শুক্রবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৯, ১২:০৭ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
হোসেনপুরে হতদরিদ্র ৯০ বছরের সেই বৃদ্ধার খোঁজে জেলা পরিষদের সদস্য মাসুদ আলম জাককানইবিতে চলছে তিনদিনব্যাপী লালন স্মরণোৎসব ২০১৯ ফিলিপাইনে ভূমিকম্পে ৪ জনের প্রাণহানি বাংলাদেশেল মাটিতে প্যারাগুয়ে ম্যাচ দিয়ে আন্তর্জাতিক ম্যাচে ফিরছেন মেসি বাংলাদেশ এখন বিশ্ব ফুটবলের রাজধানী, বললেন ফিফা সভাপতি যুবলীগের দুর্নীতিবাজ কেউ যেন গণভবনে না আসে- প্রধানমন্ত্রী সৌদিতে সড়ক দুর্ঘটনায় ৩৫ উমরাহ যাত্রীর মৃত্যু রিভার বাংলা নদী সভা’র কিশোরগঞ্জ জেলা কমিটি গঠিত নিকলীতে পুলিশের পৃথক অভিযানে যাবৎ জীবন সাজাপাপ্ত আসামি ও ইয়াবা ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার ২০২১ অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ আয়োজনের দায়িত্ব পেল বাংলাদেশ

সৈয়দ আশরাফের মৃত্যুতে শোকের ছায়া তাঁর কর্মের স্বীকৃতি হিসাবে রাষ্ট্রিয় সম্মাননা দাবী

ওয়ান নিউজ 24 বিডি ডেস্ক
  • আপডেট সময় শুক্রবার, ৪ জানুয়ারী, ২০১৯
  • ১৯৯ বার পড়া হয়েছে

কিশোরগঞ্জ, ০৪ জানুয়ারী :
জন প্রশাসন মন্ত্রী, আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও সাবেক সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের মৃত্যুতে গভীর শোকাচ্ছন্ন তাঁর বাড়ি সদর উপজেলার বীর দামপাড়া গ্রাম থেকে পুরো কিশোরগঞ্জের মানুষ। সদ্য প্রয়াত সৈয়দ আশরাফুল ইসলামকে একজন সৎ, পরোপকারী, নির্লোভ ও নিরহংকারি মানুষ হিসাবে বর্ণনা করে তাঁর কর্মের রাষ্ট্রিয় স্বীকৃতি দাবী করেছেন তাঁর আত্মীয়, বাল্য বন্ধু ও দলের নেতৃবৃন্দ। এ ছাড়াও সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের মরদেহ কিশোরগঞ্জে এনে শেষবারের মত তাঁকে দর্শনসহ জানাযার দাবী করেছেন সকলেই।
যশোদল ইউনিয়নের বীর দামপাড়া গ্রামের বাসিন্দা ও প্রতিবেশী মোঃ শাহাবুদ্দিন স্মৃতিচারনা করতে গিয়ে অশ্রুসিক্ত নয়নে বলছিলেন, সে (সৈয়দ আশরাফ) ছিল আমার বাল্য বন্ধু ও বয়সে আমার থেকে সাতদিনের ছোট। ছুটি-ছাটায় সে যখনই বাড়িতে আসত, আমরা একসাথে খেলাধুলা করতাম, ঘুরে বেড়াতাম ও গল্প গুজব করতাম। আমার সাথে সে মনের সব কথা বলত। মন্ত্রি হওয়ার পরও এই বন্ধুত্বে ছেঁদ পড়েনি। সব সময়ই আমার খবর রাখত এবং যে কোন প্রয়োজনে সহায়তার হাত বাড়িয়ে দিত। আশরাফ সব সময়ই দুর্নীতির বিরুদ্ধে থেকে সততার কথা বলত। সে যে কি পরিমাণ সৎ ও স্বচ্ছ মানুষ ছিলো তা একমাত্র প্রধানমন্ত্রি শেখ হাসিনাই ভালো বলতে পারবেন। তাঁর কর্মের স্বীকৃতি হিসাবে রাষ্ট্রিয় সম্মাননা দেয়া উচিৎ।
সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের চাচাত ভাই সৈয়দ আব্দুল্লাহ হাসান হারুন বলেন, সে ছিল অত্যন্ত ন্যায়নিষ্ঠ ও সৎ মানুষ। তাঁর এতটাই দেশ প্রেম ছিল যে, স্থানীয় সরকার মন্ত্রি হওয়ার পর একবার আমি তাঁকে জিজ্ঞেস করেছিলাম, তুমি তো রাত-দিন দেশের জন্য কাজ করছ। কিন্তু নিজের স্বার্থের জন্য কি করেছ। সে উত্তর দেয় এই বলে, গ্রাম-বাংলার প্রতিটি ঘরই আমার ঘর, প্রতিটি মানুষই আমার স্বজন। কেউ আমার আলাদা নয়।
অপর চাচাত ভাই সৈয়দ আল বোরহান বলেন, সে এতই অমায়িক ছিল যে বাড়িতে এলে আমাদেরকে সুযোগ না দিয়ে নিজেই প্রথম আত্মীয়-স্বজন ও পাড়া-প্রতিবেশীদের কুশল জিজ্ঞেস করত। সে সব সময়ই আমাদের খোঁজ-খবর রাখত ও প্রয়োজনে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিত। ছুটিতে বাড়িতে আসলে আমরা একসাথে খেলাধুলা ও আনন্দ-স্ফুর্তি করতাম।

