সোমবার, ১৯ এপ্রিল ২০২১, ০৩:১৪ পূর্বাহ্ন

রাতে কুলিয়ারচরে পুলিশ ও ইউএনও অফিসে হামলায় হেফাজতের কেউ ছিল না

আলী হায়দার, কুলিয়ারচর, কিশোরগঞ্জ
  • আপডেট সময় রবিবার, ৪ এপ্রিল, ২০২১
  • ২৩৪ বার পড়া হয়েছে
রাতে কুলিয়ারচরে পুলিশ ও সাংবাদিকদের ওপর হামলায় হেফাজতের কেউ ছিল না

কিশোরগঞ্জের কুলিয়ারচরে মামুনুল হকের সমর্থকদের হামলায় কুলিয়ারচর থানার পুলিশ ও সাংবাদিক সহ অন্তত ৮ জন আহত হয়েছে। এ ঘটনায় কুলিয়ারচর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার সরকারি বাসভবন (কোয়াটার) ইটপাটকেল ছুঁড়ে ভাঙচুর হয়েছে । পুলিশ জানিয়েছে, গতরাতের ঘটনায় মিছিলে হেফাজতের কেউ ছিল না।

সোনারগাঁও রয়েল রিসোট নামের একটি হোটেল থেকে নারী সহ মামুনুল হক জনতার হাতে আটকের ঘটনাকে কেন্দ্র করে কুলিয়ারচরে রাত সাড়ে ৯ টার দিকে কুলিয়ারচরের উছমানপুর ইউনিয়নের নাজিরদীঘি ও পৌর শহরের বড়খারচর এবং পূর্ব গাইলকাটা ও আশপাশ এলাকা থেকে একটি বিক্ষোভ মিছিল কুলিয়ারচর বাজার প্রবেশ করে। মিছিলটি কুলিয়ারচর বাজারের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে কুলিয়ারচর থানা ক্রস করার সময় পুলিশের বিরুদ্ধে শ্লোগান দিতে থাকে, এরপর মিছিলটি একটু সামনে এগিয়ে কুলিয়ারচর শপিং কমপ্লেক্সের সামনে অবস্থান নেয়। এসময় মামুনুল হক সমর্থকদের অপর একটি মিছিল লাঠি ও দেশীয় অ¯্রসহ পূর্বের মিছিলে যুক্ত হয়ে পুলিশের বিরুদ্ধে স্লোগান সহ ব্যপক ইটপাটকেল ছুঁঢ়তে থাকে। পরে পুলিশও একপর্যায়ে তাদের দাওয়া করলে পরিস্থিতি অস্বাভাবিক হতে থাকে। এই সময় পুলিশকে উদ্দেশ্য করে তারা আরও বেপোরোয়া ইটপাটকেল ছুঁড়ে। এভাবে রাত ১০ টা থেকে সাড়ে ১০টা পর্যন্ত পুলিশের সাথে দাওয়াপাল্টা দাওয়া চলে।

একপর্যায়ে বিক্ষোভকারীরা পিছু হটে উপজেলা চত্বরে গিয়ে কুলিয়ারচর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বাসভবন সরকারি (কোয়াটার) ইটপাটকেল ছুঁড়ে ভাঙচুর করে এবং কুলিয়ারচর সরকারি হসপিটালের সাইনবোর্ড ভাঙচুর করে তারা। এই সময় পুলিশ সাংবাদিকসহ ইটপাটকেল আঘাতে অনেকে আহত হয়। পরে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ বেশ কয়েক রাউন্ড ফাকা গুলি ছুঁড়ে। হামলার এই ঘটনায় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশের সাথে থেকে কুলিয়ারচর ইমাম ওলামা পরিষদের সভাপতি মুফতি ইলিয়াস মাহমুদ কাসেমী সার্বিক সহায়তায় করেন।

ঘটনার পর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) তাহিয়াত আহমেদ চৌধুরী ও ভৈরব সার্কেল পুলিশ রেজুয়ান দীপু বিশেষ ফোস নির্য়ে কুলিয়ারচর থানায় অবস্থান করে দিকনির্দেশনা প্রধান করে।

এই ঘটনায় রবিবার (৪ এপ্রিল) কুলিয়ারচর থানায় সন্ত্রাস বিরোধী আইন ২০০৯ ও পুলিশ এসর্ডসহ বিভিন্ন ধারায় এসআই সাদ্দাম বাদি হয়ে ৩৩ জনের নাম উল্লেখ করে এবং অজ্ঞাত আরও ৫০০ জনকে আসামি করে একটি মামলা রজু হয়। যার মামলা নং

এই বিষয়ে কুলিয়ারচর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) এ.কে.এম সুলতান মাহমুদ বলেন, সোনারগাঁও এর একটি হোটেলে মামুনুল হক আটকের ঘটনাকে কেন্দ্র করে একটি মিছিল থানার সামনে এসে পুলিশের উপর ইটপাটকেল ছুঁড়লে, পুলিশ ধাওয়া করে। এসময় তারা বিভিন্ন স্থানে ধ্বংসাত্মক কার্যকলাপ চালায়। তবে মিছিলে কোনো মাদ্রাসার ছাত্র বা হেফাজত ইসলামের লোক ছিলো না। এই ঘটনায় ভিডিও দেখে চিহ্নিত করে ৩৩ জনকে আসামি করা হয় এবং এদের মধ্যে ৫ জনকে গ্রেফতারের পর কিশোরগঞ্জে আদালতে প্রেরণ করা হয় ।

amena.com.bd

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2021 Onenews24bd.Com
Theme Customized by Le Joe
%d bloggers like this: