সোমবার, ০১ মার্চ ২০২১, ০১:০৪ অপরাহ্ন

পাকুন্দিয়ায় দোকান মালিকের ওপর হামলা, ভাঙচুর ও লুটপাটের প্রতিবাদে মানববন্ধন

মোঃ মুঞ্জুরুল হক মুঞ্জু, পাকুন্দিয়া, কিশোরগঞ্জ
  • আপডেট সময় রবিবার, ২০ ডিসেম্বর, ২০২০
  • ১৯৫ বার পড়া হয়েছে
মানববন্ধন

পূর্ব শত্রুতার জেরে কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়া উপজেলার নরপতি গ্রামের সেলিম নামের এক দোকান মালিককে কুপিয়ে জখম, দোকান ভাঙচুর ও লুটপাটের ঘটনার সাথে জড়িত সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন করেছে এলাকাবাসী। আজ শনিবার সকাল ১১ টার দিকে উপজেলার বুরুদিয়া ইউনিয়নের নরপতি গ্রামবাসীর উদ্যোগে বটতলা এলাকায় পাকুন্দিয়া-ঢাকা সড়কে এ কর্মসূচি পালন করা হয়।

 

ঘন্টাব্যাপী এ মানববন্ধনে তারা সন্ত্রাসীদের দ্রুত গ্রেফতারের দাবিতে বিভিন্ন স্লোগান দেন। এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার (১৭ ডিসেম্বর) রাতে ৩ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত আরও ৪-৫ জনকে আসামী করে আহত সেলিমের বাবা নূর হোসেন বাদী হয়ে পাকুন্দিয়া থানায় একটি মামলা করেছেন। আসামীরা হলেন, উপজেলার পুটিয়া গ্রামের মুর্শিদ উদ্দিনের ছেলে আরিফ, আবু বক্কর সিদ্দিকের ছেলে ইয়াছিন ও হাসিম ড্রাইভারের ছেলে মাহফুজসহ অজ্ঞাত আরও ৪-৫ জন।

 

মামলা সূত্রে জানাযায়, উপজেলার পুটিয়া গ্রামের আরিফ, ইয়াছিন ও মাহফুজের নেতৃত্বে একটি সন্ত্রাসী দল দীর্ঘদিন ধরে এলাকায় মাদক ব্যবসা, ছিনতাই ও চুরিসহ বিভিন্ন অপকর্ম করে আসছে। তাদের ভয়ে কেউ মুখ খুলতে সাহস পায় না। এর ধারাবাহিকতায় গত বৃহস্পতিবার (১৭ ডিসেম্বর)বেলা আড়াইটার দিকে আরিফ, ইয়াছিন ও মাহফুজসহ ৪-৫জন সন্ত্রাসী সশস্ত্র অবস্থায় নূর হোসেনের বটতলা বাজারস্থ মারুফ ইঞ্জিনিয়ারিং ওয়ার্কশপ নামের দোকানে যায়। সেখানে গিয়ে নূর হোসেনের ছেলে সেলিমকে অশালীন ভাষায় গালাগাল করতে থাকে। এসময় সেলিম এর প্রতিবাদ করলে ইয়াছিন রামদা দিয়ে সেলিমের মাথায় কুপিয়ে রক্তাক্ত জখম করে। একপর্যায়ে মাহফুজ লোহার রড দিয়ে এলোপাতাড়ি পিটিয়ে গুরুতর আহত করে। তার ডাক চিৎকারে সেলিমের চাচাত ভাই রিফাত এগিয়ে গেলে তাকেও এলোপাতাড়ি পিটিয়ে আহত করে। এসময় ইয়াছিন দোকানের ক্যাশ বাক্স থেকে ২ লাখ ৭০ হাজার টাকা লুট করে নিয়ে যায়। এছাড়াও দোকানের আসবাবপত্র ভাঙচুর করে প্রায় ৫০ হাজার টাকার ক্ষতি সাধন করে। তাদের ডাক চিৎকারে আশপাশের লোকজন এগিয়ে গেলে সন্ত্রাসীরা পালিয়ে যায়। খবর পেয়ে সেলিমের পিতা নূর হোসেন তাদের উদ্ধার করে পাকুন্দিয়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে ভর্তি করেন। সেলিম বর্তমানে পাকুন্দিয়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

 

সেলিমের পিতা নূর হোসেন বলেন, আসামীরা এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রসাী। তারা সমাজে এমন কোন খারাপ কাজ নেই যে জড়িত নয়। দীর্ঘদিন ধরে তারা এলাকার সাধারণ মানুষকে অত্যাচার নির্যাতন করে আসছে। কিন্তু ভয়ে কেউ মুখ খুলতে সাহস পাচ্ছে না।

 

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা আহুতিয়া তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ (পুলিশ পরিদর্শক) শফিকুল ইসলাম বলেন, আসামীরা পলাতক রয়েছে। তাদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2020 Onenews24bd.Com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com