বুধবার, ০৩ জুন ২০২০, ০৪:০৯ অপরাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
সিরাজগঞ্জে সড়ক দুর্ঘটনায় একই পরিবারের বাবা-মা ও মেয়ে নিহত কিশোরগঞ্জের নিকলীতে সিংপুর ইউপি চেয়ারম্যান আনোয়ারুল হক সাময়িক বরখাস্ত খুলছে প্রাথমিক বিদ্যালয়ও, নতুন যে সিদ্ধান্ত জানা গেল নিকলীতে এক কিশোরী গণধর্ষণের শিকার, ৩ আসামি গ্রেপ্তার বাংলাদেশে গত ২৪ ঘন্টায় করোনা কেড়ে নিল আরও ৩৭ জনের প্রাণ ভৈরব উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান গিয়াস উদ্দিনের ইন্তেকাল, সাংসদের গভীর শোক প্রকাশ লালপুরে সাব-রেজিষ্ট্রারের বিরুদ্ধে অনিয়মের অভিযোগে মানববন্ধন হোসেনপুরে শিক্ষকের উপর সন্ত্রাসী হামলার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন সিরাজগঞ্জের কামারখন্দে অসহায়-দুস্থ প্রতিবন্ধীদের মাঝে নগদ অর্থ বিতরণ মিটার না দেখে গড় বিল হোসেনপুরে পল্লী বিদ্যুতের ভূতুড়ে বিলে ভোগান্তিতে গ্রাহক

প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগে বিরাট সুখবর

ডেস্ক রিপোর্ট
  • আপডেট সময় শনিবার, ১৪ ডিসেম্বর, ২০১৯
  • ২২৪ বার পড়া হয়েছে

বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের সময় সারা দেশে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ১২ হাজার সহকারী শিক্ষক নিয়োগের কথা বলা হলেও শূন্যপদের চাহিদা বিবেচনা করে তা ১৮ হাজারে উন্নীত করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এতে মৌখিক পরীক্ষা দেওয়া প্রতি তিনজনের মধ্যে একজনের নিয়োগপ্রাপ্তির সুযোগ সৃষ্টি হচ্ছে।

প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ড. এ এফ এম মনজুর কাদির বলেন, ‘শিক্ষক নিয়োগ প্রক্রিয়ায় পরীক্ষার চূড়ান্ত ফল তৈরির কাজ চলছে। আগামী ২২ থেকে ২৬ ডিসেম্বরের মধ্যে আমরা এই ফল প্রকাশ করতে পারব বলে আশা করছি। এ ছাড়া পদের সংখ্যাও বাড়ানো হয়েছে। এবার প্রায় ১৮ হাজার শিক্ষক নিয়োগ দেওয়া হবে।’

জানা যায়, জাতীয়করণকৃত ২৬ হাজার প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রাক-প্রাথমিক পর্যায় খোলা হলেও সেখানে এখনো শিক্ষক নিয়োগ দেওয়া হয়নি। চলতি নিয়োগের ফল প্রকাশের পর নতুন করে আরো ২৬ হাজার শিক্ষক নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের প্রস্তুতি নিচ্ছে ডিপিই।

প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ১২ হাজার শিক্ষক নিয়োগের জন্য গত বছরের ৩০ জুলাই বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে ডিপিই। ওই বছরের ১ থেকে ৩০ আগস্ট পর্যন্ত নির্ধারিত সময়ে ২৪ লাখ পাঁচজন প্রার্থী আবেদন করেন। এটা প্রাথমিকে শিক্ষক নিয়োগ প্রক্রিয়ার ইতিহাসে সর্বোচ্চ আবেদন। এরপর চলতি বছরের মে মাসে সারা দেশকে চার ভাগে ভাগ করে চারটি ধাপে পরীক্ষা নেওয়া হয়। আর প্রশ্ন ফাঁস রোধে কেন্দ্রে কেন্দ্রেই প্রশ্নপত্র প্রিন্ট করা হয়।

গত সেপ্টেম্বরে প্রকাশিত হয় লিখিত পরীক্ষার ফল। তাতে উত্তীর্ণ হন ৫৫ হাজার ২৯৫ জন। এরপর ৬ অক্টোবর থেকে মৌখিক পরীক্ষা শুরু হয়। জেলায় জেলায় এই পরীক্ষা শেষ করতে এক মাস লেগে যায়। এরপর সারাদেশ থেকে আসা ফল পরীক্ষা সমন্বয়ের দায়িত্বে থাকা বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বুয়েট) পাঠানো হয়েছে। তারাই চূড়ান্ত ফল প্রকাশ করছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2020 Onenews24bd.Com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com