বৃহস্পতিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ১০:৫৩ পূর্বাহ্ন

সিরাজগঞ্জের ঐতিহ্য ও শেকড় তাঁতশিল্প

খন্দকার মোহাম্মাদ আলী, সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি
  • আপডেট সময় শনিবার, ৯ জানুয়ারী, ২০২১
  • ৮৭ বার পড়া হয়েছে
সিরাজগঞ্জের ঐতিহ্য ও শেকড় তাঁতশিল্প

তাঁতশিল্প বাংলার একটি ঐতিহ্য কিন্তু বর্তমানে এ ঐতিহ্য আমরা হারাতে বসেছি। বাংলাদেশের তাঁতশিল্পের সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে আছে সিরাজগঞ্জের নাম।

সিরাজগঞ্জের বেলকুচি, এনায়েতপুর,শাহজাদপুর,  উল্লাপাড়া উপজেলা তাঁতশিল্পের প্রসিদ্ধ অঞ্চল। দুই দশক আগেও যমুনার এই নিম্নাঞ্চলে হতো না সেরকম চাষাবাদ। যমুনার ভয়াল আগ্রাসনে বছরের অর্ধেক সময় থাকতো পানিতে নিমজ্জিত। সেই থেকেই এই অঞ্চলে তাঁতের প্রচলন।

বেলকুচি ১৬৪.৩১ বর্গ কিলোমিটার আয়তনে জেলার ২য় ক্ষুদ্রতম উপজেলা। এই এলাকার অধিকাংশ মানুষই তাঁতশিল্পের সাথে প্রত্যক্ষ পরোক্ষভাবে জড়িত। আশার কথা হলো হস্তচালিত তাঁতশিল্পের জন্য বেলকুচি উপজেলা বিখ্যাত। তবে বর্তমানে পাওয়ারলুম (মোটর চালিত) তাঁতশিল্পের সংখ্যাও নেহাত কম নয় বিদ্যূৎ এর সুবিধা থাকায় এখন কারিগররা হস্তচালিত তাঁতশিল্পকে মোটর চালিত তাঁতে রুপান্তর করতে ব্যস্ত। এতে করে উৎপাদন বাড়ছে, লাভ বেশী হচ্ছে। এখানকার তাঁতকলে উন্নত মানের লুংঙ্গি, শাড়ী তৈরী করা হয় । পুরো উপজেলা জুড়েই তাতেঁর উপস্থিতি লক্ষ্য করা যায় ।

তাতেঁর খট খট শব্দে এখানকার মানুষের ঘুম আসে আবার ঘুম ভাঙ্গে। উপজেলার লোকজনের পাশাপাশি দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের লোকজন এই পেশার সাথে জড়িত। বিশেষ করে রংপুর, কুড়িগ্রাম, পঞ্চগড়, গাইবান্ধা, দিনাজপুর সহ দেশের বিভিন্ন প্রান্তের লোকজন এই উপজেলায় কাজ করে।

বেলকুচির সোহাগপুর হাটের মাধ্যমে এখানকার লুঙ্গি, শাড়ী সারা দেশে ছড়েিয় পড়ে। দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে ব্যবসায়ীরা হাটে আসে এবং পাইকারী লুঙ্গি, শাড়ী, কাপড় ক্রয় করে। বিভিন্ন উৎসবে বাঙালি রমনীদের প্রথম পছন্দ তাঁতের শাড়ী। তাছাড়া বিভিন্ন উৎসব/পার্বণের শাড়ী তৈরী হয় এই অঞ্চলে। বেলকুচির বাহারী নজরকাড়া বৈশাখী শাড়ীর জুড়ি মেলা ভার। বেলকুচির লুঙ্গির ও কদর রয়েছে সারাবিশ্বে। লুঙ্গি রপ্তানিতে সিআইপি পদক রয়েছে এই অঞ্চলের লুঙ্গির। আমানত শাহ লুঙ্গি, ফজর আলী লুঙ্গি, বাবা লুঙ্গি,ক্লোজআপ লুঙ্গি সহ নামধারী লুঙ্গির কারখানা অবস্থিত বেলকুচিতে।

 

দেশীয় কাপড়ের প্রায় ৬০ শতাংশ উৎপাদিত হয় সিরাজগঞ্জে। বেলকুচির তাঁতশিল্প সঠিক পৃষ্ঠপোষকতা পেলে বাঙালির ইতিহাস, ঐতিহ্য, সংস্কৃতির ধারা অব্যাহত থাকবে হাজার বছর।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2020 Onenews24bd.Com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com