বুধবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৬:৩২ পূর্বাহ্ন

নিকলী-গুরুই সড়কের বেহাল দশা, চলাচলে ভোগান্তি

ওয়ান নিউজ 24 বিডি ডেস্ক
  • আপডেট সময় মঙ্গলবার, ১১ ডিসেম্বর, ২০১৮
  • ২৮৬ বার পড়া হয়েছে

দিলীপ কুমার সাহা
নিকলী-গুরুই পাকা সড়কটির দৈর্ঘ্য মাত্র সাড়ে পাঁচ কি.মি। দীর্ঘদিন ধরে সংস্কার না হওয়ায় এই সড়ক জুড়ে তৈরী হয়েছে অসংখ্য গর্ত । গর্ত ছাড়া যেটুকু সড়ক অবশিষ্ট রয়েছে সেটুকুও ভাঙা । সড়কের ঢালাই উঠে গেছে। ভিতর থেকে বের হয়ে এসেছে বালু । দেখলে মনে হয় যেন এটি কোনো বালু মাটির রাস্তা? এতে করে নিকলী উপজেলা সদরের সঙ্গে গুরুই ও ছাতিরচর এই দুই ইউনিয়নের প্রায় ১০ হাজার মানুষ চলাচলের সময় চরম ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন।
স্থানীয় কয়েকজন জানান, সড়কটি সংস্কারের অভাবে প্রতিনিয়ত সমস্যায় পড়তে হচ্ছে গুরুই ও ছাতিরচর ইউনিয়নের বাসিন্দাদের। ওই দুই ইউনিয়নের লোকজনের সদরের সঙ্গে যোগাযোগের একমাত্র সড়ক এটি। সড়কের এই বেহাল দশার কারনে এখন নিকলী সদরে আসতে সময় বেশি লাগার পাশাপাশি টাকাও খরচ হচ্ছে বেশি। ছাতিরচর ও গুরুই ইউনিয়নের মানুষ শুকনা মৌসুমে নৌকা ছাড়া সড়ক পথে চলাচলের জন্য নিকলী সদর ও কিশোরগঞ্জ জেলা সদরে যাতায়াতে এই সড়কটি ব্যবহার করে।
কিন্তু সড়কে অসংখ্য গর্ত ও ভাঙা থাকায় প্রায়ই ঘটছে দুর্ঘটনা। ফলে ঝুঁকি নিয়ে এ সড়ক দিয়ে চলতে হচ্ছে যাত্রীদের। এছাড়া যানবাহনের যন্ত্রপাতিরও ক্ষতি হচ্ছে। বৃষ্টির সময় সড়কের গর্তে পানি জমে দুর্ভোগ আরও বেড়ে যায়। নিকলী-গুরুই সড়কের পাশে রয়েছে গুরুই ইউনিয়ন স্বাস্থ্যসেবা কেন্দ্র। ওই কেন্দ্রে প্রতিদিন শতাধিক রোগী আসেন। গুরুই ইউনিয়নের অনেক কলেজ পড়ুয়া ছাত্র-ছাত্রী আসেন নিকলী সরকারী মুক্তিযোদ্ধা আদর্শ কলেজে।
এছাড়াও গুরুই সড়কের ডান পাশে রয়েছে নারায়ণ গোস্বামীর আখড়া। ওই আখড়ায় প্রতিদিন কয়েক’শ ভক্ত-বৃন্দ আসা-যাওয়া করেন। আরো রয়েছে গুরুই ইউনিয়নের খান বাহাদুর উলু খানের মসজিদ। এটি দেখার জন্য বিভিন্ন এলাকা থেকে লোকজন আসেন। সড়কে দুরবস্থার কারণে প্রতি মুহূর্তে ভোগান্তি পোহাতে হয় দুই ইউনিয়নের জনগণকে।
ছাতিরচর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. জামাল উদ্দিন ও গুরুই ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো.তাহের উদ্দিন বলেন , একই সুরে বলেন, সড়কটি দীর্ঘ দিন ধরে সংস্কার না হওয়ায় দুইটি ইউনিয়নের লোকজন উপজেলা সদরের সাথে যোগাযোগ করতে মারাত্মক ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন। এই সড়কটি শুকনা মৌসুমে এই দুই ইউনিয়নের জনগণের চলাচলের একমাত্র রাস্তা হওয়ায় জীবনের ঝঁকি নিয়ে মানুষ এ সড়ক দিয়ে চলাচল করতে বাধ্য হচ্ছে।
নিকলী উপজেলা প্রকৌশলী (এলজিইডি) মো. আব্দুর রহমান মোহিম বলেন, জনগন যাতে বারো মাস এই সড়কে চলাচল করতে পারে সে লক্ষ্যে চলতি অর্থবছরে সড়কটি নতুন করে নির্মানের পরিকল্পনা রয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2020 Onenews24bd.Com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com