বুধবার, ১০ অগাস্ট ২০২২, ০৫:০৫ পূর্বাহ্ন

যেখানে হাউজিং সেখানে জলাধার থাকতেই হবে : প্রধানমন্ত্রী

ওয়ান নিউজ 24 বিডি ডেস্ক
  • আপডেট সময় শনিবার, ২ মার্চ, ২০১৯

নিউজ ডেস্ক :
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘এখন থেকে যেখানে হাউজিং করা হবে সেখানের প্রতিটি জায়গায় জলাধার থাকতেই হবে। কোথাও কোনোভাবে জলাধার নষ্ট করা যাবে না। আমি সেইভাবে নির্দেশ দিয়েছি।’ শনিবার(২ মার্চ) বিকেলে রাজধানীর রমনায় আইইবি চত্বরে ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন বাংলাদেশের ৫৯তম কনভেশনের উদ্বোধনী অধিবেশেনে তিনি এসব কথা বলেন।

ক্ষোভ প্রকাশ করেন প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের দুর্ভাগ্য, এই ঢাকা শহরে ১৯৫৪ সাল থেকে বসবাস করি। তখন যত খাল ছিল, পুকুর ছিল, এখন খুঁজলে তা পাওয়া যায় না। যেকোনো একটা বিল্ডিং করতে গেলে যেখানে পুকুর আছে, সেই জায়গাটাই আগে বেছে নেওয়া হয়। কিন্তু আগুন লাগলে আর পানি পাওয়া যায় না।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘গত কয়েকদিন আগেও দেখেছেন চকবাজারে যখন আগুন লাগলো, তখন পানির জন্য হাহাকার। জেলখানার পুকুর থেকে পানি নেওয়া, আন্ডারগ্রাউন্ড ট্যাংকি থেকে পানি নেওয়া, ওয়াসা থেকে পানি সাপ্লাই দেওয়া হয়েছে। কিন্তু ঢাকা শহরে তো এই পানির অভাব হওয়ার কথা ছিল না। তাহলে এই পরিকল্পনা যখন নেওয়া হয়েছে, তখন এই জলাধারগুলি সংরক্ষণ করা হয়নি।’
বিজ্ঞাপন

উন্নয়ন প্রকল্প নেওয়ার সময় জলাধার সংরক্ষণের দিকে গুরুত্ব দিতে প্রকৌশলীদের অনুরোধ জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘সভ্যতা গড়ে ওঠে নদীর তীর ধরে। কাজেই নদীকে আমাদের বাঁচাতে হবে। খাল-বিল বাঁচাতে হবে। জলাধারগুলো বাঁচাতে হবে। একটা জলাধার যেমন পরিবেশ সুন্দর রাখে, আবার দুর্ঘটনার সময় কাজে লাগে।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমি নির্দেশ দিয়েছি আমরা যে হাউজিং করছি, সেখানের প্রত্যেকটি জায়গায় জলাধার থাকতে হবে। কোথাও জলাধার নষ্ট করা যাবে না। জলবায়ুর কারণে আমাদের দেশে প্রচুর বৃষ্টি হয়। এই বৃষ্টির পানিগুলো কোথায় যাবে? শুধুমাত্র আন্ডারগ্রাউন্ড ড্রেনেজ দিয়ে তো সব পানি যেতে পারে না। তাছাড়া আমাদের বাংলাদেশ ভূমিকম্পপ্রবণ। ভূগর্ভস্থ পানি আমাদের যত কমবে, ভূমিকম্পের সম্ভাবনা আরও বেশি দেখা দেবে।’

এসময় প্রতিটি ছোট-বড় নদী ড্রেনেজ করে নাব্য বাড়ানোর কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী। পাশাপাশি দেশে যত পুকুর-খাল আছে, সেগুলোও খনন করে পানির ধারণক্ষমতা বৃদ্ধিতে সরকারের পরিকল্পনা রয়েছে বলে জানান তিনি।

দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার ক্ষেত্রে সরকারের গৃহীত বিভিন্ন পরিকল্পনার কথা তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, ‘উন্নয়নের জন্য বিভিন্ন কর্মসূচি আমরা বাস্তবায়ন করে যাচ্ছি। আমরা চাই এই কর্মসূচিগুলো যেন আরও সুন্দরভাবে তৈরি হয়, মানসম্মত হয়। সেদিকে বিশেষভাবে আপনারা দৃষ্টি দেবেন।’
উন্নয়নে প্রকৌশলীদের উদ্ভাবনী শক্তি বৃদ্ধির আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

অনুষ্ঠানের শুরুতে প্রধানমন্ত্রীকে কনভেনশনের ব্যাচ পরিয়ে দিয়ে বরণ করে নেওয়া হয়। জাতীয় সংগীত পরিবেশন করেন ইঞ্জিনিয়ার্সের শিল্পিরা। এরপর কনভেশনের থিম সং পরিবেশিত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন আইইবি’র প্রেসিডেন্ট প্রকৌশলী মো. আব্দুস সবুর।

এতে আরও বক্তব্য রাখেন আইইবি’র সাধারণ সম্পাদক প্রকৌশলী খন্দকার মনজুর মোর্শেদ, আইইবির ঢাকা সেন্টারের চেয়ারম্যান প্রকৌশলী ওয়ালিউল্লাহ সিকদার, আইইবি ঢাকা কেন্দ্রে সাধারণ সম্পাদক প্রকৌশলী মো. শাহাদাত হোসেন শিপলু।

Tahmina Dental Care

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2022 Onenews24bd.Com
Site design by Le Joe
%d bloggers like this: