শুক্রবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৯, ১২:৩৩ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
হোসেনপুরে হতদরিদ্র ৯০ বছরের সেই বৃদ্ধার খোঁজে জেলা পরিষদের সদস্য মাসুদ আলম জাককানইবিতে চলছে তিনদিনব্যাপী লালন স্মরণোৎসব ২০১৯ ফিলিপাইনে ভূমিকম্পে ৪ জনের প্রাণহানি বাংলাদেশেল মাটিতে প্যারাগুয়ে ম্যাচ দিয়ে আন্তর্জাতিক ম্যাচে ফিরছেন মেসি বাংলাদেশ এখন বিশ্ব ফুটবলের রাজধানী, বললেন ফিফা সভাপতি যুবলীগের দুর্নীতিবাজ কেউ যেন গণভবনে না আসে- প্রধানমন্ত্রী সৌদিতে সড়ক দুর্ঘটনায় ৩৫ উমরাহ যাত্রীর মৃত্যু রিভার বাংলা নদী সভা’র কিশোরগঞ্জ জেলা কমিটি গঠিত নিকলীতে পুলিশের পৃথক অভিযানে যাবৎ জীবন সাজাপাপ্ত আসামি ও ইয়াবা ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার ২০২১ অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ আয়োজনের দায়িত্ব পেল বাংলাদেশ

সীমান্তহীন ইউরোপের ইতিহাস ও ঐতিহ্যে ভ্রমণ – অনার্য রব

ওয়ান নিউজ 24 বিডি ডেস্ক
  • আপডেট সময় বৃহস্পতিবার, ১৫ নভেম্বর, ২০১৮
  • ১৭৯ বার পড়া হয়েছে

দেশের সীমানা পেরিয়ে বিদেশ বিভুইয়ে মানুষের ঘুরে বেড়ানোর আকাঙ্খা চিরন্তন। নিজেকে চেনার পর মানুষ পরিপার্শ্বকে চেনে। এরপর ক্রমান্বয়ে সে পরিপার্শ্বকে ডিঙিয়ে যায় অধিক দূরের সমাজ ইতিহাসকে জানতে। দেশ ভ্রমণ শুধু কোনা ভূগোল ঘুরে বেড়ানো নয়, একই সাথে সে স্থানের রাজনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক , নৃতাত্ত্বিক, সমাজতাত্ত্বিক ইতিহাস অনুসন্ধান। এই অনুসন্ধানের কোন একাডেমিক বাধ্যবাধকতা নাই। এই অনুসন্ধান একান্তই ব্যক্তির অভিরুচি, তাঁর পঠন, পাঠন, দৃষ্টিভঙিও ঝোঁক দ্বারা নির্ধারিত। কেউ তাঁর ঘার চেঁপে ধরে না; তবু সে নির্দিষ্ট লক্ষ্যে অভীষ্ট থাকেন। একচুল এদিক-সেদিক হলে পুনরায় দিগুণ উৎসাহ নিয়ে লক্ষ্যের দিকে ধাবিত হন। অর্থাৎ তিনি ধাবমান থাকেন, আর তাঁকে চালিত করে তাঁর ঝোঁক। কোনো স্থাপনা দেখেই শুধু তিনি আবেগে আহা উহু করে উঠেন না, তিনি স্থাপনার ঠিঁকুজি সন্ধান করেন। কোন স্থাপত্যরীতি মেনে স্থাপনাটি তৈরী করা হলো, কোন সময়ে কে সেটা বানাল, কী তাঁর অভিপ্রায় ছিল, রাজনৈতিক অর্থনৈতিক কোন পরিস্থিতে এই নির্মাণকাজ শুরু হয়, শাষক গোষ্টি কারা ছিল, তাঁদের দৃষ্টিভঙ্গিই বা কী ছিল এই যে একটি স্থাপত্যকে আধেয় করে সমাজ ইতিহাসের খুব ভেতরে ঢুকে অধ্যয়ন, এটাই হচ্ছে ব্যক্তির রুচির বাধ্যবাকতা। আর এখানেই কোন ভ্রমনকারী নিজেকে অনন্য করে তোলেন। তিনি নিজের জাতকে চেনান। আমরা ফারুক মঈনউদ্দিনের ‘সীমান্তহীন ইউরোপের প্রান্তদেশে’ পাঠ করে ইউরোপের দেশে দেশে ঘুরে বেড়ানোর সাথে সাথে ঘুরে আসি ইতিহাস, ঐতিহ্য, সংস্কৃতি ও স্থাপত্যশৈলির আল ধরে।

বিলাতের বিড়ম্বনা কাটিয়ে ইতিহাস ও সংস্কৃতি পাঠ: লেখক বিলাতের ভ্রমণ দিয়ে তাঁর গ্রন্থ শুরু করেন। এবং প্রথমেই আমাদের জানান তার বিড়ম্বনার কথা। আমাদের অনেকদিনের গড়ে ওঠা ঔপনিবেশিক মোহকে তিনি ভেঙ্গে দেন। আমাদের অনেকের ধারনা, খোদ লন্ডন মানেই সব কিছু চাকচিক্যময়, সাজানো গোছানো ছবির মতো; কোথাও ছন্দপতন নেই, নেই কোনো সাধারন খেতা। কিন্তু আমারা জানতে পারি এক সময়ে যার সূর্য অস্ত যেতনা, সেই মহা পরাক্রমশীল সাম্রাজ্যের খোদ রাজধানী শহরের কোন আবাসিক হোটেলের সংকীর্ণ করিডোর পেরিয়ে ভুলভুলাইয়ার মতো গোলকধাঁধার মধ্যে ৫ তলায় উঠতে হয় সিঁড়ি বেয়ে, কারণ সে হোটেলে কোন লিফটের ব্যবস্থা নেই। এমনকি রুমের ভেতরে কোন ফ্যান নেই। এবং এমনকি কলে পানি পর্যন্ত নেই। শুনতে আশ্চর্য লাগে, অথচ এট্াই বাস্তব! কিন্তু ভাড়া নিচ্ছে সে ২২৫ পাউন্ড( তিন দিনের) এবং সেটা প্রথমেই আদায় করে নিচ্ছে কড়ায় গ-ায়। লেখক আমাদের বলেন, ‘অদৃশ্য হোটেল কর্মীদের রেখে যাওয়া ঠান্ডা হয়ে যাওয়া সেই নাস্তা খেতে খেতে হোটেলটির দৈনিক ভাড়া পচাঁত্তর পাউ-ের সঙ্গে টাকার বিনিময় হার হিসাব করতে গিয়ে সেই নাস্তা আরও বিস্বাদ মনে হয়।’ এই ব্রম্পটন হোটেলে লেখক এক রাতের বেশী থাকেননি। এরপর লেখক আমাদের জানান, কার্ল মাক্সের সমাধি দর্শন, চার্লস ডিকেন্স মিউজিয়াম দর্শন, এরপর আমরা লেখকের সাথে ঘুরে আসি লন্ডন স্কুল অব ইকোনমিক্স, বহুজাতিক ভবনের রাজত্বভরা ক্যানারী হোয়ার্ফ, টাওয়ার ব্্িরজসহ লন্ডন শহরের কিছু উল্লেখযোগ্য স্থান ও স্থাপনা। সাথে সাথে পেয়ে যাই ব্যাপক তথ্যের ভান্ডার। প্রতিটি দর্শনীয় স্থানের দর্শনের সাথে সাথে লেখক আমাদের জানিয়ে দেন সেই স্থান বা সেই ব্যক্তি সম্পর্কে প্রয়োজনীয় ইতিহাস ও খুটিনাটি অনেক তথ্যাদি। যার জন্য পাঠকের ভ্রমনটিই হয় ইতিহাস সমৃদ্ধ। লেখকের বর্ণনা, ভাষা ও বাগবিধি ব্যবহার বারবার আমাদের স্মরণ করিয়ে দেয় যে তিনি একজন শক্তিশালী কথা সাহিত্যিক। যেমন তিনি বলেন, ‘লন্ডনের সেন্ট প্যানাক্রাস স্টেশনে দাঁড়িয়ে থাকা জলঢোঁড়া সাপের মতো আপাত – নিস্তেজ ট্রেনটিতে ওঠ্র আগে কন্ডাক্টর গার্ডকে জিজ্ঞেস করি, ভাই, এ ট্রেন হ্যারোহেট যাবে তো ? এ রকম অসাধারন বর্ণনাভঙ্গি পুরো গ্রন্থ জুড়েই রাজত্ব করেছে । লেখকের ইংল্যান্ডের গ্রাম অর্থাৎ কান্ট্্ির সাইড দেখার ইচছা ছিল । তিনি আমাদের ইংল্যান্ডের ল্যান্ডস্কেপের বর্ণনা দেন, দিগন্তবিস্তৃত মাঠের নেই কোন সমতল বিস্তার, বিভিন্ন কৌনিক ঢালে নানা বর্ণের সমারোহে বিস্তীর্ণ শস্যক্ষেত – সোনালী, হলুদ, সবুজ । …” পুরোনো শহরগুলো ও সেখানকার পুরোনো স্থাপত্য দর্শন লেখকের আগ্রহের একটি অন্যতম জায়গা । তিনি দেখতে চান হাইফোর্ডশায়ারের প্রাচীণতম শহর সেন্ট আলবানস । এক কৃষক বিদ্রোহের শহর এটি । চার্চের সঙ্গে সাধারণ মানুষের বিরোধের ফলশ্র..তিতে ঘটে এই বিদ্রোহ । এখানে একটা আবে গেটওয়ে রয়েছে । সেন্ট আলবানস বেশ কয়েকটি নামকরা ছবির শুটিংয়ের জন্য বিখ্যাত । যার মধ্যে বেশ কয়েকটি ছবি লেখকের দেখা । যার জন্য তাঁর উপলব্দির মাএা অন্যদের তুলনায় ভিন্ন । হেমিংওয়ের ঘ্রাণের সন্ধানে প্যারিসের রাস্তায় হেমিংওয়ের ঘ্রাণ যেন এখনও বাতাসে ভেসে বেড়ায় । সেই ঘ্রাণে বশীভুত লেখক একটি স্মৃতিকথার আল ধরে হেঁটে বেড়ান মনএমুগ্ধের মতো । আ মুভেবল ফিস্ট হেমিংওয়ের বিখ্যাত স্মৃতিকথা … সেখানে একটি ক্যাফের কথা উল্লেখ রয়েছে । যাকে হেমিংওয়ে বলেছেন , আ গুড ক্যাফে দ্য প্লাশ সেন্ট মিশেল বলে । অথচ কোথাও তিনি ক্যাফেটার নাম উল্লেখ করেননি । সেই নাম না ক্যাফেটার সন্ধান – বাসনায় লেখকের মনে পড়ে হেমিংওয়ের স্মৃতিচারন, ক্যাফেটা খ্বু আরামদায়ক, উষ্ণ ও পরিস্কার । শুকোবার জন্য আমার পুরোনো বর্ষাতিটা কোট রেখে ঝুলিয়ে একটা ক্যাফে অউ লেইয়ের অর্ডার দেই । বেয়ারা ওঠা রেখে যেতে আমি কোটের পকেট থেকে নোটবুক আর পেন্সিল বের করে লিখতে শুরু করি।

ক্যাফেতে বসে গল্পটা শেষ করার পর হেমিংওয়ে লেখেন, যে কোন শেষ করার পর বরাবরই আমি সঙ্গম-পরবর্তী সময়ের মতো শুন্যতাবোধে যুগপৎ বিষন্ন ও আনন্দিত হই । আ মুভেবল ফিস্ট বইতে উল্লেখ আছে একটি বিখ্যাত বইয়ের দোকানের । শেকসপিয়ার আন্ড কোম্পানী নামক সেই বইয়ের দোকাবে ঢুকে লেখক কাউন্টারে বসা মেয়েটিকে বলার চেষ্টা করেন, হেমিংওয়ের বইতে দোকানের উল্লেখ আছে বলে তিনি দেখতে এসেছেন । কিন্তু , কাউন্টারের মেয়েটি খুব একটা পাওা দেয় না । এই শেক্সপিয়ার অ্যান্ড কোম্পানী যে একটি বিখ্যাত বইয়ের দোকান , এখানে যে আসতেন সিিহত্যের অনেক রথী মহারথীরা সেটা আমরা লেখকের বর্ণনায় জানতে পারি । আরও জানতে পারি দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় জার্মান এক অফিসারকে জেমস জয়েসের কোনো একটা বইয়ের কপিটা দিতে অস্বীকার করায় তারা দোকানটিকে বন্ধ করে দিয়েছিল। এরকম আরও অনেক আকর্ষণীয় তথ্যের ভা-ার পুরো অধ্যায়ের ছত্রে ছত্রে ছড়ানো। লেখক হেমিংওয়ের স্মৃতিচারণার কাছে বার বার ফিরে যান , তিনি প্যারিস অধ্যায় শেষও করেন হেমিংওয়েকে অনুসন্ধানের আবহের মধ্যে থেকে ”–রুয় দেকার্ত ” থেকে হাঁটতে থাকি ”লা মুফতা ” এর খোঁজে ।

পাথর বিছানো রাস্তাটা দিয়ে হাঁটতে গিয়ে হেমিংওয়ের স্মৃতিচারণার কথা মনে পড়ে যায়- এই রাস্তার চরিএ তো খুব একটা পরিবর্তিত হয়নি ,ওয়াইন শপ, ফলের দোকান, বার, ক্যাফে , রেস্তোরাই দখল করে আছে বেশিরভাগ দোকান । কোন গাড়িঘোড়া চলে না এই রাস্তায়, তাই পায়ে হাঁটা মানুষের ভীড়ে আমাদের পুরান ঢাকার মতো কিছুটা ঘিঞ্জি তবে ঝকঝকে পরিস্কার । হেমিংওয়ের বর্ণনাতেও তখনকার ” প্লাশ কঁতাসকাপ” এর একটা ছোট চৌরাস্তায় ” লা মুফতা ” নামের ক্যাফেটা খুঁজে পাই , আমার সব শ্রান্তি যেন নিমিষেই উধাও হয়ে যায় । …”

স্পেনের মুসলিম ও খ্রিষ্টান ইতিহাস; স্থাপত্যের অনুসন্ধান : লেখক প্যারিস থেকে যান মাদ্্িরদে । আতোচা স্টেশন থেকে কর্দোবার উদ্দেশ্যে যাএা করেন তিনি । একসময় এক বর্ধিষ্ণু ইহুদি পল্লি ছিল স্পেনের কর্দোবায় ।মুরীয় মুসলমান শাসনের অধীনে খ্রিষ্টান ও ইহুদি উভয় ধর্মের মানুষই সম্পুর্ণ স্বাধীনতার আস্বাদে ব্যাপক উৎকর্ষ লাভ করে ।যার ফলে কর্দোবা ইউরোপীয় শহরগুলোর মধ্যে শিক্ষা ও সংস্কৃতির কেন্রবিন্দুতে পরিণত হয় । লেখকের বর্ণনাতে এরপর আমরা পাই মুসলিম রাষ্ট্র আল আন্দালুসের রাজধানী কর্দোবা ও অন্যতম বড় শহর গ্রানাদার মুসলিম শাসনের নানা ইতিবৃত্ত স্থাপত্যের নির্দশন, সুরমা ও নান্দনিক নির্মাণ বৈশিষ্ট্যপুর্ণ প্রাসাদ, নির্মাণ রীতির বর্ণনা, খিৃষ্টান শাষকদের কাছে মুসলিমদের পরাজয়ের সময়কার নানা খুটিনাটি কাহিনীর অনুপুঙ্খ বর্ণনা ।

ইতালি, ভ্যাটিকান সিটি, স্ইুজারল্যান্ডও ও ফ্রান্স ভ্রমন: এক কাক ভোরে ইতালির রোম । এয়ারপোর্টে এক ইমিগ্রেশন অফিসার ঘুম ঘুম চোখে লেখকের পাসপোর্ট মোহর লাগিয়ে দিয়েছিল ।তারপর ইতালির একাংশ ঘুরে ইউরো রেলের ঝকঝকে ট্্েরনে কখন সীমান্ত পেরিয়ে সুইজারল্যান্ড ঢুকে পড়েছেন অতটা টের পাননি লেখক । চলন্ত ট্রেনে ইমিগ্রেশন চেক হবে মনে করে পাসপোর্ট হাতের কাছে রাখেন তিনি সাবধানতাবশত । কিন্তু ধড়াচুড়া পরা দুই অফিসার খোশগল্প করে হেঁটে গেলেও তাদের কোনো তৎপরতা দেখা যায় না ।এই যে কোনো রকম ভিসা ছাড়া ইউরোপের একদেশ থেকে আরেক দেশে গমনের সুযোগ এটা সম্বব হয়েছে অখন্ড ইউরোপ তথা ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন তৈরী হওয়ার ফলে ।লেখক সেই ইউরোপীয় ইউনিয়ন গঠিত হওয়ার কথা আমাদের শোনান ।টুরিষ্ট এলাকার বর্ণনা ,ইতিহাসের নানা ইতিবৃত্ত, খাবার দাবাড়ের বর্ণনার বাইরে এইসব অধ্যায়ে আমরা কিছু মানুষের গল্প শুনতে পাই যেগুলো কিছুটা আমাদের জন্য গৌরবের । যেমন সুইজারল্যান্ডের ইন্টারলাকেনে কসোবা থেকে কাজ করতে আসা মুস্তাফা লেখকের পরবর্তী গন্তব্য ফ্রান্স হয়ে স্পেনের মাদ্রিদ ,কর্দোভা আর গ্রানাদা জানার পর বলে, দেখবেন , ইউরোপে মুসলমানরা আবার তাদের কৃতিত্ব দেখাবে, যেমন একসময় দেখিয়েছেন আল জাবুর, ইবনে সিনা- এঁরা ।আমরা দেখা পাই কাদের সাহেবের যিনি লেখকের জেদের কাছে হার মেনে লেখককে মাতেরা যাওয়ার কোনো বিকল্প যানের সন্ধান দিতে না পেরে নিজেই ড্রাইব করে নিয়ে যান ।৭০ কিমি পথ কাদের সাহেবকে একা ফিরতে হবে এই ভাবনায় লেখক তাঁর জন্য কাতর হয়ে পড়েন । কাদের সাহেব ইতালির বাড়িতে একটি শহীদ মিনার তৈরী করেছেন যেটাকে তিনি উদ্ধোধন করিয়েছেন বাংলাদেশের তৎকালীন স্পীকার দিয়ে ।লেখক মাতেরা গিয়েছিলেন হাজার হাজার বছর আগের পাথর খোদাই করা গুহাস্থাপত্য দেখতে । পৃথিবীতে অস্তিত্বশীল অল্প কিছু সেইসনব অবিশ্বাস্য গুহাস্থাপত্য ও গুহাভাস্কর্যের মধ্যে আমাদের পাশের দেশের অজন্তা এবং ইলোরা অন্যতম । ইতালি গিয়ে লেখক আর একটি এরকম গুহাস্থাপত্যের সন্ধান পেয়ে না দেখে ফিরতে চান নি ।

রোমের কন্টিনেণ্টাল হোটেলে চেকইন করার সময় লেখকের পাসপোর্টটি রেখে দেয়া হয়েছিল ফটোকপি করার জন্য ।পরে পাসপোর্ট ফেরত দেয়ার সময় কাউন্টারের মেয়েটি বলে আপনি প্রফেসর ইউনুসকে চেনেন? পাসপোর্টে লেখকের বাড়ি চিটাগাং দেখে এক ইউরোপিয়ান মেয়ের এই উৎসুক্য রীতিমত অনুভুতিও হয়েছে তাই । তিনি বলেছেন, যাক মেয়েটির কাছে দামটা একটু বেড়ে গেল । লেখকের চোখ দিয়ে এরপর আমরা দেখি ৭৯ খৃীষ্টাব্দের অগ্নুপাতে ধ্বংস হওয়া পম্পেই নগরী ।পম্পেইয়ের বহু নিদর্শন ভস্মের নিচে ১ হাজার ৭০০ বছর চাপা পড়ে থেকেও অবিকৃত অবস্থায় রয়ে গেছে । এটা একটা বিরাট বিস্ময়! কিন্তু এর রহস্য লেখক পরের লাইনেই আমাদের জানিয়ে দেন। চাপা পড়া অবস্থায় বাতাসের সংস্পর্শে না আসাই এর মূল কারণ । ফ্লোরেন্সে লেখক লেওনার্দো দ্য ভি.ন,,চি.. মিউজিয়ামে যান । সেখানে তিনি আবিস্কার করেন ভি….র বহুমুখী কাজের সম্ভার ।তিনি শুধু পৃথিবী কাঁপানো ছবিই আঁকেননি। বহু বৈ…. যন্ত্রপাতি, যুদ্ধসরঞ্জামাদিসহ নানা কিছুর নকশা করে গিয়েছিলেন তিনি । কালের কঙ্কাল রোমের কলোসিয়ামে গিয়ে লেখকের শরীরে শিহরণ খেলে যায় । স¤্রাট নিরোর বিশালাকৃতির ভাস্কর্যের কারনে এর নাম হয় ”কলোমিয়াম” ।স¤্রাট নিরোর মৃত্যুর পর পরবর্তী শাসকরা ।এম্পিথিয়েটার নির্মাণ করে একে একটি বিনোদনকেন্দ্রে পরিণত করে । লেখক জানান,” পশুহত্যার উৎসব শেষ হলে শুরু হতো মূল অনুষ্টান – গ্লাডিয়েটরদের মল্ল যুদ্ধ ।এর আগে অনুষ্টানের সহকারীরা বেত, আগুন এবং লাি হাতে তৈরী থাকতো, যাতে অনিচছুক বা জবরদস্তি করে নামানো যোদ্ধাদের পিটিয়ে এবং ভয় দেখিয়ে মাঠে রাখা যায় । … কলোসিয়ামের এরেনাতে মরনযুদ্ধের খেলায় অংশ নিত দুই শ্রেণির মানুষ একদল মানুষ ছিল দরিদ্র ক্রীতদাস , আসামি বা যুদ্ধবন্ধি । এদের বেশীর ভাগকেই নিরস্ত্র অবস্থায় হিংস্র পশুর সঙ্গে যুদ্ধ করতে নামিয়ে দেয়া হতো। এক হিসেবে জানা যায়, কলোসিয়ামের নিষ্টুর প্রাণঘাতি এই খেলায় প্রায় ৫ লাখ মানুষ এবং ১০ লক্ষাধিক পশু প্রাণ দিয়েছে।

ভ্যাটিকান একটা দেশের মধ্যে আরেকটা দেশ, দৈর্র্ঘ্য-প্রস্থে আধাকিলোমিটারের কম, অর্থাৎ ০.৪ বর্গকিলোমিটারের আয়তনের ভূখ-টি রোমের ভেতর একটা ছোট্ট দ্বীপ যেন। লেখক ভ্যাটিকান সিটি ঘুরে পৌঁছান জলে ভাসা ভেনিসে। যদিও ভেনিসে হোটেল ভাড়া অত্যাধিক বেশি হওয়ার কারণে চট্টগ্রামের ফটিকছড়ির মোস্তফা সায়েবের পরামর্শে শেষ পর্যন্ত ভেনিসের এক স্টেশন আগের মান্ত্রেতে থাকার সিদ্ধান্ত নেন লেখক। মূলত ভেনিস একটি খাল বিল জলের শহর। খাল বিলের আধিক্যের জন্য বরিশালকে বলা হয় বাংলার ভেনিস। আমরা জানতে পারি, এই নামকরণ করেছিলেন কবি কাজী নজরুল ইসলাম। কিন্তু মজার বিষয় জীবনে কস্মিনকালেও কবি নজরুল ভেনিস যাননি। ভেনিসের কোথাও গাড়ি চলে না। ইতালির মূল ভূখন্ড থেকে সান্তা ক্রোশে পর্যন্ত গাড়িতে আসা যায়। পুরো ভেনিসের ছয়টা জেলা ঘুরে দেখার উপায় হচ্ছে পায়ে হাঁটা। একমাত্র ব্যতিক্রম ব্যবস্থা হচ্ছে জলযান। যদিও ভেনিসের একেকটি জেলা মোটেও বড় কিছু নয়। আমাদের দেশের একেকটি মহল্লার সমান। দেশ ভ্রমণের দুটি উপায়-একটি হচ্ছে স্ব-শরীরে কোনো দেশে চলে যাওয়া, আর একটা হচ্ছে কোনো ভ্রমনকাহিনী পড়া। আমরা কথা সাহিত্যিক ফারুক মঈনউদ্দীনের ভ্রমণকাহিনী পড়ে সেই স্বাদ পাই। লেখকের সাথে সাথে পাঠক যেন ঘুরে আসে একেকটা দেশে, তার প্রকৃতিতে, ঐশ্বর্যে ও ইতিহাসে। লেখকের বর্ণনভঙ্গি ও গল্প বলার ঢংয়ে পাঠক এই মানসভ্রমণ বেশ রসিয়ে রসিয়ে উপভোগ করে। তবে কিছু কিছু অধ্যায়ে ইতিহাসের তথ্য যেন পাঠকের ঘাড়ে চেপে বসে। ইতিহাসের তথ্য- উপাত্তের ভারে কিছু কিছু অধ্যায় পড়তে বেশ বেগ পেতে হয়। এছাড়া লেখকের সাথে ‘সীমান্তহীন ইউরোপের প্রান্তদেশে‘ সহভ্রমনে পাঠক বেশ আয়েশি ভঙ্গিতেই উপভোগ করবেন বলেই আমার বিশ্বাস।

নিউজটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2019 Onenews24bd.Com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com