বুধবার, ১৯ মে ২০২১, ০৫:৫৪ পূর্বাহ্ন

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার পদে একসঙ্গে পদোন্নতি স্বামী-স্ত্রীর

ডেস্ক রিপোর্ট
  • আপডেট সময় সোমবার, ৩ মে, ২০২১
  • ১০২ বার পড়া হয়েছে
অতিরিক্ত পুলিশ সুপার পদে একসঙ্গে পদোন্নতি স্বামী-স্ত্রীর

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার পদে সদ্য পদোন্নতি পেয়েছেন জাহিদুল ইসলাম ও শামীমা আক্তার সুমি দম্পতি।

রবিবার (২ মে) স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের উপ-সচিব ধনঞ্জয় কুমার দাস স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনে পুলিশের ১০৫ জন সহকারী পুলিশ সুপার পদমর্যাদার কর্মকর্তাদেরকে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হিসেবে পদোন্নতি পান। ওই তালিকায় একসঙ্গে পদোন্নতি পান জাহিদুল ইসলাম সোহাগ ও তার সহধর্মিণী শামীমা আক্তার সুমী।

জাহিদুল ইসলাম সোহাগ বর্তমানে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের মতিঝিল জোনের সহকারী কমিশনার (এসি) হিসেবে দায়িত্বপালন করছেন, অন্যদিকে তার সহধর্মিণী শামীমা আক্তার সুমী সহকারী কমিশনার (এসি) হিসেবে স্পেশাল ব্রাঞ্চে (এসবি) দায়িত্বপালন করছেন। দু’জনেই ৩৩তম বিসিএসের মাধ্যমে নিয়োগ পান। বরগুনার ছেলে জাহিদ আর মাদারীপুরের মেয়ে সুমী।

২০১৯ সালে রাজধানীর খিলগাঁওয়ে একটি সুপারশপ থেকে দুধ চুরি করতে গিয়ে ধরা পড়ে গণধোলাইয়ের শিকার হয়েছিলেন এক বেকার বাবা। একপর্যায়ে প্রকৃত ঘটনা জানতে পেরে ওই বাবাকে বাঁচাতে এগিয়ে যান তৎকালীন ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের খিলগাঁও জোনের সহকারী কমিশনার (এসি) জাহিদুল ইসলাম সোহাগ।

ওই বছরের ১১ মে ঘটনাটি নিজের ফেসবুক আইডিতে তুলে ধরেন জাহিদুল ইসলাম। পরে সেই পোস্টটি ভাইরাল হয়। দেশজুড়ে সহানুভূতির মধ্যে ওই বাবাকে চাকরি দেয় স্বপ্ন কর্তৃপক্ষ। ঠিক তখন থেকেই আলোচিত পুলিশ অফিসার জাহিদুল ইসলাম সোহাগ।

২০১৯ সালে জাহিদুল ইসলাম বাংলাদেশ পুলিশের সর্বোচ্চ পদক পিপিএম সেবা পদক অর্জন করেন। তার সহধর্মিণীও একজন পুলিশ অফিসার।

তাদের দু’জনের প্রথম দেখা হয়েছিল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে। ৩৩তম বিসিএসের ফল প্রকাশের পর। এর কয়েকদিন পর শুরু হয় পেশাগত প্রশিক্ষণ। কঠোর নিয়মের মধ্যে থাকা সেই প্রশিক্ষণে সামান্যই দেখা হত তাদের। এভাবেই একটা সময় তাদের মধ্যে গড়ে ওঠে বন্ধুত্ব। তারপর প্রেম-ভালোবাসা।

সবশেষ পরিবারের সিদ্ধান্তে বসেন বিয়ের পিঁড়িতে। দিনটি ছিল ২০১৫ সালের ১৭ জুলাই। ছোট থেকেই বাবার স্বপ্ন পূরণে দৃঢ় সংকল্পবদ্ধ ছিলেন সুমী। ভাই-বোনদের মধ্যে সুমী ছিলেন সবার ছোট। সেই সুমীই পূরণ করেছেন বাবার স্বপ্ন।

চাকরির শুরুতে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের সহকারী পুলিশ কমিশনার হিসেবে যোগদান করেন জাহিদ। প্রথমে ডিএমপির প্রটেকশন ডিভিশন, পরবর্তীতে কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিট, তারপরে খিলগাঁও জোনের সিনিয়র সহকারী পুলিশ কমিশনার এবং সর্বশেষ মতিঝিল জোনের সিনিয়র সহকারী পুলিশ কমিশনার হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

দু’জনেই যেহেতু পুলিশ অফিসার, সেহেতু বাইরে কাজ। সন্তান, সংসার কিভাবে সামলান? এমন প্রশ্নের জবাবে শামীমা আক্তার সুমী বলেন, যে কোনও সংসারেই বোঝাপড়াটা খুব গুরুত্বপূর্ণ। পারস্পরিক সহযোগিতা আর নিজেদের মধ্যে বোঝাপড়ার না থাকলে কোনো সম্পর্ককেই বেশিদূর টেনে নেয়া যায় না।

‘একটা সময় সম্পর্কের সূত্রটা ছিঁড়ে যাবেই। যেহেতু চাকরির ধরনের কারণে আমাদের দু’জনের ব্যস্ত থাকতে হয় তাই এর বাইরে পুরোটা সময় আমরা দু’জনের জন্য বরাদ্দ রাখি।’

তিনি বলেন, সত্যি কথা বলতে আমরা দু’জনে খুব পরিবারকেন্দ্রিক মানুষ। এজন্য ব্যস্ততার পরও দুই বাচ্চা আর সংসার সামলাতে এখন পর্যন্ত আমাদের খুব একটুও বেগ পেতে হয়নি। তবে এক্ষেত্রে আমাদের দু’জনের মা-বাবার অবদান অনস্বীকার্য। তাদের দেয়া ও সাপোর্ট ছাড়া সবকিছু এত ভালোভাবে সামলানো প্রায় অসম্ভব ছিল।

ব্যক্তিগত জীবন থেকে শুরু করে কর্মক্ষেত্র সব জায়গাতেই এ দম্পতির জন্য অপেক্ষা করে চ্যালেঞ্জ। আর সেসব চ্যালেঞ্জকে জয় করেই আজ তারা সফল মানুষ, সফল দম্পতি। কোনো বাধাকে বাধা মনে না করে সাহসীকতার সাথে মোকাবিলা করেন তারা।

amena.com.bd

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2021 Onenews24bd.Com
Site design by Le Joe
%d bloggers like this: