বুধবার, ১৪ এপ্রিল ২০২১, ০৭:৪১ অপরাহ্ন

রোকেয়া দিবসের মর্ম কথা

ওয়ান নিউজ 24 বিডি ডেস্ক
  • আপডেট সময় রবিবার, ৯ ডিসেম্বর, ২০১৮
  • ৯২৬ বার পড়া হয়েছে

রোকেয়া দিবসের মর্মকথা
লেখক: সাব্বির আহমেদ বাবু

উনবিংশ শতকের শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত উপমহাদেশে নারীসমাজ ছিল শুধুই ঘরের শোভা। নারী অধিকার বলতে ছিল বছরে বছরে বাচ্চা জন্ম দেয়া, ঘর গৃহাভ্যন্তরের কাজ করা আর পুরুষের মনোরঞ্জন করা। যদি কোনো পিতার দয়া হতো তবে সেই ঘরের কন্যাসন্তানের জন্য সর্বেসর্বা একজন গৃহশিক্ষক থাকতো ধর্মীয় আদবকায়দা শিক্ষা দেয়ার জন্য। এই ছিল নারীসমাজের শিক্ষার ব্যাপ্তি। তাদের কোনো চাওয়া পাওয়া ছিল না। ছিল না কোনো ভালোলাগা মন্দলাগার অধিকার। গৃহপালিত পশুর ন্যায় তারা ছিল পুরুষদের হাতের খেলনাপুতুল মাত্র। ঠিক সেই সময়ে ১৮৮০ খ্রিস্টাব্দের ৯ই ডিসেম্বর বঙ্গ দেশে রংপুর জেলার মিঠাপুকুর উপজেলার পায়রাবন্দ গ্রামে সম্ভ্রান্ত এক জমিদার পরিবারে জন্ম নেয় এক কন্যা শিশু। বাবা জহুরুদ্দিন মোহাম্মদ আবু হায়দার আলী তাঁর এই কন্যা সন্তানের নাম রাখেন বেগম রোকেয়া। তাঁর দুই বোন ও তিন ভাই ছিল যার মাঝে এক ভাই কিছুদিন পর মারা যায়। তাঁর বাবা আরবী,উর্দু, পারসি, বাংলা,হিন্দী ও ইংরেজি ভাষায় পারদর্শী ছিলেন তারপরও তিনি মেয়েদের শিক্ষার বিষয়ে ছিলেন যতেষ্ট রক্ষণশীল। বেগম রোকেয়া পাঁচ বছরের সময়েই উপলব্ধি করেন মেয়েদের শিক্ষা কে তৎকালীন সমাজব্যবস্থা ভালো চোখে দেখেন না। যার জন্য তার শিক্ষা নেয়ার রাস্তা বন্ধ হয়ে যায়। তাই বলে দমে যায় নি বেগম রোকেয়া। তার বড় দুই ভাই ও বোনের সাহচর্য নিয়ে তিনি ঘরের মাঝেই নিজেকে সুশিক্ষায় শিক্ষিত করতে থাকেন। তার জ্ঞান পিপাসার ক্ষুদা দেখে তার ভাই ও বোনেরা তাকে বিভিন্নভাবে সহযোগিতা জরতে থাকে। ১৮৯৮ সালে উনার বিয়ে হয় তৎকালীন ডেপুটি ম্যাজিস্ট্রেট সৈয়দ সাখাওয়াৎ হোসেনর সাথে। তিনি ছিলেন কুসংস্কার মুক্তমনা একজন মানুষ। স্বামী তার স্ত্রীর লেখাপড়ায় আগ্রহ দেখে তার সাধ্যমত বাংলা, উর্দু ও ইংরেজি রচিত বিভিন্নজনের লেখা বই ঘরে এনে দিতেন। বেগম রোকেয়া সেগুলো পাঠ করে ধীরে ধীরে অনুধাবন করেন নারীদের শিক্ষার প্রয়োজনীয়তা। সেই সাথে তিনি উপলব্ধি করেন তখনকার সময়ে নারীদের বন্ধীত্ব দশা কি করে সমাজ থেকে নারীদের আস্তাবলে নিক্ষেপ করছে। সেই লক্ষ্য নিয়ে স্বামী মারা যাবার পর মাত্র পাঁচজন ছাত্রী নিয়ে ভাগলপুরে শুরু করেন বেগম রোকেয়া মেমোরিয়াল স্কুল।
বর্তমানের সময়ে উপমহাদেশীয় অঞ্চলে নারীর এই অবাধ স্বাধীনতার বীজ বুনন হয়েছিল বেগম রোকেয়া সাখাওয়াৎ এর হাত দিয়েই। যিনি ছিলেন নারী জাগরণের অকুতোভয়া এক নির্বীক সৈনিক। যিনি পুরো সমাজের চোখ রাঙ্গানো কে বুড়ো আঙ্গুল পদর্শন করে এগিয়ে গিয়েছেন আপন গতিতে। তাই বলে তিনি নিজের সম্ভ্রম কে বিলিয়ে নয়। নিজ জায়গায় অটুট থেকে চেয়েছেন সমাজের সকল নারীর কল্যাণ। আমাদের বর্তমান সমাজ সেই নারী জাগরণের দোহায় দিয়ে নারীদের কে করে দিচ্ছে বাজারের পণ্য। আজ নারীরত্ন নিজেদের পুরুষের সমান ভাবতে শিখেছে। শিখেছে পুরুষ ন্যায় অবাধ চলাফেরা। এতে দোষের কিছু নেই। দোষ তখনি হয় যখন সেই স্বাধীনতার নাম নিয়ে নিজেদের কে পণ্য হিসেবে উপস্থাপন করে পুরুষালী সমাজে। নিজের অজান্তে কখন যে তারা হয়ে যায় হেরেমের দাসী তা তারা উপলব্ধি করতে পারে না। তখনি সমাজে প্রশ্ন উঠে নারীদের এত স্বাধীনতার কি দরকার? বর্তমানে সমাজশাসনে পুরুষের যেমন দরকার তেমনি নারীদের ও দরকার। তাই বলে নিজেদের সম্ভ্রম বিকিয়ে নয় বরং সম্ভ্রম কে বাঁচিয়ে। জাগরণ বলতে কি বুঝি আমরা? জাগরণ বলতে উন্মুক্ত বক্ষে কাশফুল বাগানে দাঁড়িয়ে বলা, কাশফুলের নরম ছোয়া।” নাকী অন্তরঙ্গতা নিয়ে কোনো কনডমের বিজ্ঞাপনে নিজের সমস্ত কিছু দৃশ্যায়ন করা?
আজ যদি বেগম রোকেয়া বেঁচে থাকতেন তবে এই দৃশ্য দেখে কখনো বলতেন না নারীর স্বাধীনতার প্রয়োজন। উনি অকপটচিত্তে বলতেন, “নারী তুমি কলঙ্কিনী তোমার সত্তা তোমায় দিয়েছে এ পদবী।” হে নারী, “অধিকার বলো আর স্বাধীনতা বলো,কিংবা জাগরণ বলো সেটা প্রয়োজন মনের। কখনো সেটা দেহের প্রয়োজন হয় না।” যেদিন নারী তার মনের নারী কে মুক্তি দিবে, যেদিন নারী তার দেহের না মনের নারী কে জাগরিত করবে সেদিন কেউ বলতে পারবে না নারীর স্বাধীনতার প্রয়োজন নেই, প্রয়োজন নেই নারী জাগরণের। বরং প্রতিটি বাবা, মা, ভাই,স্বামী নিজ উদ্যোগী হয়ে নারীদের পৌঁছে দিবে শিক্ষার দুয়ারে। আসুন অধিকার নিয়ে মগ্ন না থেকে মগ্ন হই সঠিকতর চেতনায়। তখনি স্বার্থক হবে বেগম রোকেয়ার স্বপ্ন।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2021 Onenews24bd.Com
Theme Customized by Le Joe
%d bloggers like this: