সোমবার, ০১ মার্চ ২০২১, ১০:২০ অপরাহ্ন

অবশেষে কিশোরগঞ্জের ভৈরবে অটো চালক মো: সুজন মিয়া হত্যার রহস্য উদঘাটন

মো: আল-আমীন, কিশোরগঞ্জ
  • আপডেট সময় বুধবার, ৬ জানুয়ারী, ২০২১
  • ১৮১ বার পড়া হয়েছে
অবশেষে কিশোরগঞ্জের ভৈরবে অটো চালক মো: সুজন মিয়া হত্যার রহস্য উদঘাটন

শ্বশুর বাড়ি থেকে যাওয়ার পথে ভৈরব উপজেলার মধ্যেরচর এলাকার রাস্তার মোড়ের সিড়ির ঘাটলার নীচ হইতে সকাল ৮টায় মুখ, হাত-পা বাধা অবস্থায় মো: সুজন মিয়ার (২৫) মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়। ঘটনার দিন মৃতের চাচা বাদী হয়ে কিশোরগঞ্জ ভৈরব থানায় ৩০২/২০১/৩৪ ধারায় মামলা দায়ের করে। যাহার মামলা নং-১৯।

 

লাশ পাওয়ার পর পিবিআই কিশোরগঞ্জ জেলার ক্রাইমসিন ইউনিট ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে উক্ত হত্যার বিষয়ে ছায়া তদন্ত অব্যাহত রাখে। গত ৩ জানুয়ারী ২০২১ খ্রি. তারিখে মামলাটি পিবিআই স্ব-উদ্যোগে গ্রহণ করে এবং ভিকটিম এর মোবাইল নম্বর সংগ্রহ করিয়া তথ্য-প্রযুক্তির সহায়তায় ৩জনকে গ্রেফতার করে। গ্রেফতারকৃত ৩জনের মধ্যে আসামী ওবায়দুল ওরফে মাসুমকে (১৯) রাত অনুমান ৯টায় ঢাকার গুলিস্থান সংলগ্ন আলু বাজার জুতা তৈরীর কারখানা থেকে গ্রেফতার এবং তার হেফাজতে থাকা ভিকটিম মোঃ সুজন মিয়ার মোবাইল ফোনটি জোর পূর্বক জব্দ করে পুলিশ। সে কুলিয়ারচর উপজেলার ছয়সূতী ইউনিয়নের নোয়াগাঁও এলাকার বাসিন্দা। তার পিতার নাম মোঃ আবুল কালাম।

 

গ্রেফতারকৃত আসামীর দেওয়া তথ্যমতে সোমবার (৪ জানুয়ারী) দুপুরে দেড়টার সময় মোঃ শাকিল (২০) ও মোঃ ইসমাইল (২১) নামে আরও দুজনকে গ্রেফতার করা হয়। আসামী সাকিল একই উপজেলার হাজারী নগর এলাকার মো: দুদু মিয়া ছেলে। আসামী মো: ইসমাইল ভৈরব উপজেলার খাসহাওলা এলাকার মো: ইয়াকুব মিয়ার ছেলে। গত সোমবার (৪ জানুয়ারী) আসামীদ্বয়কে বিজ্ঞ আদালতে প্রেরণ করিলে আসামীগন উক্ত ঘটনায় নিজেদের জড়িয়ে বিজ্ঞ চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট (০২ নং আদালত) এর বিচারক মোঃ রফিকুল বারী এর নিকট ফৌজদারী কার্যবিধি ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তি মূলক জবানবন্দি প্রদান করে।

 

পিবিআই কিশোরগঞ্জ এর প্রেস বিফিং থেকে ঘটনার বর্ণনায় জানা যায় আসামী ওবায়দুল ওরফে মাসুম, ইসমাইল ও শাকিলসহ অজ্ঞাত আরো ৩ থেকে ৪ জন আসামী সমবয়সী এবং তাদের মধ্যে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক ছিল। তারা পূর্বেও চুরি, ছিনতাইসহ বিভিন্ন খুনের সাথে জড়িত রয়েছে। ১২ ডিসেম্বর ২০২০ ইং তারিখে উক্ত আসামীগণ মধ্যেরচর নামক জায়গায় রাতে একত্রিত হয়ে একটি মাছের পিকআপ-ট্রাক থামিয়ে ডাকতি করার পরিকল্পনা করে। পরিকল্পনা মোতাবেক রাতে উক্ত আসামীগণ উক্ত জায়গায় অবস্থান করে।

 

রাতে মাছের কোন ট্রাক-পিকআপ না আসায় উক্ত আসামীদের পরিকল্পনা ব্যর্থ হয়। ১৩ ডিসেম্বর ২০২০ তারিখ ভোরবেলাভিকটিম সুজন ব্যাটারি চালিত অটো রিক্সা নিয়ে মধ্যেচর গ্রাম হতে শিমুলকান্দি যাওয়ার সময় ভোর অনুমান ছয়টায় আসামীগণ অটোগাড়িটি থামিয়ে যাত্রী বেশে ভিকটিমের গাড়ীতে উঠে। মধ্যেচর-শিমুলকান্দি বন্দে আসার পর আসামীগণ ভিকটিমকে অটোরিক্সা থামাতে বাধ্য করে। আসামীগণ ভিকটিমকে জোর করে মধ্যেরচর-শিমুলকান্দি বন্দে নামার সিঁড়িতে নিয়ে যায়।

 

আসামীগণ জোর করে ভিকটিম থেকে অটোর চাবি নিয়ে নেয় এবং ভিকটিম সুজনকে মারপিট করতঃ তার পড়নের লুঙ্গি খুলে লুঙ্গি টুকরা টুকরা করে ভিকটিম সুজনের হাত, পা, মুখ বেধে শ্বাস রোধ করে হত্যা করে। হত্যার পরবর্তীতে ভিকটিম সুজনের লাশ গোপন করার জন্য সিঁড়ির নিচে রেখে ব্যাটারী চালিত অটো রিক্সাটি নিয়ে পালিয়ে যায়। পরবর্তীতে উক্ত আসামীগণ অটো রিক্সাটি ২০ হাজার টাকার বিনিময়ে অজ্ঞাতনামা আসামীর নিকট বিক্রয় করে দিয়ে উক্ত টাকা আসামীরা ভাগ করে নেয়। ভিকটিমের ব্যবহৃত মোবাইল ফোনটি আসামী ওবাইদুল ওরফে মাসুম নিজে ব্যবহারের জন্য নিয়ে নেয়। উক্ত আসামী ভিকটিমের ব্যবহৃত মোবাইল ফোনের সীম ফেলে দিয়ে নিজের সীম সংযুক্ত করে ব্যবহার শুরু করে।

 

পিবিআই কিশোরগঞ্জ জানিয়েছে পলাতক অন্যান্য আসামীদের গ্রেফতারসহ ভিকটিমের অটো রিক্সা উদ্ধারের জন্য অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2020 Onenews24bd.Com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com