শুক্রবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৩:৩০ পূর্বাহ্ন

ফরিদপুরে সাংবাদিককে পেটানোর ঘটনায় মামলা, গ্রেপ্তার ১

ডেস্ক নিউজ
  • আপডেট সময় মঙ্গলবার, ২ আগস্ট, ২০২২
ফরিদপুরে সাংবাদিককে পেটানোর ঘটনায় মামলা, গ্রেপ্তার ১

ফরিদপুরের আলফাডাঙ্গা উপজেলায় মুজাহিদুল ইসলাম নাঈম নামে স্থানীয় এক সাংবাদিককে পেটানোর ঘটনায় থানায় মামলা হয়েছে। মঙ্গলবার সকালে মুজাহিদুল ইসলাম বাদী হয়ে দুইজনকে আসামি করে মামলাটি করেন।

মামলায় আলফাডাঙ্গা পৌর মেয়র সাইফুর রহমান সাইফারের আপন ছোট ভাই মো. জাপান মোল্যাকে প্রধান আসামি করা হয়েছে। এছাড়া আসামি করা হয়েছে অজ্ঞাতনামা কয়েকজনকে। মামলার ২ নম্বর আসামি পারুল বেগমকে গ্রেপ্তার করে আদালতে পাঠিয়েছে পুলিশ।

মামলা সূত্রে জানা যায়, আলফাডাঙ্গায় রাজধানী পরিবহনের কাউন্টারে বাসের টিকেট নিয়ে কাউন্টার মাস্টার জাপান মোল্যার সাথে মুজাহিদের প্রতিবেশী উপজেলার গোপালপুর গ্রামের মোসলেম খানের ছেলে রমিজের ঝামেলা হয়। রমিজ বিষয়টি দৈনিক ঢাকা টাইমস’র নিজস্ব প্রতিবেদক মুজাহিদুল ইসলাম নাঈমের সহযোগিতা চান। মুজাহিদ আলফাডাঙ্গা প্রেসক্লাবের সাংগঠনিক সম্পাদক।

সোমবার বেলা দেড়টার দিকে মুজাহিদ ঘটনাস্থলে পৌঁছালে পূর্ব শত্রুতার জেরে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে জাপান ও তার সহকারীরা দেশীয় অস্ত্রসস্ত্র এবং লাঠিসোঁটা নিয়ে মুজাহিদের ওপর হামলা চালায়। স্থানীয়রা আহত অবস্থায় তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগে নিলে সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে ফরিদপুরের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। বিকেল সাড়ে ৫টায় আরও উন্নত চিকিৎসার জন্য মুজাহিদকে ঢাকা মেডিকেলে স্থানান্তর করা হয়। তার ওপর হামলা চালানো জাপান মোল্যা আলফাডাঙ্গা পৌর মেয়র ও পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি সাইফুর রহমানের ছোট ভাই।

আহত সাংবাদিক মুজাহিদুল ইসলাম জানান, হামলার সময় ২ নম্বর আসামি পারুল বেগম তার গলায় ওড়না দিয়ে প্যাঁচ দিলে তিনি মাটিতে লুটিয়ে পড়েন। এরপর আসামিরা দেশীয় অস্ত্রসস্ত্র দিয়ে পিটিয়ে জখম করে।

আহত মুজাহিদ ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীনের বিষয়টি নিশ্চিত করে আলফাডাঙ্গা প্রেসক্লাবের সভাপতি সেকেন্দার আলম বলেন, সহকর্মী মুজাহিদ হামলার ঘটনায় সোমবার (১ আগস্ট) বিকেলে প্রেসক্লাবে তাৎক্ষণিক গণমাধ্যমকর্মীরা নিন্দা জানিয়েছেন। আগামীকাল বুধবার (৩ আগস্ট) সকালে উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্সের সামনে আসামিদের গ্রেপ্তার ও প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে। তিনি এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচার দাবি করেছেন।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা আলফাডাঙ্গা থানার উপ-পরিদর্শক মো. জাহাঙ্গীর আলম বলেন, মামলার ২ নম্বর আসামি পারুল বেগমকে গ্রেপ্তার করে মঙ্গলবার আদালতে পাঠানো হয়েছে। বাকি আসামিকে গ্রেপ্তারে পুলিশের অভিযান চলছে।

Tahmina Dental Care

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2022 Onenews24bd.Com
Site design by Le Joe
%d bloggers like this: