রবিবার, ০৯ মে ২০২১, ০৮:২৬ অপরাহ্ন

হোসেনপুরে সাদেক খুনের বিচারের দাবিতে মানববন্ধন

ওয়ান নিউজ 24 বিডি ডেস্ক
  • আপডেট সময় সোমবার, ১০ ডিসেম্বর, ২০১৮
  • ৪১৭ বার পড়া হয়েছে

সঞ্জিত চন্দ্র শীল

কিশোরগঞ্জের হোসেনপুরে আলোচিত সাদেক খুনের বিচারের দাবিতে এলাকাবাসী মানববন্ধন করেছে। আজ সোমবার সকালে হোসেনপুর-কিশোরগঞ্জ মহাসড়কের চর-পুমদি বাজার এলাকায় শতশত এলাবাসী ঘন্টাব্যাপী রাস্তা অবরোধ করে বিক্ষোভ মিছিল শেষে মানববন্ধন করেন।
সেখানে এক সংক্ষিপ্ত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন- উপজেলার পুমদি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. মাহবুবুর রহমান, অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম, ইউপি সচিব মো. আসাদুজ্জামান ইউপি সদস্য মো. রহমত আলী , মো. সেলিম মিয়া, নিহত সাদেকের মা মোছা. হেনা আক্তার, বড় ভাই কাঞ্চন মিয়া, ছোট ভাই কবির মিয়া, ছোট বোন মরিয়ম ফারিয়া, সমাজকর্মী আবুল খায়ের আলম, মো. মোশারফ হোসেন, মো.জাহাঙ্গীর আলম, মিনহাজ উদ্দিন কাজল, মো. রিয়াজ উদ্দিন, আবু নাঈম ভ’ইয়া রেনু, আমিনুল ইসলাম প্রমূখ। এ সময় বক্তারা সাদেক খুনের সাথে জড়িতদের দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তির দাবি জানান।
উল্লেখ্য, গত ৬ ডিসেম্বর সন্ধ্যায় হোসেনপুর উপজেলার দক্ষিন চরপুমদি গ্রামের মৃত আব্দুর রশিদের ছেলে সাদেক মিয়াকে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে মোটরসাইকেল যোগে দুই ব্যাক্তি স্থানীয় ভবের বাজারের উদ্দেশ্যে নিয়ে যায়। এর কয়েক ঘন্টা পরে স্থানীয়রা উপজেলার মধ্য পুমদি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পাশে সাদেককে রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করে কিশোরগঞ্জ আধুনিক সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষনা করেন।
এ ঘটনায় গত ৮ ডিসেম্বর সাদেকের বড় ভাই মো. কাঞ্চন মিয়া বাদী হয়ে হোসেনপুর থানার ৯ জনকে আসামী করে একটি হত্যা মামলা (নং-০২) দায়ের করেন। এরই ধারাবাহিকতায় পুলিশ সাড়াশি অভিযান চালিয়ে পুমদি ইউনিয়নের বর্তমান ইউপি সদস্য মো. জামাল মিয়া, মো. ইয়াসিন মিয়া ও মোছা. শাহানা আক্তারকে গ্রেফতার করে জেল হাজতে প্রেরন করেন।
এ ব্যাপারে হোসেনপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মো. আবুল হোসেন জানান, বাদি পক্ষের লোকজন মানববন্ধন করে বিচার দাবি করছে। পুলিশ এ ব্যাপারে তৎপর রয়েছে । ইতিমধ্যে সাদেক হত্যা মামলার তিন আসামীকে গ্রেফতার করা হয়েছে।
আইন অনুযায়ী যা কিছু করার তাই করা হচ্ছে।

amena.com.bd

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2021 Onenews24bd.Com
Site design by Le Joe
%d bloggers like this: