শনিবার, ১২ জুন ২০২১, ০৮:২৫ অপরাহ্ন

হোসেনপুরের সীমা স্নাতকে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রথম

সঞ্জিত চন্দ্র শীল, হোসেনপুর, কিশোরগঞ্জ
  • আপডেট সময় বুধবার, ২৭ জানুয়ারী, ২০২১
  • ৪২২ বার পড়া হয়েছে

দারিদ্রতা জয় করে কিশোরগঞ্জর জেলার ঐতিহ্যবাহী হোসেনপুর আদর্শ মহিলা ডিগ্রি কলেজের বিএসএস শাখার ছাত্রী সীমা আক্তার ২০১৭ সালের ডিগ্রী (পাস) পরীক্ষায় (২০১৯ সালে অনুষ্টিত) অংশগ্রহণ করে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে মেধা তালিকায় প্রথম স্থান অর্জন করেছেন। সে উপজেলার দক্ষিণ গোবিন্দপুর গ্রামের হতদরিদ্র চাঁন মিয়া ও মাতা রুকুন্নাহারের কন্যা।

 

সাত ভাই বোনের মধ্যে তৃতীয় সীমা। বাবা পুরাতন কাপড়ের ভ্্রাম্যমান ব্যবসায়ী। অভাবের সংসারে আর্থিক সংকট ও প্রতিকূলতার বিরুদ্ধে সংগ্রাম করে লেখাপড়া চালিয়ে যাচ্ছে সে। নিজের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় টিউশনি করে এতদূর এগিয়ে এসেছে সীমা। সে স্থানীয় গোবিন্দপুর উচ্ছ বিদ্যালয় থেকে এসএসসিতে জিপিএ-৩.৭৫ও হোসেনপুর মহিলা কলেজ থেকে এইচএসসিতে জিপিএ-৪.৫ পেয়ে উত্তীর্ণ হয়। অনেক আশা ও স্বপ্ন ছিল ইংরেজিতে অনার্স পড়ার। কিন্তু আর্থিক অসচ্ছলতা ও পারিপার্শ্বিক অবস্থার জন্য অনার্সে পড়ার স্বপ্ন পূরণ হয়নি তার; বাবার ইচ্ছায় হোসেনপুর মহিলা ডিগ্রী কলেজে পাস কোর্সে বিএসএস শাখায় ভর্তি হয়। জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিগ্রী (পাস) পরীক্ষায় তার রোলনং-৭৩৬৯৫৩৬ রেজিঃ ১৪১০২২৩৭২৬৪। দীর্ঘ প্রতীক্ষার পর প্রকাশিত ফলাফলে সীমা আক্তার সিজিপিএ ৪এর মধ্যে ৩.৭৫ অর্জন করে প্রথম শ্রেণিতে প্রথম স্থান অর্জন করেন।

সে মেধাতালিকায় প্রথম স্থান অর্জন করায় জাতীয় বিশ্ব বিদ্যালয় আগামী ১০ ফেব্রয়ারী তাকে আনুষ্টানিক ভাবে সম্মাননা ও পদক প্রদান করা হবে গাজীপুরে। তার প্রিয় শিক্ষক অর্থনীতি বিভাগের প্রভাষক আশরাফ আহমেদ জানান, সে নিয়মিত ছাত্রী ও পড়াশোনায় খুবই মনোযোগী ছিল। সে এত ভাল রেজাল্ট করায় আমরাও খুবই আনন্দিত। তার সাফল্যে মা-বাবা অত্যন্ত আনন্দিত।তারা জানান,“আমাদের মাইয়া হারারাত জাইগ্যা লেহাপড়া করত। দীর্ঘ ১২ মাইল রাস্তা পাযে হাইট্যা প্রতিদিন কলেজে যাইত। তার সব চাওয়া আমরা পূরণ করতে পারি নাই। আল্লায় মুখ তুইল্লা তাকায়ছে।”

 

হোসেনপুর মহিলা ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ মোঃ মোসলেম উদ্দিন খান জানান, সে কলেজের নিয়মিত একজন ছাত্রী।তার এ সাফল্যে শিক্ষক পর্ষদ ও কলেজ পরিচালনা পর্ষদসহ আমরা খুবই আনন্দিত। সীমা আক্তার বলেন, কলেজের অধ্যক্ষ ও শিক্ষকগণের অনুপ্রেরণা ,দিকনির্দেশনা মোতাবেক অধ্যয়ন করায় এত ভালো রেজাল্ট করা সম্ভব হয়েছে। ভবিষ্যতে প্রশাসন ক্যাডারের কর্মকর্তা হয়ে দেশের সেবায় আত্মনিযোগ করতে ইচ্ছা তার । এ জন্য সকলের কাছে দোয়া চেয়েছেন সীমা।

Tahmina Dental Care

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2021 Onenews24bd.Com
Site design by Le Joe
%d bloggers like this: