রবিবার, ২৪ জানুয়ারী ২০২১, ০১:৪২ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
কিশোরগঞ্জ জেলা ক্রীড়া সংস্থাকে ক্রিকেট সামগ্রী উপহার দিয়েছে বিসিবি ২০০১-২০০৮ ছিল বাংলাদেশের জন্য একটি অন্ধকার যুগ: প্রধানমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রীর উপহারের পাকা বাড়ি পেল ৭০ হাজার গৃহহীন পরিবার পাগলা মসজিদের দানবাক্সে এবার ৫ মাসে সোয়া দুই কোটি টাকা চিনি শিল্পকে বাঁচাতে ১৫ চিনি কলের আখচাষী শ্রমিকদের সভা নাটোরের লালপুরে প্রধানমন্ত্রীর উপহারকৃত ঘর পেল ৩৫ গৃহহীন পরিবার কিশোরগঞ্জে জোরপূর্বক জমি দখল করে ফসল চাষ কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়ায় ৪১ গৃহহীন পরিবারকে জমির দলিল হস্তান্তর পাগলা মসজিদে স্বর্ণালঙ্কারসহ এবার মিলল ২ কোটি ৩৮ লাখ ৫৫ হাজার ৫৪৫ টাকা কুলিয়ারচরে কৃষকের বহুমুখী উদ্যোগ, সবজি দিয়ে তৈরি করলেন মানচিত্র, পতাকা ও নৌকা

পলিথিনে মোড়ানো কিশোরগঞ্জ শহর

মো: আল-আমীন, কিশোরগঞ্জ
  • আপডেট সময় বুধবার, ৬ জানুয়ারী, ২০২১
  • ৪৫০ বার পড়া হয়েছে

নির্বাচনী নীতিমালায় পোস্টারে পলিথিনের ব্যবহারের বিষয়ে কোনো উল্লেখ নেই!

কিশোরগঞ্জ শহরের বিভিন্ন মোড়ে মোড়ে, অলিগলিতে ও গুরুত্বপূর্ণ সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের সামনে ঝুলছে পলিথিনে মোড়ানো পৌরসভা নির্বাচনের পোস্টার। যেদিকে চোখ যায় শুধু পোস্টার আর পোস্টার। এমন পোস্টার টানিয়েছে মেয়র প্রার্থী’সহ কাউন্সিলর প্রার্থীরাও। শুধু নির্বাচন নয়, পলিথিন ব্যবহার রোধের বিষয়টি দেশব্যাপী যে গুরুত্ব হারিয়েছে সেটি বাজারে গেলে বাস্তায় সামান্য একটু হাঁটলেই বুঝা যায়। বাড়ির দরজা থেকে শুরু করে নদী, নালা, ড্রেন সবখানেই মিশে গিয়ে যেন পৃথিবীর স্বাসরোধ করে ফেলেছে পলিথিন ও প্লাস্টিক সামগ্রী।

আগামী ১৬ জানুয়ারী দ্বিতীয় ধাপে অনুষ্ঠিত হবে কিশোরগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচন। নির্বাচনকে সামনে রেখে সাজ সাজ রব শহর জুড়ে। গান সংযোজন করে প্রচার অভিযানে সৃষ্ট অতিরিক্ত শব্দ দূষণে প্রায় অতিষ্ট শহরবাসী। তার সাথে যোগ হয়েছে পরিবেশকে হুমকির মুখে ফেলা পলিথিনের ব্যবহার। যারা পরিবেশ বান্ধব শহর গড়ার প্রত্যয় নিয়ে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেছেন খোদ তারাই নাকি পলিথিনের মতো বিষাক্ত পণ্যের ব্যবহার করছেন নির্বাচনী পোস্টারে। পলিথিন ব্যবহারে নিষেধাজ্ঞা থাকা সত্বেও জনপ্রতিনিধিরা অমান্য করছেন আইন। এমন বিষয়টি নিয়ে সাধারণ মানুষ ও সচেতন মহল বিরূপ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন।

পোস্টারে পলিথিনের ব্যবহার

এই খবরটি পড়ুন: কিশোরগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে প্রচারণায় সরব ডজনখানেক প্রার্থী

প্রতিবেদন তৈরি করতে গিয়ে শহরের পুরানথানা এলাকায় কথা হয় বাবুল মিয়া নামে এক ব্যক্তির সাথে তিনি জানান, পলিথিন ঠেকানোর কেউ নেই! শুধু নির্বাচনী প্রচারণায় নয় বাজারে গিয়ে দেখুন এমন কোনো দোকান নেই, যেখানে পলিথিন নেই। শহরের তেরিপট্টি, বড় বাজার, রথখলা এলাকায় সারাদিন ব্যবসা-বানিজ্য শেষে রাতে পড়ে থাকতে দেখা যায় হাজার হাজার পলিথিন। ঐদিন রাত প্রায় ১১টার দিকে উল্লেখিত এলাকায় গিয়ে ঘটনার সত্যতা পাওয়া যায়।

পলিথিনে মোড়ানো কিশোরগঞ্জ শহর

ছবিটি কিশোরগঞ্জ শহরের তেরিপট্টি এলাকা থেকে রাত ১১ টায় তোলা

বিষয়টি সবচেয়ে বেশি সচেতন মহলের কাছে প্রশ্নও দেখা দিয়েছে। তাদের বক্তব্য, পলিথিনের ঠোঙায় মোড়ানো পোস্টারগুলো কি পরিবেশবান্ধব? এই পলিথিনগুলো কি জলাবদ্ধতার তৈরি করবে না? আর যেসকল প্রার্থীগণ কিশোরগঞ্জ শহরটাকে সুন্দর করে সাজাতে চাচ্ছেন তাঁরাই বা কীভাবে এই কাজটি করছেন? এছাড়া নির্বাচনের পরে পলিথিনে মোড়ানো পোস্টারগুলো নিজ দায়িত্বে কতজন অপসারণ করবেন তাও এক প্রশ্ন।

এই খবরটি পড়ুন: কিশোরগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে নৌকা প্রতীক মাহমুদ পারভেজের, ধানের শীষ ইসরাইল মিয়ার

পরিবেশ আন্দোলন কর্মীদের অভিমত, নির্বাচনী প্রচারে প্রার্থীদের আরও বেশি সচেতন থাকতে হবে। পরিবেশ হুমকির সম্মুখীন করতে পারে এমন ধরনের কাজ তাঁদের না করাই ভালো।

বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা) কিশোরগঞ্জ জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক ও কিশোরগঞ্জ পৌর মহিলা কলেজের প্রভাষক (বিভাগীয় প্রধান, উদ্ভিদ বিজ্ঞান) সাইফুল ইসলাম জুয়েল বলেন, এই পলিথিনগুলো হল নন বায়োডিগ্রেবল অর্থাৎ পরিবেশে এগুলো পচনশীল নয়। প্রকৃতির অনুজীব এবং ভ্যাকটেরিয়া এগুলো ধ্বংস করতে পারে না। এই পলিথিনগুলো সাধারণ পলিথিন থেকেও ক্ষতিকর, মাটির উর্বরতা শক্তি খুব দ্রুত হ্রাস করে ফলে উদ্ভিদের সাধারণ জীবন যাপনে ব্যাঘাত ঘটে। তিনি আরও জানান নির্বাচনের পোস্টারে ব্যবহৃত পলিথিন বিষয়ে আমরা পরিবেশ আন্দোলনের কর্মীরা একাধিকবার পরিবেশ অধিদপ্তরে ঠিচি দিয়েছি কিন্তু কোনো সমাধান পাওয়া যায়নি।

কিশোরগঞ্জ পরিবেশ অধিদপ্তরের সহকারি পরিচালক কাজী সুমন জানিয়েছেন, বিষয়টি অতিব গুরুত্বপূর্ণ। আমাদের কাছে এবিষয়ে কোনো অভিযোগ আসেনি। আমরা এবিষয়ে দ্রুত তদন্ত করে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিবো।

পলিথিনে মোড়ানো কিশোরগঞ্জ শহর

কিশোরগঞ্জ পরিবেশ অধিদপ্তরের প্রবেশ মুখে এভাবেই পলিথিনে মোড়ানো পোস্টার ঝুলে আছে

এবিষয়ে জেলা রিটার্নিং অফিসার মোহাম্মদ আশ্রাফুল আলম জানান, পলিথিনে মোড়ানো পোস্টার পৌরসভা নির্বাচনের আচরণ বিধি মালার লঙ্ঘন নয়। ২০১০ সালের আচরণবিধিতে এ সম্পর্কে কিছু বলা নেই।

২০০২ সাল থেকে সরকার পলিথিন শপিং ব্যাগের উৎপাদন, আমদানি, বাজারজাতকরণ, বিক্রি, বিক্রির জন্য প্রদর্শন, মজুত, বিতরণ, বাণিজ্যিক উদ্দেশ্যে পরিবহন ও ব্যবহার সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ করেছে। পরিবেশ অধিদপ্তর পলিথিনের ব্যবহার নিয়ে ২০১২ সালের ৩০ এপ্রিল গণবিজ্ঞপ্তি জারি করে। এতে উল্লেখ করা হয়, পলিথিন ব্যাগ বিভিন্ন রূপে ব্যবহৃত হচ্ছে। এটা স্পষ্টত সরকারি আদেশের লঙ্ঘন এবং দন্ডনীয় অপরাধ। আইনের ১৫ ধারায় বলা হয়েছে, যদি কোনো ব্যক্তি নিষিদ্ধ পলিথিন সামগ্রি উৎপাদন, আমদানী বাজারজাত করে তাহলে ১০ বছরের কারাদন্ড বা ১০ লাখ টাকা জরিমানা, এমনকি উভয় দ-ও হতে পারে।

এই খবরটি পড়ুন: বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্যের উপর হামলা আমাদের চেতনা ও অস্থিত্বের উপর হামলা

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2020 Onenews24bd.Com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com