রবিবার, ২৪ অক্টোবর ২০২১, ০৯:১৬ অপরাহ্ন

সর্বশেষ খবর :

বেলকুচিতে বনবিভাগের দায়িত্ব অবহেলায় ১০ বছর ধরে ভুক্তভোগী একটি পরিবার

খন্দকার মোহাম্মাদ আলী, সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি
  • আপডেট সময় বৃহস্পতিবার, ১৫ জুলাই, ২০২১
বেলকুচিতে বনবিভাগের দায়িত্ব অবহেলায় ১০ বছর ধরে ভুক্তভোগী একটি পরিবার

সিরাজগঞ্জ জেলার বেলকুচি উপজেলার ভাঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তামাই কুঠিপাড়া গ্রামের বাসিন্দা মো: মাসুদ মুন্সী (৩৬)। পারিবারিক অস্বচ্ছলতা, উদ্বেগ ও উৎকন্ঠায় দিন কাটে তার। প্রত্যেক মানুষ যেখানে দৈনন্দিন কাজকর্ম শেষ করে আশ্রয় নেয় আপন নীড়ে ঠিক সেখানেই ব্যতিক্রম মাসুদ মুন্সী। কারণ তিনি তার ঘরে থাকতে পারে না ঝড়,বৃষ্টি প্রাকৃতিক দূর্যোগের ভয়ে। ঝড়ে গাছ ভেঙ্গে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে তার ২ টি ঘর। অবাক করা তথ্য তাকে বিগত ১০ বছরে নিজের ঘরগুলো মেরামত করতে দেওয়া হয়নি।

মাসুদ মুন্সীর পৈতৃক জায়গায় গাছ রোপণ করা হয়েছিলো ১৭ বছরে আগে। সেই বনজ গাছ গুলো বড় হয়ে “মরার উপর খরার ঘাঁ’ হয়ে দাঁড়িয়েছে। এমতাবস্থায় দরিদ্র পরিবারটি নিজের বাড়ি মেরামত করতে পারছে না এমনকি ভাঙ্গা, জরাজীর্ণ ঘরগুলো বসবাসের অনুপযোগী হয়ে পরেছে । বাড়ি মেরামতের জন্য তিনি গাছে কেটে ফেলার চেষ্টা করলেও বারংবার ব্যর্থ হয়েছেন। অভিযোগের তীর বন বিভাগের কর্মচারী পরিচয়ে কিছু ব্যাক্তির বিরুদ্ধে। মাসুদ মুন্সী দীর্ঘদিন স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ, জনপ্রতিনিধিসহ সর্বমহলে জানিয়েও এই সমস্যার কোনো সমাধান পাননি।
অনেকটা বাধ্য হয়েই তিনি বেলকুচি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর অভিযোগ দিয়েছেন।

 

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক স্থানীয়রা অভিযোগের সত্যতা যাচাই করে বলেন, ইতিপূর্বে রাস্তার বিভিন্ন গাছ কেটে আত্মসাৎ করেছে একটি মহল। দরিদ্র এই পরিবার অনেক কষ্টে আছে। তাদের পক্ষে দাঁড়ানোর কেউ নেই বলে এতদিন এই সমস্যা সমাধান হচ্ছে না। আমরা প্রতিবেশীরা চাই গাছগুলো কেটে ঘর মেরামত করার সুযোগ দেয়া হোক।

ভুক্তভোগী মাসুদ মুন্সী ও তার স্ত্রী জানান, তাঁত ও সুতার কাজ করে আমরা কোনভাবে জীবন যাপন করি। ঝড়/বৃষ্টি হলে অন্যের বাড়িতে আশ্রয় নিতে হয়। ঘর বাড়ি ভাঙ্গা হওয়ার কারণে একাধিকবার চুরি হয়েছে। দীর্ঘদিন যাবত আমরা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছি এর ক্ষতিপুরণ দাবি করছি। আমরা আমাদের ঘরে নিরাপদে থাকতে চাই।

বেলকুচি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জানালেন, ১০ বছর ধরে একটা পরিবার যদি এমন সমস্যায় থাকে সেটা অমানবিক। তদন্ত সাপেক্ষে উপজেলা প্রশাসন ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।

বিভাগীয় বন কর্মকর্তা কাশ্যপী বিকাশ চন্দ্র বলেন, আমি নতুন দায়িত্ব গ্রহণ করেছি। এই অভিযোগ বিষয়ে অবগত নই তবে গনমাধ্যম সুত্রে জানতে পারলাম। এমন ঘটনা যদি হয়ে থাকে অবশ্যই দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Tahmina Dental Care

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2021 Onenews24bd.Com
Site design by Le Joe
%d bloggers like this: