  • আপডেট সময় শনিবার, ৯ মার্চ, ২০১৯
নিকলী উপজেলার ভোটারদের ভাবনা

 

দিলীপ কুমার সাহা:
কিশোরগঞ্জের নিকলী উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ভোটারদের ভাবনা নিকলী উপজেলার উন্নয়নে জনগণ খুশি, নাখোশ দলীয় কিছু নেতাকর্মীর আচরণে। এই সরকার অনেক উন্নয়ন করছে । দেশে অহন অভাব নাই। কাম করলে ভাতের কষ্ট নাই। তবে কিছু কিছু নেতাকর্মীর আচার-আচরণের লাইগ্যা অনেক মানুষ অখুশি।’ সামনের পঞ্চম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের ভোট নিয়ে কী ভাবছেন জানতে চাইলে এভাবেই সোজা-সাপ্টা জবাব দেন নিকলী সদরের বাসিন্দা রিকশা চালক ইয়াসিন মিয়া। জারইতলা ইউনিয়নের বাসিন্দা কামাল হোসেনের বক্তব্য প্রায় একই রকম। তিনি বলেন, ‘মানুষ সরকারের উন্নয়নে খুশি। কিন্তু আশপাশের সরকারি দলের কিছু নেতাকর্মীর কারণে অসন্তুষ্ট।
উপজেলার বিভিন্ন এলাকার অনেক সাধারণ ভোটারের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, সরকারের উন্নয়ন কর্মকা- নিয়ে জনগণের মধ্যে কোনো দ্বিমত নেই। বিশেষ করে বিদ্যুৎ ব্যবস্থা ও তথ্য-প্রযুক্তির উন্নয়ন, শিক্ষা ,স্বাস্থ্য, কৃষি উৎপাদন বাড়ানো, শিল্প-কারখানার প্রসার, দেশের টাকায় পদ্মা সেতু নির্মাণসহ ইত্যাদি বিষয়ে সরকারের সাফল্য প্রত্যন্ত এলাকার সাধারণ ভোটাররা অবলীলায় স্বীকার করে। তবে বেশির ভাগ ভোটারই নিজ এলাকার ক্ষমতাসীন দলীয় কোনো না কোনো নেতার কর্মকা-ে অসন্তুষ্টির কথা জানায়।
সিংপুর ইউনিয়নের কাবিল সর্দার বলেন, দেশ অনেক এগিয়েছে। মানুষ লেখাপড়া শিখছে। শিক্ষার হার বাড়ছে। গ্রামেও এখন স্কুল-কলেজ গড়ে উঠছে। গ্রামে অভাব কমছে। কৃষকরা সচেতন হয়ে নানা জাতের শাক-সবজি চাষ করছে। গড়ে উঠেছে মাছ ও মুরগির খামার। এসবই সরকারের ভালোর দিক। কিন্তু এলাকায় দলের নামে কিছু নেতাকর্মী অনেক অপকর্মও করছে। ভয়ে লোকজন এদের কিছু বলে না। ভোট দেওয়ার কালে এসব বিষয় ভোটাররা বিবেচনায় নিতে পারে।
দামপাড়া ইউনিয়নের একজন বাসিন্দা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, তাঁর এলাকায় যারা অপকর্ম করে তাদের অনেকেই সরকারি দলের নাম ভাঙায়। এদের নিয়ে তাঁরা ভয়ে থাকেন। এদের দাপট দেখে মানুষ বিস্ময় প্রকাশ করে। স্থানীয় আরো একাধিক ভোটার বলে, তারা দলকে ভালোবাসে। কিন্তু বিতর্কিত অনেক নেতাকর্মীর আচরণে তারা হতাশ। এসব ঘটনা ভোটে প্রভাব ফেলবে বলে তারা মনে করে
গুরুই ইউনিয়নের কয়েকজন বাসিন্দার নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ক্ষমতাসীন দলের অনেক পুরনো ও নিবেদিতপ্রাণ কর্মীও ক্ষিপ্ত হয়ে আছে স্থানীয়ভাবে সমালোচিত অনেক নেতাকর্মীর ওপর।ওই এলাকার আওয়ামী লীগের মধ্যম সারির কয়েকজন নেতা বলেন, এমন অনেকে এখন দলের সঙ্গে যুক্ত হয়েছে যাদের মন থেকে মেনে নেওয়া যায় না। এদের ‘ভাবসাবই’ দলের জন্য কাল হতে পারে। অনেক ভালো নেতারও বদনাম হচ্ছে শুধু এদের কারণে।দলের দুঃসময়ে এদের পাওয়া যাবে না।
ছাতিরচর ইউনিয়নের একজন বিশিষ্ট ব্যক্তি বলেন, বর্তমানে ওই ইউনিয়নের বেশির ভাগ ভোটার নৌকার সমর্থক। কিন্তু ওই গ্রামেই সরকারি দলের দু-একজন নেতাকর্মীর আচরণে মানুষ রীতিমতো বিরক্ত। নৌকার সমর্থক হলেও লোকজন নির্বাচনে নৌকার প্রার্থীর পক্ষে কতটুকু সরব হবে বলা কঠিন। এবং তিনি খারাপ লোকজনের সান্নিধ্য বাদ দিতে হবে। খারাপ লোকগুলো প্রার্থীর সঙ্গে থাকলে মানুষ শেষমেশ ওই প্রার্থীকে ভোট নাও দিতে পারে। তিনি আরো বলেন, বর্তমান সরকার নারীদের জন্য অনেক কিছু করেছে। কিন্তু সরকারের সেই সাফল্য নষ্ট করে দিচ্ছে কিছু নেতাকর্মীর আচরণ।
কারপাশ ইউনিয়নের বাসিন্দার ভোটার আব্দুল আলী বলেন, ‘অনেক ব্যানারে গুরত্ব¡পূর্ণ নেতাদের ছবির সঙ্গে সমালোচিত ব্যক্তিদের ছবি থাকে। এগুলো মানুষ ভালোভাবে নেয় না। এসব ব্যাপারে নেতাদের সতর্ক হওয়া উচিত।মজলিশপুর এলাকার ভোটার নুর হোসেন বলেন, সরকারের অনেক সাফল্য নষ্ট হচ্ছে কিছু নেতাকর্মীর বাড়াবাড়ির কারণে। এসব বিতর্কিত লোকের বিরুদ্ধে দল ও প্রশাসন ব্যবস্থা নিলে সরকারের ইমেজ বাড়বে। সরকারের প্রতি মানুষের আস্থা সৃষ্টি হবে।

Tahmina Dental Care

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2022 Onenews24bd.Com
Site design by Le Joe
%d bloggers like this: