সোমবার, ১৬ ডিসেম্বর ২০১৯, ১১:০২ পূর্বাহ্ন

শিক্ষা নীতির একাল সেকাল

ওয়ান নিউজ 24 বিডি ডেস্ক
  • আপডেট সময় বুধবার, ৫ ডিসেম্বর, ২০১৮
  • ২৮৮ বার পড়া হয়েছে

শিক্ষা নীতির একাল সেকাল
– সাব্বির আহমেদ বাবু

মফস্বলে বড় হয়েছি। শাসন বা নজরদারী একটু বেশীই পেয়েছি সেই জন্য। শিক্ষার শুরু হয়েছিল মক্তবের মাধ্যমেই। হুজুর যখন ছবক নিতে আসতেন কলিজায় কাঁপন শুরু হয়ে যেত। এই বুঝি ভুল করে ফেললাম এই বুঝি ওনার হাতের বেঁতের বাড়ি খেলাম। যেদিন ছবক দিতে না পারতাম সেদিন কপালে মার খাওয়া অঘোষিত ফরজ বিধানের মতোই নিয়ম হয়ে যেত। শেষমেশ মনকে এই বলে শান্তনা দিতাম যে শিক্ষকের আঘাতকৃত জায়গা বেহেশতে যাবে। এভাবেই শুরু হয়েছিল শিক্ষা জীবন। তারপর জীবনের প্রতিটি ধাপে পেয়েছি কড়া শাসনের ছায়া। আজ এই মুহূর্তে এসে ঐ সময়ের শাসন কে বড্ড মনে পরে। মনে হয় শাসন নয় হারিয়েছি এমন এক বন্ধন যা শিক্ষা দিয়েছে ভালোমন্দ তফাৎ বিশ্লেষণ করতে। একদিন নবম শ্রেণী তে গণিত ক্লাশ চলছে স্যার বেত নিয়ে যথারীতি ক্লাশে রুদ্রমূর্তি নিয়ে পাঠ বুঝাচ্ছে। এমন সময় কেরানি এসে জানিয়ে গেলো থানা নির্বাহী অফিসার আসছে আমাদের বিদ্যালয়ে। কথা শোনা মাত্র স্যার বেত টা জানালা দিয়ে ফেলে দিলেন। আমরা সবাই অবাক হলামা স্যারের ঐ কাণ্ড দেখে। ঐদিন স্যার ক্লাশ শেষ করে চলে গেলেন। আমরা কানাঘুষা করতে লাগলাম। আমাদের কৌতূহল তো ক্রমান্বয় বাড়তে লাগলো। পরদিন স্যার আবার বেত নিয়ে আসায় কৌতূহল আবারো বৃদ্ধি পেলো আমাদের মনে। কৌতূহল নিবারণ একমাত্র স্যারই দিতে পারবে তাই স্যারকে প্রশ্ন করলাম গতকাল কেনো এমন ব্যবহার করলেন। উনি প্রশ্ন শুনে কিঞ্চিত হেসে বললেন আইনে আছে স্যার কখনো বেত নিয়ে শ্রেণীকক্ষে আসতে পারবে না। যদি গতকাল টিএনও স্যার দেখতেন বেত নিয়ে ক্লাসে আসছি তবে আমার চাকরি থাকতো না। সেইদিন প্রথম জানলাম শিক্ষকদের ও নিয়ম মানতে হয়। তখনকার সময় নকল করা তো দূরের কথা ঘাড় ফিরিয়ে পাশের জনের লেখা দেখতে গেলেও ভয়ে কলিজা শুকিয়ে যেত।
তারপর আসে বিদ্যালয়ের নিয়ম নীতি যা বর্তমানে চিন্তা করা দুষ্কর। নবম শ্রেণীতে ইংরেজি ক্লাস ছিল। এক ম্যাডাম ক্লাস নিতেন আমাদের। উনি শ্রেণীকক্ষে আসার সাথে সাথে পিনপতন নিরবতা গ্রাস করতো আমাদের। সকলের মনোযোগের কেন্দ্র থাকতো ঐ শিক্ষিকার পড়ায় আর বইয়ের মাঝে। এখন ভাবি সেই মনোযোগের তিন ভাগের এক ভাগও যদি সমস্ত ছাত্রজীবনে প্রয়োগ করতাম তবে অনেকদূর যেতে পারতাম। কথায় আসি, ঐদিন এক মেয়ে বন্ধু চোখে কাজল আর ঠোঁটে গাঢ় লিপস্টিক দিয়ে আসছে যা আমাদের শিক্ষিকার নজরে পরে। ঐদিন আমাদের শিক্ষিকা মেয়েটি কে দাঁড় করিয়ে বলতে শুনেছি,এইরকমভাবে বিদ্যালয়ে যেন ভবিষ্যতে কখনো আসলে গাড়ধাক্কা দিয়ে বের করে দেয়া হবে । সেই মুহূর্তে আমাদের বান্ধবী কে নির্দেশ দেয়া হয় সকল কিছু ধুয়ে আবার শ্রেণীকক্ষে আসতে। আরও বলেছিলেন আমাদের ঐ শিক্ষিকা, তোমার এই অবস্থায় কোনো ছেলে যদি অশ্লীলতা করে তখন দায় তো হবে ঐ ছেলের। তখন কেউ অভিযোগ দিবে না তোমার।
তখনকার সময় আমাদের বাবা মা ও শিক্ষকদের কে সম্মান দিতেন। ভাবতেন শিক্ষক হলেন মানুষ তৈরি করার কারিগর। ওনারা কখনো তাদের ছাত্রছাত্রীর অমঙ্গলের জন্য শাসন করবেন না।

একযুগ পেরোয় নি বর্তমান সময় মানে ২০১৮ তে এসে অবলোকন করতে হয় একটি ছাত্রী আত্মহনন করেছে শিক্ষকের বঞ্চনার শিকার হয়ে। এরও কিছু আগে শুনতে হলো ঐ বিদ্যালয়ের এক শিক্ষক দ্বারা নিগৃহীত হয়েছে ছাত্রী। হরহামেশা শুনতে হয় সহপাঠী দ্বার ধর্ষিত হচ্ছে অপর সহপাঠিনী। আজকের কানুনে আইন এতই কড়াকড়ি করে মান্য হয় শিক্ষক বেত নিয়ে শ্রেণীকক্ষে আসার কথা ভাবা আর আকাশকুসুম চিন্তা একই জিনিস। অপরদিকে লিপস্টিক, কাজল,মাসকারা না থাকলে বদনে সে হয়ে যায় আনকালচার গেয়ো ভূত। অপরদিকে শিক্ষক শ্রেণীর মাঝে কিছু শিক্ষক থাকে যারা মনে করে সকল ছাত্রী ভোগ করা তার সামাজিক অধিকার। বর্তমানে কিছু সচেতন অভিভাবক রয়েছে তারা মেয়েদের সাজসজ্জার বিষয়ে চরমভাবে সতর্ক। যার ফলস্বরুপ আমাদের চারপাশের অবস্থা নিজেরাই দেখতে পারছি।
এবার আসি গতদিনের ঘটে যাওয়া ঘটনায়। দেশের নামকরা এক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ভিকারুণনেছা বালিকা বিদ্যালয়। মেয়েদের সেই বিদ্যালয়ে লেখাপড়া করাতে পারলে তাদের ভবিষ্যৎ উজ্জল থেকে উজ্জ্বলিত হয়ে যাবে। আমাদের সুশীল সমাজের মা বাবা গন তাই মনে করে। সেই বিদ্যালয় এবং দেশের অনন্য নামকরা বিদ্যালয়ের বেশীরভাগ শিক্ষক কোচিং, প্রাইভেট, নোট এর নামে ইচ্ছেমত শিক্ষাবানিজ্য করে যায় আমাদের চোখের সামনেই। আমরা বাচ্চাকাচ্চা দের ভবিষ্যৎ ভেবে চুপ থাকি। কখনো একটিবারের জন্যে হলেও সোচ্চার হই না। অপরদিকে বিদ্যালয় শেষে বাচ্চা কি পড়লো না পড়লো সেদিকেও খেয়াল করার সময় পাই না। বাবা যদি অফিসে থাকে মা থাকে সেমিনারে, ভাই যদি আড্ডায় থাকে বোন থাকে ক্যাম্পাসে। সবাই তো সবাই কে নিয়ে ব্যস্ত। অপরদিকে নিঃসঙ্গ কিশোর কিশোরীর খেলা করবে সেরকম সুযোগ ও নেই আমাদের নগর সমাজে। সারাদিন তাই নিঃসঙ্গ জীবনের একমাত্র সঙ্গী হিসেবে মুটোফোন কে বেচে নেয় ঐ কিশোর কিশোরী দল। সেই সঙ্গ পরিক্ষা হলে নিয়ে যাবার অধিকরা থেকে বঞ্চিত করে দিয়েছে আমাদের সমাজে তথাকথিত শিক্ষাব্যবস্থা। নকল ব্যবস্থা বন্ধ নামে মাত্র চালু। কে নকল করে পাশ করলো কে প্রশ্ন আগে পেয়ে পরিক্ষা দিলো এতে যখন মাথাব্যথা নেই শিক্ষামন্ত্রানলয়ের সেখানে পরিক্ষা হলে মোবাইল ফোন ব্যবহারের কারণে একজন শিক্ষার্থী কে বহিষ্কার করা ঘোরতর অন্যায় না হয়েই যায় না। শিক্ষার্থী সঙ্গ হারানোর দুঃখে আত্মহনন এ দায় তো শিক্ষকসম্প্রদায় কে নিতে হবে। ধীক্কার এই শিক্ষক সমাজ কে যারা ছাত্র-ছাত্রীদের উন্নততর ভবিষ্যৎ কে রুখে দিচ্ছে নকল বা ফোন ব্যবহার করা থেকে দূরে সরিয়ে রাখার প্রয়াসী পদক্ষেপ নিয়ে।

নিউজটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2019 Onenews24bd.Com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com