বীর দামপাড়া গ্রামে সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের পৈতৃক বাড়ি দেখাশুনা করেন খোরশেদা খাতুন। তিনি বলেন, সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের মা ও সৈয়দ নজরুল ইসলামের স্ত্রী সৈয়দা নাফিসা ইসলাম প্রায় চল্লিশ বছর আগে আমাকে এই বাড়ি দেখা-শুনার জন্য রেখে যান। তারপর থেকে আমি এই বাড়ি দেখা-শুনা করে আসছি। এই বাড়িতে সৈয়দ নজরুল ইসলামের জন্ম ও শৈশব কাটলেও পেশাগত কারণে তিনি পরিবার নিয়ে ময়মনসিংহ জেলা সদরে থাকতেন। আমার নিজস্ব বাড়ি নির্মাণের জন্য তাঁর মা আমাকে এই বাড়ির পাশেই ১৫ শতাংশ জায়গা দিয়ে গেছেন। ৭৫ সালের দুঃখজনক ঘটনার পর দীর্ঘ ১৭ বছর সৈয়দ আশরাফ এই বাড়িতে আসেননি। তিনি যখনই আসতেন আমার কুশলাদি জেনে নিতেন ও সাহায্য-সহযোগীতা করতেন।
প্রতিবেশী মোঃ বাছির মিয়া বলেন, সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের কাছে কোন কাজের জন্য গেলে তিনি ফিরিয়ে দেননি।

যশোদল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি শফিকুল হক বাবুল ও সাধারণ সম্পাদক স্বপন কুমার রায় বলেন, সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম সারা জীবন নিঃস্বার্থভাবে দেশের জন্য কাজ করে গেছেন। তিনি ছিলেন সৎ ও নির্মোহ রাজনীতিক, কখনো অসৎ ও দুর্নীতিবাজকে প্রশ্রয় দেননি। আমরা একুশে বা স্বাধীনতা পদকের মাধ্যমে সম্মাননা প্রদান করে তাঁর কর্ম ফলের রাষ্ট্রিয় স্বীকৃতি দাবী করছি। তা ছাড়া টানা পাঁচবার নির্বাচিত সংসদ সদস্য এলাকার রতœ সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের মরদেহ যেন কিশোরগঞ্জে এনে জানাযার আয়োজন করা হয়, যেন আমরা শেষ বারের মত তাঁকে এক নজর দেখতে পারি। এটা আমাদের প্রাণের দাবী। এ ছাড়া তাঁর হাতে নেয়া উন্নয়ন কাজগুলি যেন সুন্দরভাবে সমাপ্ত হয় এজন্য প্রধানমন্ত্রির বিশেষ বিশেষ দৃষ্টি কামনা করছি।
এর আগে গতকাল রাতে সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের মৃত্যু সংবাদ প্রচারের সাথে সাথে কিশোরগঞ্জে শোকের ছায়া নেমে আসে। দলীয় নেতাকর্মীসহ অনেকেই রাতে ভিড় করেন জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে। শোকে স্তব্ধ হয়ে পড়ে নেতা-কর্মী, শুভাকাংখি, স্থানীয় এলাকাবাসীসহ জেলার সর্বস্তরের মানুষ।

নিউজটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2019 Onenews24bd.Com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com