মঙ্গলবার, ২৯ নভেম্বর ২০২২, ০১:০০ অপরাহ্ন

হোল্ডিং ট্যাক্স আদায়ের নামে ইউপি চেয়ারম্যান নিজাম ক্বারির বানিজ্য

আলী হায়দার, কুলিয়ারচর, কিশোরগঞ্জ
  • আপডেট সময় মঙ্গলবার, ১১ অক্টোবর, ২০২২
হোল্ডিং ট্যাক্স আদায়ের নামে ইউপি চেয়ারম্যান নিজাম ক্বারির বানিজ্য

কিশোরগঞ্জের কুলিয়ারচর উপজেলা ৪নং উছমানপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে হোল্ডিং ট্যাক্স আদায়ের নামে ১০ গুন বেশি ট্যাক্স আদায়ের মাধ্যমে ২০ লাখ টাকা আত্মসাৎ করার অভিযোগ উঠেছে। এমন অভিযোগে জেলা প্রশাসক বরাবর লিখিত অভিযোগ করেছেন ইউনিয়নবসীর পক্ষে সাবেক ইউপি সদস্য লিয়াকত আলী গিরানী।

গত ০২ অক্টোবর কিশোরগঞ্জের জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে এ লিখিত অভিযোগ দেওয়া হয়।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, উছমানপুর ইউনিয়নে ট্যাক্স আদায়ের গ্যাজেটে ৯টি ওয়ার্ডে তিন লাখ ৪৮ হাজার চারশো টাকা ধার্য থাকলেও, উছমানপুর ইউপি চেয়ারম্যান নিজাম ক্বারি অতিরিক্ত ১৮ থেকে ২০ লাখ টাকা ট্যাক্স উত্তোলন করে আত্মসাৎ করেন। শতাধিক পরিবারের হোল্ডিং নাম্বার সহ রশিদের মাধ্যমে আদায়কৃত ট্যাক্সের পরিমান উল্লেখ করা এ অভিযোগে দেখা যায়, প্রত্যেক হোল্ডিং থেকে পাঁচশো থেকে দুই হাজার টাকা পর্যন্ত হোল্ডিং ট্যাক্স আদায় করেছেন তিনি।

উল্লেখিত অভিযোগ সূত্র জানা যায়, ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডে হোল্ডিং ট্যাক্স ধার্য আছে ৪০ হাজার চারশো টাকা। এ ওয়ার্ড মোট হোল্ডিং রয়েছে ৩২৯টি, যার মধ্যে মাত্র ১৬৩ টি হোল্ডিং থেকেই রশিদের মাধ্যমে ৮৯ হাজার ৮১০ টাকার ট্যাক্স আদায় করেছে চেয়ারম্যান। যে রশিদগুলো অভিযোগপত্রে উল্লেখ করা হয়েছে।

এছাড়া ইউনিয়নের অসহায় ও বয়স্ক ভাতা ভোগী ২৮৭ জন এবং বিধবা ভাতা ভোগী ১১৭ জন মোট ৪০৪ জন ভাতা ভোগী থেকে চারশো থেকে সর্বোচ্চ ছয়শো টাকা করে ট্যাক্স আদায় করেছে এমন অভিযোগও রশিদ সহ অভিযোগে উল্লেখ করা হয়েছে।

অভিযোগে আরও উল্লেখ করা হয়, বাড়ি বাড়ি গিয়ে রশিদের মাধ্যমে এসব ট্যাক্স আদায় করা হলেও, এর কোন ডকুমেন্টস ইউনিয়ন পরিষদে নাই। এমনকি রশিদের মুড়িও ইউনিয়ন পরিষদের সংরক্ষণ হচ্ছে না। যা একটু তদন্ত করলেই প্রমাণ মিলবে।

এ বিষয়ে অসংখ্য ভুক্তভোগী অভিযোগ করে বলেন, তাদের অনেকে একই অর্থ বছরে দুইবার ট্যাক্স দিয়েছেন। এমনকি ইউনিয়ন পরিষদে যে কোন দরকারে গেলে ট্যাক্স দিতে বাধ্য করেন। অন্যতায় ট্যাক্সের রশিদ না দেখালে জন্ম নিবন্ধন বা কোন সেবা পাওয়া যায় না।

লিখিত অভিযোগকারী সাবেক ইউপি সদস্য লিয়াকত আলী গিরানী বলেন, আমাকেও ২১-২২ অর্থ বছরে দুই বার ট্যাক্স দিতে হয়েছে। যার রশিদ আমার কাছে রয়েছে। এছাড়া অভিযোগ পত্রে শতাধিক পরিবারের হোল্ডিং সহ অতিরিক্ত ট্যাক্স আদায়ের পরিমাণ উল্লেখ করেছি। যা একটু তদন্ত করলেই প্রমাণ পাওয়া যাবে।

অভিযোগ সম্পর্কে জানতে চাইলে ৪নং ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান নিজাম ক্বারি বলেন, তার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যা, উদ্দেশ্য প্রনোদিত এবং এটি আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রে অংশ। মূলত আমি সরকারি সার্কুলারের বেশি এক টাকাও নেইনি। বরং প্রতি মাসে উল্টো আমার পকেট থেকে ২০ হাজার টাকা খরচ হচ্ছে ইউনিয়ন বাসীর সেবায়।

কুলিয়ারচর উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাদিয়া ইসলাম লুনা বলেন, ডিসি স্যার বরাবর একটি অভিযোগ দেওয়া হয়েছে শুনেছি। এ বিষয়ে আমাদের কাছে কোন অভিযোগ আসেনি এবং অভিযোগ তদন্তের দ্বায়িত্বও দেওয়া হয়নি।

এ বিষয়ে কিশোরগঞ্জ জেলা প্রশাসক শামীম আলম অভিযোগ পাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, অভিযোগটি পেয়েছি, এ বিষয়ে তদন্ত চলছে। তদন্তে অভিযোগ প্রমানিত হলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Tahmina Dental Care

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2022 Onenews24bd.Com
Site design by Le Joe
%d bloggers like this: