সোমবার, ০১ মার্চ ২০২১, ০৬:২৫ পূর্বাহ্ন

মহামারি করোনা ভাইরাস প্রেক্ষিত বাংলাদেশ

ড. গোলসান আরা বেগম
  • আপডেট সময় শুক্রবার, ২৬ জুন, ২০২০
  • ২৮৮ বার পড়া হয়েছে

আমি ২৫মার্চ ২০২০ থেকে অদ্যাবধি ঢাকায় গৃহবন্দি জীবন যাপন করছি। আরো কত দিন এভারে ঘরে আবদ্ধ থাকতে হবে জানি না। এক মিনিটের জন্যও বাড়ীর গেইট অতিক্রম করতে পারি নাই, পারিবারিক বিধি নিষেধের কারণে। প্রশ্ন হলো- কর্ম-প্রেমি, লেখক, সমাজ পরিবর্তনের স্বপ্ন দ্রষ্টা মানুষটি বাসায় তালাবদ্ধ অবস্থায় কিভাবে বেঁচে আছি?

 

কেউ হয়তো বা বিশ্বাস করবেন না, তারপরও বলছি সকাল গড়িয়ে গভীর রাত পর্যন্ত প্রচন্ড ব্যস্ত সময় পাড় করছি। শরীর সুস্থ্য রাখার জন্য রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করতে ব্যায়াম, স্বাস্থ্য চর্চা করতে হয়। হাত ধুয়া, গরম পানি দিয়ে গারগেল করা, বিশেষ প্রক্রিয়ায় তৈরী লাল চা খাওয়া, পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন থাকা, নিরাপদ দুরত্বে থাকা, বিষন্নতা মুক্ত থাকা, জনসমাবেশে না যাওয়া ইত্যাদি প্রক্রিয়া মেনে চলছি।

আমি লেখক বলে কবিতা লিখি ও ফেইজবুকে পোষ্ট দেই, অনলাইনে কবিতা আবৃতি, টকশোর মজার মজার তথ্য মস্তিষ্কে তুলে নেই। কারো কারো মিথ্যাচার, করোনাকে নিয়ে রংবাজী করা দেখে মনে মনে হাসি। নিজেও টকশোতে অংশগ্রহণ করে মহামারীর ভয়াবহতা তুলে ধরার পক্ষে বক্তব্য রাখি।করোনায় আক্রান্ত সর্বশেষ পরিস্থিতি জানার জন্য টেলিভিশানে বা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে রাখি চোখ। নানা ধরনের ছবি আকিঁ ও পোষ্ট দিয়ে ফেইজবুক বন্ধদের রাখি চাঙ্গা। অনলাইনে চোখ বুলিয়ে বিশ্ব ও স্থানীয় রাজনীতির হালচাল বুঝার চেষ্টা করি। যা লিখি তা কম্পিউটারে কম্পোজ ও পোষ্ট দেয়ার কাজটিও নিজেই করি। ফেইজবুকে কে কি কমেন্ট করছে বা কি নটিফিকেশান আসছে তাও একটু পর পর দেখায় থাকি ব্যস্ত। রান্না ঘরের মেনু, বাজারের ফর্দ, আত্মীয় স্বজনের খোঁজ খবর, কে কোথায় করোনায় আক্রান্ত হলো বা মারা গেলো ইত্যাদি বহুবিদ কাজের জিলাপি প্যাচে হাটছি সারাদিন।

নিজে বা পরিবারের অন্য সদস্যরা কখন বা কি ভাবে করোনায় আক্রান্ত হয়ে যাই সে আতংকে নির্ঘুমে রাত পার করছি। মহান সৃষ্টি কর্তার কাছে কোভিড-১৯ এর হাত থেকে রেহাই পাওয়ার জন্য ক্ষমা চাইছি ও প্রার্থনা করছি। দেশের বাইরে যারা আছে তাদের সাথেও মনের দুঃখ কষ্ট করছি চালাচালি। মাঝে মাঝে বাসার ছাদে গিয়ে সূর্য স্নান করে শরীরের রোগ প্রতিরোধ করার ক্ষমতা বাড়ানোর চেষ্টা করি। এতসব কাজের বেড়াজালে জড়িয়ে, আলোঝলমল এসি রুমে বসে কখন সূর্য ওঠে ও লালিমা ছড়িয়ে পশ্চিমে হারিয়ে যায় তা দেখার সময় কোথায়? ঝম ঝম করে বৃষ্টি হলে বা ঝড়ো বাতাস বইলে, তার সাড়া শব্দ কানে পৌঁছার সুযোগ কৈ ?

পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্তে বসে ইউটিউব চ্যানেলে সরকারকে বাঁশ দেয়ার জন্য উগ্রপন্থীরা কি বলছে তাও উদ্ধার করি চোখ খুলে। উপভোগ করি টকশোর ধূলিবালি উড়ানো তর্কের ঝড়। বর্তমান সরকার ষোল কোটি মানুষকে সেবা দিতে গিয়ে কিভাবে শ্রম ঘাম ব্যয় করছে ও হিমশিম খাচ্ছে তাও উপলদ্ধি করছি। তারপরও সমালোচকরা বিভ্রান্তি ছড়ানোর চেষ্টা করছে। নানা কথার অযৌক্তিক কথার তীর ধনুক নিক্ষেপ করছে সরকারের দিকে। নিজেরা বড় বড় বুলি কপচালেও সচেতনতা সৃস্টি করার কাজে তৃণমূল র্পযায়ের মানুষের পাশে দাঁড়াচ্ছে না। কথায় নয় আসুন আমরা কাজে রড় হই।

 

করোনার ভয়ে আতঙ্কিত আমি চাই বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা কতৃক নির্দেশিত বিধি বিধান মেনে বাংলাদের জনগণ নিরাপদ জীবন যাপন করুক। ঘরে থাকুক, নিরাপদ দুরত্বে, গণসমাবেশ এড়িয়ে চলুক। অন্যথায় মহামারীতে আক্রান্ত হয়ে দেশের সার্বিক পরিস্থিতি এমন হবে যে, লাশ গোড় কাফন করার লোকও বেঁচে থাকবে না। আসুন সময় থাকতে নিজেরা সচেতন হই, অপরকে সচেতন করি ও মানব সভ্যতাকে রক্ষা করি।

 

লেখক: ড. গোলসান আরা বেগম

কবি ও কলামিষ্ট

সিনেট সদস্য, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2020 Onenews24bd.Com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com