বৃহস্পতিবার, ২১ অক্টোবর ২০২১, ০৩:৩৩ অপরাহ্ন

সর্বশেষ খবর :

বাড়ির আঙিনায় জন্মানো দুইটি পেঁপে গাছ ভাগ্য বদল করে দিয়েছে কৃষক মোতালিবের

আলী হায়দার, কুলিয়ারচর, কিশোরগঞ্জ
  • আপডেট সময় শুক্রবার, ১৭ সেপ্টেম্বর, ২০২১
বাড়ির আঙিনায় জন্মানো দুইটি পেঁপে গাছ ভাগ্য বদল করে দিয়েছে কৃষক মোতালিবের

কৃষক আব্দুল মোতালিবের বাড়ির আঙিনায় কলা বাগানের ফাঁকে প্রাকৃতিক ভাবে জন্মানো দুইটি পেঁপে গাছ, তার ভাগ্য বদল করে দিয়েছে। দুটি পেঁপে গাছ থেকে বর্তমানে ১৪০০ পেঁপে গাছের মালিক মোতালিব। সেই গাছ থেকেই ১৫ বছরে পেঁপে চাষ করে করেছেন বাড়ি, কিনেছেন চাষের জমি, করেছের গরুর খামার। তার এই সফলতা দেখে অনেক বেকার যুবক এখন চাকরি পিছুনে না ছুটে, পেঁপে চাষে স্বাবলম্বী হওয়ার দিকে ঝুঁকছে।

সফল কৃষক আব্দুল মোতালিব (৪২) কিশোরগঞ্জ জেলার কুলিয়ারচর উপজেলার গোবরিয়া-আব্দুল্লাহপুর ইউনিয়নের পশ্চিম আব্দুল্লাহপুর গ্রামের আবু হানিফার ছেলে।

আব্দুল মোতালিব জানান, আজ থেকে প্রায় ১৫ বছর আগে তার বাড়ির আঙিনায় কলা বাগানে প্রাকৃতিক ভাবে দুইটি পেঁপে গাছ জন্মায়। সেই পেঁপে গাছের ভালো ফলন ও পেঁপে সুস্বাদু হওয়ায়, সেই পেঁপের বীজ সংগ্রহ করেন তিনি। পরবর্তীতে জমির একটা অংশে সেই বীজ থেকে চারা তৈরি করে, পেঁপে চাষ শুরু করেন। সেই বীজের চারা থেকে তার চাষ করা জমিতে সেই বছর পেঁপের অস্বাভাবিক ভালো ফলন হয়। এরপর থেকেই পেঁপে চাষে আগ্রহী হয়ে উঠে কৃষক মোতালিব। এবছর করোনার কারণে কম জমিতে (৬৩ শতাংশ) পেঁপে চাষ করলেও, তিনি ৩/৪ একর জমিতেও পেঁপে চাষ করেছেন। আর এই পেঁপে চাষের মাধ্যমে তার আর্থিক অবস্থার পরিবর্তন হয়েছে। ১৫ বছরে পেঁপে চাষ করে করেছেন বাড়ি, কিনেছেন চাষের জমি এবং গড়েছেন একটি গরুর খামার। তিনি বিশ্বাস করেন, তার বাড়ির আঙিনায় প্রাকৃতিক ভাবে জন্মানো দুটি পেঁপে গাছই তার ভাগ্য বদল করে দিয়েছে।

তিনি জানান, এ বছর ৬৩ শতাংশ জমিতে পেঁপে চাষ করেছেন, এই চাষ করতে তার মোট খরচ হয়েছে ৫০ থেকে ৬০ হাজারের মত। ইতোমধ্যে তিনি এই জমি থেকে দেড় লাখ টাকার পেঁপে বিক্রি করছেন এবং আরও ৪/৫ লাখ টাকার পেঁপে বিক্রির আশা করছেন।

তার এই সাফল্যে কৃষি অফিস ও সরকারি কোনো সহায়তা ও পরামর্শ প্রদান করা হয়েছে কি-না এমন প্রশ্নের জবাবে কৃষক মোতালিব জানান, কৃষি অফিস বা সরকারি কোনো অফিস বা কর্মকর্তা থেকে কখনোই তিনি কোনো পরামর্শ বা কোনো ধরণের সহায়তা পাননি। সমস্যা হলে প্রথম দিকে তিনি স্থানীয় পিরোজপুর বাজারে বিভিন্ন কৃষি ফার্মেসি ও স্থানীয় কৃষকের সহায়তা নিয়েছেন। তবে বর্তমানে গাছের যে-কোন সমস্যা তিনি নিজরই বুঝতে পারেন এবং ঔষধ প্রয়োগ করতে পারেন।

এই বিষয়ে কুলিয়ারচর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আব্দুল্লাহ আল মামুন বলেন, পেঁপে একটি লাভজনক কৃষি পণ্য। তাছাড়া মানুষ এখন অনেক স্বাস্থ্য সচেতন হওয়ায় দিন দিন কাঁচা ও পাকা পেঁপের চাহিদা ব্যাপক আকারে বৃদ্ধি পাচ্ছে। এবছর উপজেলার ৪০ হেক্টর জমিতে পেঁপে চাষ হয়েছে, যা পূর্বের যেকোনো বছর থেকে বেশি। লাভজনক হওয়ায় বর্তমানে অনেকে পেঁপে চাষের দিকে ঝুঁকছে এবং আমাদের অফিস থেকে সর্বাত্মক সহায়তা ও পরামর্শ প্রদান করা হচ্ছে।

Tahmina Dental Care

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2021 Onenews24bd.Com
Site design by Le Joe
%d bloggers like this: