বুধবার, ১০ অগাস্ট ২০২২, ০৭:৪৩ পূর্বাহ্ন

স্ত্রীর পরকিয়ায় বাধা দেওয়ায় ভাড়াটে খুনী দিয়ে স্বামীকে হত্যা

ওয়ান নিউজ 24 বিডি ডেস্ক
  • আপডেট সময় মঙ্গলবার, ৫ মার্চ, ২০১৯

পরকীয়া প্রেমে বাধা ও ধার নেয়া টাকা আত্মসাতের জন্যই নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জের পোশাককর্মী আমিনুল ইসলাম কালুকে ভাড়াটে খুনি দিয়ে জবাই হত্যা করে তার স্ত্রী রিক্তা বেগম। হত্যাকান্ডের পর সোনারগাঁও উপজেলার কাইকারটেক কাফুরদী এলাকার ব্রহ্মপুত্র নদের তীর লাশ ফেলে দেয়া হয়। স্বামীকে খুনের জন্য মাত্র তিন হাজার টাকায় তিনি খুনীদের ভাড়া করেন। চুক্তি অনুযায়ী খুনের আগে অগ্রিম এক হাজার ও খুনের পর দুই হাজার টাকা পরিশোধ করা হয় খুনিদের।

সোমবার নারায়ণগঞ্জের পৃথক চারটি আদালতে নিহত কালুর স্ত্রী রিক্তা বেগম (২৫), তার পরকীয়া প্রেমিক রেজাউল করিম পলাশ (৩০) ও তাদের ভাড়া করা দুই খুনী মাসুম হোসেন এবং ইমরান এ হত্যাকান্ডের চাঞ্চল্যকর তথ্য প্রকাশ করে হত্যার দায় স্বীকারসহ জবানবন্দি দিয়েছেন। দুপুর থেকে বিকেল পর্যন্ত নারায়ণগঞ্জ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আহমেদ হুমায়ূন কবির, ফাহমিদা খাতুন, মাহমুদুল মহসিন ও আফতাবুজ্জামানের আদালত পৃথকভাবে এ চারজনের জবানবন্দি রেকর্ড করা হয়।

এর আগে রবিবার রাতে কালু হত্যাকান্ডের ঘটনায় সোনারগাঁও থানায় বাদি হয়ে তার বড় ভাই সামছুল হকের দায়ের করা দায়ের করা হত্যা মামলার এই চার আসামীকে সিদ্ধিরগঞ্জ ও বন্দর এলাকা থেকে পুলিশ গ্রেফতার করে। এর পরদিন সোমবার দুপুরে জেলা পুলিশ সুপার হারুন অর রশিদ তার কার্য্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে গণমাধ্যম কর্মীদের এ তথ্য জানান।

নারায়ণগঞ্জের পুলিশ সুপার হারুন অর রশিদ জানিয়েছেন, সোনারগাঁ থানা পুলিশের ওসি মনিরুজ্জামান এ মামলার তদন্তভার গ্রহণ করেন। বিভিন্ন তথ্যের মাধ্যমে আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে একাধিক টিম নিয়ে সিদ্ধিরগঞ্জ থানা ও বন্দর থানা এলাকায় বিশেষ অভিযান চালিয়ে ঘটনার সঙ্গে জড়িত চারজনকে শনাক্ত করে তাদেরকে তিনি গ্রেফতার করেন। পরে পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে হত্যাকান্ডের চাঞ্চল্যকর সব তথ্য বেরিয়ে আসে।

গ্রেফতারকৃতরা জিজ্ঞাসাবাদে পুলিশকে জানায়, আমিনুল ইসলাম কালুর স্ত্রী রিক্তা বেগমের (২৫) সঙ্গে তাদের বাসার ভাড়াটিয়া রেজাউল করিম পলাশের (৩০) পরকীয়া প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। এ ঘটনার জেরে কালুকে হত্যার পরিকল্পনা করে রেজাউল করিম পলাশ ও স্ত্রী রিক্তা বেগম। পরিকল্পনা অনুযায়ী মাসুম ও ইমরানকে ভাড়া করা হয়। ১ মার্চ সন্ধ্যা ছয়টায় বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে রাত সাড়ে আটটায় কালুকে ছুরি দিয়ে জবাই করে হত্যার পর লাশ ফেলে যায় তারা। ২ মার্চ সকালে সোনারগাঁ উপজেলার কাইকারটেক কাফুরদী এলাকার ব্রহ্মপুত্র নদের তীর থেকে গলাকাটা অবস্থায় আমিনুল ইসলাম কালুর লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। পরের দিন পরিচয় নিশ্চিত করে কালুর ভাই সামছুল হক বাদী হয়ে সোনারগাঁও থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন। এরপরই বেরিয়ে আসে হত্যার রহস্য। পরে পুলিশ ঘটনায় জড়িতদের গ্রেফতারসহ হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত ছুরি উদ্ধার করে।

এদিকে আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে আসামীরা জানিয়েছেন, মাত্র তিন হাজার টাকার বিনিময়ে ভাড়াটে খুনি দিয়ে গলা কেটে কালুকে হত্যা করে তার স্ত্রী রিক্তা গেম ও পরকীয়া প্রেমিক পলাশ। তাদের পরকীয়া প্রেমে বাধা ও ধার নেয়া টাকা আত্মসাতের জন্যই পূর্ব পরিকল্পিতভাবে কালুকে ভাড়াটে খুনীদের দিয়ে হত্যা করা হয়।

নারায়ণগঞ্জ কোর্ট পুলিশের পরিদর্শক হাবিবুর রহমান জানান, জবানবন্দি গ্রহণ শেষে চার আসামীকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। জবানবন্দিতে কালুকে হত্যার দায় স্বীকার করেছে। আদালতে তারা হত্যার পরিকল্পনা থেকে শুরু করে হত্যাকান্ড পর্যন্ত পুরো ঘটনার বর্ণ দিয়ে জবানবন্দি দিয়েছে।

আদালতে দেয়া আসামীদের জবানবন্দি উল্লেখ করে সোনারগাঁ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মনিরুজ্জামান জানান, কালুর স্ত্রী রিক্তা তাদের ঘরের পাশের একটি খালি রুম কয়েকজন ব্যাচেলরকে ভাড়া দেয়। কিছুদিন পর সেই ব্যাচেলরদের মধ্যে একজন রেজাউল করিম পলাশের সঙ্গে কালুর স্ত্রী রিক্তা বেগমের প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। কালু কারখানায় কাজে চলে যাওয়ার পর এ সুযোগে রিক্তা ও পলাশ দৈহিক সম্পর্কে মিলিত হতো। বিষয়টি কালুর বাবা আজমত মিয়া ও ছোট ভাই সামছুল হক দেখে ফেলে একাধিকবার বাধা দেয়। তারপরও কালু বিষয়টি গুরুত্ব দেয়নি। এরই মধ্যে কালু জমি বিক্রি করে দুই লাখ টাকা ঘরে এনে রাখলে তার স্ত্রী রিক্তা সেই টাকা থেকে ১ লাখ ৩০ হাজার টাকা নিয়ে পরকীয়া প্রেমিক পলাশকে ধার দেয়। সম্প্রতি কালু পরকীয়া প্রেমে বাধা দিয়ে রিক্তার কাছ থেকে ধার নেয়া ১ লাখ ৩০ হাজার টাকা ফেরত দেয়ার জন্য তাগিদ দিলে রিক্তা ও পলাশ কালুকে হত্যার পরিকল্পনা করে।

Tahmina Dental Care

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2022 Onenews24bd.Com
Site design by Le Joe
%d bloggers like this: